১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:০৯

কুড়িগ্রামে ধরলা ও তিস্তার বালু চরে আলুর বাম্পার ফলন

কুইকনিউজবিডি.কম ডেস্কঃ  ধরলা ও তিস্তার পতিত বালু চরে এ বছর আলু চাষ করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন কুড়িগ্রামের আলু চাষিরা। ফলন ভাল হবার পাশাপাশি দাম ভাল পাওয়ায় হাসি ফুটেছে কৃষকদের মুখে। সেই সাথে বালু চরে আলুর চাষ সম্প্রসারণের ফলে কর্মসংস্থান হয়েছে স্থানীয় বেকার দিন মজুরদের।
কৃষি বিভাগের দেয়া তথ্য মতে, ফসল ফলানোর অনুপযোগী হওয়ায় জেলার চরাঞ্চলের প্রায় ৩০ হাজার হেক্টর জমি পতিত থাকতো। বর্ষার পর কাঁশবন ও গবাদি পশুর চারণভূমি ছিল এসব অনাবাদি জমি। কিন্তু গত কয়েক বছর বালুকাময় এসব পতিত জমিতে শুরু হয়েছে নানা ফসলের চাষ। কলা, ডাল ও ভুট্রার পাশাপাশি ধরলার চরে এ বছর হয়েছে ব্যাপকভাবে আলুর চাষ। বাণিজ্যিক ভিত্তিতে একরের পর একর জমিতে আলু চাষের ফলে বদলে গেছে এসব এলাকার আর্থ-সামাজিক চিত্র। এবার প্রতি একর জমিতে প্রায় ৩১০ মণ আলুর ফলন হয়েছে। কোন কোন জমিতে একটি আলুর ওজন হয়েছে ৫০০ গ্রাম পর্যন্ত। দাম জাতভেদে প্রতি কেজি ১০-১১ টাকা। এতে উৎপাদন খরচের প্রায় দ্বিগুন লাভ হচ্ছে কৃষকদের।
সরেজমিন মঙ্গলবার কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ধরলার চর হলোখানায় গিয়ে দেখা যায়, কৃষি মজুররা ব্যস্ত জমি থেকে আলু তোলার কাজ নিয়ে। জমি ভরে আছে আলুতে। এ বছর চরের জমিতে ডায়মন্ড ও ষ্টারিক জাতের আলুর চাষ হয়েছে বেশী। এখানে বাণিজ্যিকভাবে আলুর চাষ করা কৃষক সদর উপজেলার শিবরাম গ্রামের আসাদুজ্জামান জানান, তিনি চরের কৃষকদের জমি লিজ নিয়ে এ বছর এই চরের ৪০ একর জমিতে আলুর চাষ করেছেন। একই ভাবে পাশর্^বর্তী সারোডোব চরে হাবিবুর রহমান ১৬ একর, বাবুল আখতার ৪০ একর, কাগজি পাড়ার চরে ওহাব আলী ৩২ একর, কাচির চরে আব্দুল লতিফ ৩৭ একরসহ অনেকেই বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চাষ করেছেন আলুর। চরের জমিতে আলুর চাষ সম্পর্কে কৃষক আসাদুজ্জামান জানান, এসব জমিতে স্বাভাবিকের চেয়ে ৩ গুণ সেচ এবং জৈব ও রাসায়নিক সার বেশী প্রয়োগ করতে হয়। তাতে ফলন বাড়ে। জমি ভাড়া ও মজুরের মজুরি কম থাকায় উৎপাদন খরচও কম পড়ে। পরিবহন ব্যবস্থার জন্য নৌকা ও ঘোড়ার গাড়ির উপর মুলত নির্ভর করতে হয়। তিনি জানান, চরের এসব জমি বছরে ৪-৬ হাজার টাকায় লিজ নিয়ে আলু ছাড়াও ভুটার চাষ করা যায়। কেউ কেউ অবশ্য শুধু আলু চাষের জন্য জমি লিজ নেন। পতিত থাকার চেয়ে বছরে কয়েক হাজার টাকা হাতে পেয়ে খুশি চরের দরিদ্র কৃষকরা। সারোডোব চরের কৃষক মজিবর রহমান ও কাছু ফকির জানান, লিজের টাকা পাবার পাশাপাশি তারা আলুর চাষ কৌশলও শিখে নিচ্ছেন হাতে কলমে।
স্থানীয় দিন মজুররা জানান, এলাকায় কাজ না থাকায় বছরের কয়েক মাস বেকার থাকতে হতো। কেউ কেউ কাজের সন্ধানে চলে যেতেন অন্য জেলায়। কিন্তু বাণিজ্যিক ভিত্তিতে আলু চাষের ফলে বছরের কয়েক মাস নারী ও পুরুষ মজুরদের হাতে কাজ থাকায় বেকারত্ব ঘুচে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন তারা। হলোখানার চরের দিনমজুর এনামুল ও আশরাফুল জানান, আগে বন্যার পর পরই কাজের সন্ধানে ঢাকা, কুমিল্লা, চট্রগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকায় যেতে হতো। এখন তারা বছরের অন্ত: ৬ মাস দৈনিক ১৮০-২০০ টাকা মজুরিতে নিয়মিত কাজ পাচ্ছেন। এমনকি নারী মজুর কাজ করে দৈনিক ১২০ টাকা আয় করে সংসারে এনেছেন স্বচ্ছলতা। নারী মজুর আছিয়া বলেন, ‘এই সময়টা কোন কাজ কর্ম ছিলনা। এই আলুর প্রজেক্ট করিয়া হামরা করি মিলি খাবার নাগছি’।
কুইকনিউজবিডি.কম ডেস্কঃ   চরে আলুর চাষের কারণে বেড়ে গেছে ঘোড়ার গাড়ির কদর। কারণ চর থেকে আলু পরিবহন করতে ঘোড়ার গাড়ি ছাড়া উপায় নেই। ঘোড়ার গাড়ির চালক হেলাল, আনিছুর ও আব্দুল জব্বার জানান, তারা এই মৌসুমে চর থেকে হিমাগারে আলু পরিবহন করছেন। এখন পর্যন্ত জনপ্রতি ২০-২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত আয়ও করেছেন। তারা জানান, চরে এখন কয়েকশ ঘোড়ার গাড়ি চলছে। কর্মসংস্থানও হয়েছে অনেকের। চরে আলু চাষ সম্প্রসারণের ফলে আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ বাড়ছে। আর এ কারণে হিমাগার মালিকরাও তাদের হিমাগারে সংরক্ষণের জন্য অনায়াসে আলু পাচ্ছেন। কুড়িগ্রামের হক হিমাগার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পনির উদ্দিন জানান, এ বছর চরে ব্যাপকভাবে আলুর চাষ ও ফলন ভাল হওয়ায় তাদের হিমাগারের দেড় লাখ বস্তা ধারণ ক্ষমতার পুরোটাই পূরণ হবার পথে।
তবে চরে আলু চাষের সমস্যা হিসেবে উঁচু নিচু জমিতে সেচ, আগাছার পরিমাণ বেশী ও পরিবহন সমস্যাকে প্রধান সমস্যা হিসেবে দেখছেন।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, জেলায় এ বছর ৬ হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে আলুর চাষ হয়েছে। যা গত বছরের চেয়ে ৮০০ হেক্টর বেশী। এর পুরোটাই চাষ হয়েছে চরাঞ্চলে। প্রতি হেক্টরে গত বছরের চেয়ে ৫ মে. টন বেশী আলুর ফলন হয়েছে। গত বছর হেক্টওে ২০ মে. টন গড় ফলন হলেও এবার ২৪-২৫ মে. ট নপর্যন্ত ফলন হচ্ছে।
কুড়িগ্রামের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপ-পরিচালক মো: মকবুল হোসেন জানান, চরাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি ও সেচের জন্য ফিতা পাইপের সরবারহ করা গেলে আলুসহ অন্যান্য ফসল চাষে বিপ্লব ঘটে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে ।

কুইকনিউজবিডি.কম/এল আর/মার্চ 31.2016/00.59 pm