২০শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:৪০

আশুলিয়া প্রেস ক্লাব নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রতিশ্রুতি

মশিউর রহমান, নিজস্ব প্রতিবেদক : আশুলিয়া প্রেস ক্লাবের ৫ম দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন ২৮ মার্চ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ঘড়ির কাটা যত ঘুরছে সময় তত ঘনিয়ে আসছে এবং প্রার্থীদের মাঝে বাড়ছে ততই জল্পনা-কল্পণা আর উৎকন্ঠা। সভাপতি পদের পাশা-পাশি সাধারণ সম্পাদক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদগুলোও অন্যতম পদ। এ পদগুলোর দিকে নজর সকলে। ক্লাবের সদস্য, স্থানীয় নেতৃবৃন্দ, স্থানীয় প্রশাসন, সাধারন মানুষসহ সবার দৃষ্টি রয়েছে এই পদগুলোর জয়ের মুকুটের দিকে।

এবার একজন সাধারণ সম্পাদক পদের বিপরীতে ৪ জন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদে দু’জন প্রার্থী ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে একজনের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে যাচ্ছেন দু’জন প্রার্থী । এগুলোতে লড়াই হবে হাড্ডা-হাড্ডি। নির্বাচনকে ঘিরে এ পদের এই প্রার্থীরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। প্রচারণায় প্রযুক্তির ব্যবহারের পাশা-পাশি সূর্য উঠার আগেই ভোটারের বা সদস্যদের বাড়ির দরজায় স্ব-শরীরে হাজির হচ্ছেন। নিজের সুমিষ্ট আলাপণের মাধ্যমে উপস্থাপন আর বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিয়ে চাইছেন কাঙ্খিত ভোট। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে এই নির্বাচনী প্রচারণা।

সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থীদের প্রতিশ্রুতি ,মোঃ মাহ্ফুজুর রহমান নিপুঃ আমি একবার সাধারণ সম্পাদকের দ্বায়িত্ব পালন করেছি তখন প্রেস ক্লাবে ভবনের সংকট ছিলো। সকলের সহযোগীতায় তা নির্মাণ করতে সক্ষম হয়েছি। আবারও নির্বাচিত হয়ে সাংবাদিকদের কল্যাণে নিরলসভাবে কাজ করে যাবো।

মোঃ নজরুল ইসলাম মানিকঃ প্রেস ক্লাব ও সদস্যদের উন্নয়নে যা যা করণীয় নির্বাচিত হয়ে আমি তা করবো।
সাংগঠনিক সম্পাদক প্রার্থী
খোকা মুহাম্মদ চৌধূরীঃ এর আগেও আমি নির্বাচিত হয়ে ক্লাব ও সাংবাদিকদের কল্যাণে নিরলস কাজ করে গেছি। পূনরায় নির্বাচিত হয়ে সুসংগঠিত প্রেস ক্লাব ও সাংবাদিকদের কল্যাণে কাজ করব।

মোঃ আমিনুল ইসলামঃ সকলের সহযোগীতায় আধুনিক প্রেস ক্লাব গড়ে তুলতে এবং সাংবাদিকদের কল্যাণে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করছি। সেই সাথে সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ে সংগ্রামের আপোষহীন সৈনিক, সৎ ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদকর্মী হিসেবে কাজ করতে চাই। সে ক্ষেত্রে আশুলিয়া প্রেস ক্লাবের সম্মানিত সকল সহকর্মী ভাইদের কাছে সহযোগীতা কামনা করছি।
অন্যদিকে যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীরা যা প্রতিশ্রুতি দিলেন

ওবায়দুর রহমান লিটনঃ আমি নির্বাচিত হলে কার্য্যনির্বাহী কমিটির সহযোগীতায় প্রেস ক্লাবের সামাজিক উন্নয়ন ও সাংবাদিকদের কল্যাণে কাজ করে যাবো। জয় পরাজয় বড় কথা নয়, নির্বাচনে হার জিত আছেই। কেহ জিতবে এবং কেহ হারবে এটাই স্বাভাবিক। প্রেস ক্লাবের সকল সদস্য আমরা একত্রে ছিলাম একত্রে থাকবো। জয় হই বা না হই সকলে কাধে কাধ রেখে একত্রে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন এই প্রার্থী।

মাহবুব মন্ডলঃ অন্যদিকে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী মাহাবুব মন্ডল বলেন, আমি ১ যুগ ধরে সাংবাদিকতা পেশায় নিয়োজিত আছি। সাংবাদিকদের কল্যাণেসহ প্রেস ক্লাবের উন্নয়নে কাজ করে যাবো। আর অপ-সাংবাদিকতা  দূর করতে নিরলস কাজ করব।
অন্যদিকে ভোটারদের প্রত্যাশাঃ যোগ্য ব্যক্তিকে অভিভাবক করবেন। এছাড়া সহকর্মীদের বিপদ- আপদে যাকে সব সময় পাশে পাবেন ও কাছে পাবেন এমন ব্যক্তিকেই অভিভাবক হিসেবে নির্বাচিত করবেন। সততা নিয়ে ক্লাবে উন্নয়নে কাজ করবে এমনটাই চাওয়া।

কুইকনিউজবিডি.কম/অভি/২৩শে মার্চ, ২০১৭ ইং / দুপুর ১২:৪৮