১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ২:২৫

রাবির প্রতি বিদেশী শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বাড়ছে

রাবি প্রতিনিধি: প্রাচ্যের ক্যামব্রিজ খ্যাত দেশের অন্যতম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদেশী শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বাড়ছে। শিক্ষার উন্নত পরিবেশের দরুণ বরেন্দ্র ভূমির এই ক্যাম্পাসে পড়তে বাড়ছে তাদের আগ্রহ। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন তারা। এর মধ্যে আছেন নেপাল, জর্ডান, সোমালিয়া সহ বিভিন্ন দেশের ২৯ জন শিক্ষার্থী


বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক শাখা সূত্রে জানা যায়, স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে বিদেশী শিক্ষার্থীদের এই বিশ^বিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ থাকে। পূর্বের শিক্ষাবর্ষে নেপাল থেকে শিক্ষার্থীরা ভর্তির জন্য আবেদন করেছেন। এবার নতুন করে জর্ডান ও সোমালিয়া থেকে শিক্ষার্থীরা বিশ^বিদ্যালয়ে পড়ার জন্য আবেদন করেছেন। নেপাল ও নতুন দুই দেশ মিলে ¯স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে অনলাইনে মোট আবেদন কারীর সংখ্যা ছিল ৩৪ জন। তবে যোগ্যতার ভিত্তিতে ২৯ জন শিক্ষার্থীকে ভর্তির অফার লেটার পাঠানো হয়।

যার মধ্যে ¯স্নাতক পর্যায়ে ১১ জন নেপালী, সোমালিয়ার-৩ ও জর্ডানের-১ ও ¯স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ৯ জন সোমলীয়কে এই অফার লেটার পাঠানো হয়। ইতোমধ্যে ১১ বিদেশী শিক্ষার্থী বিভিন্ন বিভাগে ভর্তি হয়ে ক্লাস করছেন। বাকী শিক্ষার্থীদের ভর্তি প্রক্রিয়া আগামী ১০-১৫ দিনের মধ্যে শেষ হবে বলে একাডেমিক শাখা থেকে জানানো হয়।

বিশেষত বিজ্ঞান অনুষদের মধ্যে ফার্মেসী, ইলেক্ট্রিকাল ও ইলেক্টনিক, ভূতত্ব-খনিবিদ্যা, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ব্যাংকিং ইন্সুরেন্স, একাউন্টিং, কৃষি অনুষদের এগ্রোনোমি এন্ড এগ্রিকালচার এক্সটেনশন, ভেটেনারি এন্ড এনিমেল সায়েন্সেস বিভাগ সমূহের উন্নত শিক্ষার পরিবেশ ও বিশে^ বিভাগ গুলোর গ্রহনযোগ্যতার কারণে বিদেশীদের এই বিশ^বিদ্যালয়ে পড়ার আগ্রহ বাড়ছে বলে জানা যায়।


একাডেমিক শাখার উপরেজিস্ট্রার এ এইচ এম আসলাম হোসেন জানান, এবারের শিক্ষা বর্ষে রাবির ফার্মেসী বিভাগে ভর্তি হয়েছে নেপালের কৃষ্ণ মহড়া ও কৃষ্ণ প্রষাদ, ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে প্রথম বর্ষে ভর্তি হয়েছেন জর্ডানের সইফ আদ্দিন সাঈদ আদ্দিল কাদির শিহাদেহ, সোমালিয়ার ওমার ওয়েইস আবু মোহামেদ, মোহামুদ মোহামেদ সাঈদ, নেপালের অভিশেক কুমার সাহ। ব্যাংকিং এন্ড ইন্সুরেন্স বিভাগে ভর্তি হয়েছেন আহমেদ মোহামুদ আলি।


বিদেশী শিক্ষার্থীদের আবাসন সুযোগ সুবিধার ব্যাপারে আসলাম হোসেন বলেন, ‘বিদেশী শিক্ষার্থীদের ছেলেদের থাকার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মীর আব্দুল কাউয়ূম আন্তর্জাতিক ডরমেটরি রয়েছে। অন্যদিকে মেয়েদের জন্য বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা হলে একটি আধুনিক আলাদা উইং বরাদ্দ রাখা হয়েছে। বিদেশী শিক্ষার্থী ও গবেষকরা সেখানে সুন্দর শিক্ষার পরিবেশ পায় সেদিক চিন্তা করেই আধুনিক এই ব্যবস্থা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।
নেপাল থেকে আসা রাবির প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী কৃষ্ণ প্রষাদ বলেন, কয়েকদিন হলো এসেছি। ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার মাধ্যমে আমি ডরমিটরিতে থাকার সুযোগ পেয়েছি। সুন্দর পরিবেশে সুস্থ আছি।


বিশ^বিদ্যালয়ে বিদেশী শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বাড়ার পিছনে কারণ হিসেবে ভিসি মুহম্মদ মিজানউদ্দিন বলেন, স¦রাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও শিক্ষামন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বিদেশী শিক্ষার্থীরা আমাদের বিশ^বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে সমস্যার মধ্যে পড়ত এছাড়াও বেশ কিছু জটিলতা যেমন তাদের অর্থ আদান প্রদানে দেশীয় মুদ্রার প্রচলন ছিলনা ডলারের মাধ্যমে অর্থব্যবস্থা থাকার কারণে ভর্তির পরিমাণ কম ছিল। তবে এবার এসব জটিলতা মুক্ত হয়ে ভর্তি কার্যক্রম সহজ হয়েছে।
শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয়ে ভিসি বলেন, বিশ^বিদ্যালয় থেকে তাদের সার্বিক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন। তবে যেহেতু তারা আমাদের অতিথি তাই তাদের প্রতি সকলকে খেয়াল রাখার অনুরোধ জানান।

কুইকনিউজবিডি.কম/ মাসুম / ২৯শে জানুয়ারি,  ২০১৭ ইং  / রাত ৯:16