২০শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:৪১

উপজেলা চেয়ারম্যানের মুক্তির দাবীতে খাগড়াছড়িতে ৯ উপজেলায় সকাল-সন্ধ্যা সড়ক অবরোধ চলছে

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ির পার্বত্য জেলার লক্ষীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমার মুক্তির দাবিতে ৯টি উপজেলায় সকাল-সন্ধ্যা সড়ক অবরোধ শান্তিপূর্ণ ভাবে চলছে। জেলার লক্ষীছড়ি, মাটিরাঙ্গা, রামগড়, মানিকছড়ি, গুইমারা, পানছড়ি, মহালছড়ি, দীঘিনালা উপজেলাসহ খাগড়াছড়ি-ঢাকা ও খাগড়াছড়ি-চট্টগ্রাম মহাসড়কে পূর্নদিবস সড়ক অবরোধ সর্বাত্মক শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হচ্ছে। সকাল ৬টা থেকে অবরোধ শুরু হয়ে বিকেল ৬টা পর্যন্ত এ অবরোধ কর্মসূচি পালিত হবে। প্রতন্তে অঞ্চলের সাধারন লোকজন ও স্কুল পড়–য়া ছাত্র/ছাত্রীরা দুর্গম পথে পায়ে হেতে যেতে দেখা গেছে। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহি নৈশ কোচ কড়া পুলিশী পাহাড়ায় গন্তব্য স্থলে পৌছে দেওয়া হয়েছে। অবরোধ চলাকালে শহরে অধিকাংশ এলাকায় আর্মড পুলিশ, সাদা পোষাকে ডিবি ও পুলিশ বাহিনী অতিরিক্ত মোতায়েন করা হয়েছে।
অবরোধ চলাকালে ৯টি উপজেলার অভ্যন্তরীণ প্রধান সড়কে কোন যানবাহন চলাচল করেনি এবং খাগড়াছড়ি থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে কোন যানবাহন ছেড়ে যায়নি। তবে জেলা শহরে স্বাভাবিক থাকলেও ঐ ৯টি উপজেলার এলাকায় দূরপাল্লা কোন যানবাহন চলাচল করতে পারেনি। অবরোধের কারনে গুরত্বপূর্ণস্থানে পুলিশ পাশাপাশি বিজিবি-সেনাবাহিনী টহল জোরদার করা ছিল।
এদিকে আন্দোলন জোরদার করার লক্ষ্ম্যে লক্ষীছড়ি উপজেলার জনপ্রতিনিধিগণ ও এলাকার জনগণ মংগলবার এক জরুরী বৈঠকের মাধ্যমে উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা মুক্তি সংগ্রাম কমিটি গঠন করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। গঠিত ১২৭সদস্য বিশিষ্ট উক্ত সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক হিসেবে রয়েছেন লক্ষীছড়ি উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান অংগ্যপ্রু মারমা, সদস্য সচিব হলেন লক্ষীছড়ি উপজেলা মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান বেবিরানী বসু। কমিটি গঠন করার পরে নেতৃবৃন্দ কমিটির পক্ষ থেকে সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত এক বার্তায় সুপার জ্যোতি চাকমার মুক্তির দাবি ও তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ জনগণের উপর হয়রানী বন্ধ এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে অপারেশান উত্তরণ প্রত্যাহার দাবি ও একই সাথে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ে সরকারের অসাংবিধানিক ১১দফা নির্দেশনা প্রত্যাহারের দাবিতে ০৪ জানুয়ারি, ২০১৭খ্রি: বুধবার পুরো খাগড়াছড়ি জেলায় সকাল-সন্ধ্যা সড়ক অবরোধের ঘোষনা প্রদান করেছে। নেতৃবৃন্দ তাদের এই সড়ক অবরোধ সফল করার জন্য খাগড়াছড়ি জেলার সকল সাধারণ জনগণ ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক সংগঠনসমূহের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। এছাড়া নেতৃবৃন্দ তাদের আন্দোলনকে জোরদার করার জন্য জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিবাদ প্রতিরোধে শামিল হবার আহ্বান জানিয়েছে।
নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, আজ পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনা দমনপীড়ন মাত্রাতিরিক্ত পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। জনগণ নিজের গ্রামে, ঘর-বাড়ি, দোকানপাট, বাজার, রাস্তাঘাটসহ কোথাও নিজেকে নিরাপদ বোধ করছে না। সর্বত্র নিরাপত্তাবাহিনী সাধারণ জনগণসহ আন্দোলনকামী সংগঠনসমূহের উপর খড়গহস্ত হয়ে নিপীড়ন নির্যাতন চালা”েছ। পার্বত্য জনগণের এই দুর্দিনে দেশের সচেতন জনগণের নিশ্চুপ-প্রতিবাদহীন ভুমিকা খুবই দৃষ্টিকটূ হিসেবে দেখা দিচ্ছে। নেতৃবৃন্দ দেশের সচেতন জনগণসহ সাধারণ জনগণকে পার্বত্য চট্টগ্রামের উপর চলমান নিপীড়ন নির্যাতন, অন্যায়ভাবে ক্ষমতার অপব্যবহার করে পার্বত্য জুম্ম জনপ্রতিনিধিসহ সাধারণ জনগণকে অত্যাচার নির্যাতন ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীসহ সকল নির্যাতন নিপীড়নের বিরুদ্ধে সো”চার হবার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানান।
নেতৃবৃন্দ বিবৃতিতে আজ মঙ্গলবার বিকালে লক্ষীছড়ি উপজেলায় সুপার জ্যোতি চাকমার উপর দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ অবিলম্বে তাকে মুক্তির দাবি জানিয়ে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে বিনা উসকানিতে সেনা-সেটলার-পুলিশ বাহিনী ও ছাত্রলীগের ক্যাডার কর্তৃক লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা, ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে শতাধিক সাধারণ জনগণকে আহত করা হয়েছে অভিযোগ করেন। নেতৃবৃন্দ, শান্তিপূর্ণভাবে আয়োজিত সমাবেশে হামলার তীব্র নিন্দা জানান। খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা লক্ষীছড়ি উপজেলা দুল্যাতলী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও সুপার জ্যোতি চাকমা মুক্তি সংগ্রাম কমিটি সদস্য ত্রিলন চাকমা দয়াধন স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।
খাগড়াছড়ি সদর সার্কেলের সি: সহকারী পুলিশ সুপার মো: রইছ উদ্দিন জানান, কোন অপ্রীতিকর ঘটনা খবর নেই। খুবই শান্তিপূর্ণ ভাবে অবরোধ পালিত হচ্ছে । স্পর্শকাতর এলাকায় মোবাইল টিম যৌথ নিরাপওা বাহিনীর টহল জোরদার অব্যাহত আছে।

 

 

কুইকনিউজবিডি.কম/তপন/৪ঠা জানুয়ারি, ২০১৭ ইং/দুপুর ১২:২২