১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ২:৩৬

বেনাপোল দৌলতপুর সীমান্তের চিহ্নিত নারী শিশু ও মাদক পাচারকারী র‌্যাবের হাতে আটক

শার্শা(যশোর)সংবাদদাতাঃ- যশোরের বেনাপোল দৌলতপুর সীমান্তের চিহ্নিত সোনা ও মাদক ব্যবসায়ী জিয়া সিন্টিকেটের জিয়াউর রহমান জিয়া (৩০) কে যশোরের আইনশৃঙ্খলা বাহীনির সদস্যরা আটক করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আটক জিয়া দৌলতপুর গ্রামের মতিয়ার রহমানের ছেলে। সূত্রে জানা গেছে, যশোরের সাদা পোশাকধারী র‌্যাব শুক্রুবার বিকালে বেনাপোল এলাকায় অভিযান চালিয়ে দৌলতপুর গ্রামের বটলতা নামক স্থান থেকে জিয়াকে আটক করে।

আটক জিয়া দৌলতপুর সীমান্তের চোরাচালান সিন্টিকেটের মালিক। জিয়ার বিরুদ্ধে বেনাপোল সমিান্ত এলাকায় ভারতে সোনা পাচার, নারী/শিশু পাচার, হেরোইন, ফেনসিডিল, অস্ত্র ব্যবসা সহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে। সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর জিয়া দীর্ঘদিন ধরে চোরাচালান, ভারতে সোনা পাচার, নারি/শিশু পাচার ও মাদকের জমজমাট ব্যবসা করে আসছে। এ ছাড়া সে সীমান্ত দৌলতপুর গ্রামে একটি সিন্টিকেট গড়ে তুলেছে। তার এ সিন্টিকেট সকল প্রকার অবৈধ্য চোরাচালান, মাদক ব্যবসা পরিচালিত হয়।

বেনাপোল সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগের সাথে সখ্যতার কারনে সে নির্ভয়ে তার এ কর্মকান্ড চালাচ্ছে অনেকদিন ধরে। প্রশাসনের সাথে অর্থের বিনিময় থাকায় এবং তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ থাকা সত্বেও বহালতবিয়তে থেকে যায় জিয়া । সম্প্রতি তার একটি সোনার চালান ধরা পড়ে বেনাপোল বিজিবি’র হাতে। সে মামলায় জিয়া অনেকদিন ভারতে পালিয়ে থেকে দেশে ফিরে বেসামাল হয়ে জোর দিয়ে শুরু করে তার সকল অবৈধ্য ব্যবসা।

জিয়াকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসা করলে বেনাপোল ও দৌলতপুর সীমান্তের সোনা পাচার, নারি/শিশু পাচার, মাদক ব্যবসার অনেক তথ্য বেরিয়ে আসবে। এ ব্যাপারে বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ অপূর্ব হাসানের কাছে জানতে চাইলে তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান সাদা পোশাক ধারী র‌্যাব জিয়াকে ধরে নিয়ে গেছে। র‌্যাব জিয়াকে থানায় দিলে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

কুইকনিউজবিডি.কম/ মুরাদ /৩০শে ডিসেম্বর, ২০১৬ ইং/সন্ধ্যা ৭:০৬