২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১২:৫৪

ভান্ডারিয়ার সদর পোষ্ট মাষ্টারের অনিয়মই হলো এখন নিয়ম

পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ  পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলা সদরের প্রধান ডাকঘরের পোষ্ট মাষ্টার মো. গোলাম মোস্তফা বিরুদ্ধে অনিয়ম এর অভিযোগ উঠেছে। তিনি যথা সময়ে অফিসে উপস্থিত হননা। খেয়াল খুশী মত অফিস করেন । কখন ও ১১টা আবার কখনও ১২টায় অফিসে উপস্থিত হন। স্থানীয় গ্রাহকদের অভিযোগ সদর ডাকঘরে এমন দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে গ্রাহকরা পোষ্ট অফিসের কার্যকর সেবা না পেয়ে পোস্ট অফিস বিমূখ হয়ে পড়েছেন।
গ্রাহকদের অভিযোগ, ভান্ডারিয়া পোষ্ট অফিসে জাতীয় সঞ্চয়পত্র কিনতে ও ভাংগাতে গ্রাহকদের টাকা দিতে হয় পোষ্ট মাষ্টারকে । টাকা না দিলে ফরম নাই বলে তিনি কৃত্রিম সংকট তৈরী করেন। সঞ্চয়পত্র ভাংগালে খুচরা টাকা দেয়া হয়না । এতে গ্রাহকরা পোস্ট অফিসের সেবা নিতে এসে নানাভাবে হয়রাণি ও ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।
সম্প্রতি ভান্ডারিয়ার ব্যবসায়ী সুমন পাল তিনবছর মেয়াদী এফডিআর ভাংগালে তার কাছ থেকে খুচরা ৪ শত ৭৩টাকা রেখে দেন পোস্ট মাস্টার। গৌরিপুর গ্রামের মো. ফরিদ উদ্দিনের কাছ থেকে ৮শত টাকা আদায় করে রাখেন পোস্ট মাস্টার। এ অনিয়মের প্রতিবাদ করলে গ্রাহকদের টাকা উত্তোলনে বিলম্ব করেন। এ পোষ্ট মাস্টার টাকা ছাড়া কোন কাজ করে না। অফিস ছুটির পরে রাতে লেনদেন করেন বিভিন্ন কৌশলে অর্থ আদায় করে। জাতীয় সঞ্চয়পত্র ও তিনবছর ও দীর্ঘ মেয়াদীদের এফডিআর ও আমানতের টাকা ভাংগাতে সঠিক হিসাব প্রদান করা হয় না। কোন গ্রাহকের সকালে হিসাব করলে তাৎক্ষনিক কোন টাকা পয়সা প্রদান করা হয় না। তাকে বিকালে আসতে বলে বিকেলে আসলে বলা হয় ক্যাশ নেই। যদি তাকে ফি দেয়া হয় তা হলে ক্যাশ মেলে।
অফিস সূত্রে জানাগেছে, সকল কর্মচারী অফিস ত্যাগ করলে রাতে ওই অফিসের একজন কর্মচারী (প্যাকার) তাকে নিয়ে অনিয়ম করে অর্থ প্রদান করে। তিনি অফিসে আসেন প্রতিদিন ১১টা থেকে সাড়ে এগারটায় মধ্যে দুপুরে পরে তিনি চলে জানান। গতকাল রোববার সকাল ১১টা ৪৫মিনিটের সময় অফিসে আসেন এসময় সকাল ৯টা থেকে গ্রাহক সঞ্চয় পত্রের টাকা নিতে আসেন বোথলা গ্রামের মর্জিনা আক্তার, শ্রীপুরে হাওয়া বেগম, হোসনেয়ারা , ভিটাবাড়িয়ার সুভাষ চন্দ্র, ভান্ডারিয়া রুমানা আক্তার, দক্ষিণ শিয়ালকাঠী পরিমল চন্দ্র বিশাস, দক্ষিন ভান্ডারিয়া মহাসীন ৫লাখ টাকার এফডিআর করার জন্য পোষ্ট অফিসে দুই ঘন্টা অপেক্ষা করে পোস্ট মাস্টারকে না পেয়ে বাড়ি চলে যান।
এ ব্যাপারে ভিটাবাড়িয়া আওয়ামীলীগের সভাপতি বজলুর রহমান অভিযোগ করেন, তিনি সকাল সাড়ে নয়টা থেকে অপেক্ষা করেছেন পোষ্ট মাষ্টারের জন্য। পোস্ট মাস্টার সাড়ে ১১টার সময় অফিসে ঢুকেছেন। প্রতিদিন গ্রাহক পোস্ট মাস্টারের অনিয়মে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।
পোস্ট মাস্টার অফিসের কোন নিয়ম কানুনের প্রতি কোন তোয়াক্কা করেন না। ইচ্ছেমত আসেন আর ইচ্ছে মত যান। এটা তার নিয়মে পরি নত হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে ভান্ডারিয়া উপজেলা পোস্ট মাস্টার মো. গোলাম, মোস্তফা তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, গ্রাহকের টাকা উত্তোলনের ক্ষেত্রে পিরোজপুরের উত্তম বাবুকে টাকা দিয়ে বই ছাড়াতে হয় । সেই টাকা অমি নিয়ে গ্রহকদের বই প্রদান করি।

এ ব্যাপারে পিরোজপুর জেলা সদর পোষ্ট অফিসের ইনেসপেক্টর মো. আবুল হোসেন বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

কুইকনিউজবিডি.কম/তপন/১২ই জানুয়ারি, ২০১৭ ইং/সন্ধ্যা ৬:৫৮