১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৪:৫৩

শরীয়তপুরে পূর্ব শত্রূতার জের ধরে প্রতিপক্ষের বাড়ি-ঘর ভাংচুর

বিশেষ প্রতিবেদক : শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার নশানস ইউনিয়নের শাওড়া গ্রামে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের ১৫ টি বাড়িতে হামলা চালিয়ে প্রায় ৩০ টি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (২৯ ডিসেম্বর) রাত ৯টায় জুলহাস ও সিরাজ চোকদারের লোকজন প্রতিপক্ষ দবির চোকদার ও তার পক্ষের লোকজনের বাড়িতে এই হামলা চালায়। এতে প্রায় ৫০ লাখ টাকা পরিমান ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি ক্ষতিগ্রস্তদের। সংবাদ পেয়ে নড়িয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় ১ জন আহত হয়েছে। তাকে জাজিরা উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন, সহকারী পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) তানভীন হায়দার শাওনসহ পুলিশের একটি দল।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, শাওড়া গ্রামের ব্যবসায়ী দবির চোকদার ও তার সমর্থকদের সাথে জুলহাস মাদবর ও একই এলাকার সিরাজ চোকদারের ও তার সমর্থকদের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে পূর্ব শত্রুতা চলে আসছে। দবির চোকদার সিলেটে তার পরিবার নিয়ে বসবাস ও ব্যবসা করে। স্থানীয় ইউপি সদস্য কাদির মেম্বারের মেয়ের বিয়ে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার জন্য বৃহস্পতিবার বিকালে স্বপরিবারে গ্রামের বাড়িতে আসে। প্রতিপক্ষ এ খবর পেয়ে দবির চোকদারকে মারার জন্য জুলহাস মাদবর ও সিরাজ চোকদার তাদের প্রায় ৫শতাধিক লোকজন নিয়ে দবির চোকদারের বাড়িতে হামলা চালায়। বাড়িতে দবির চোকদারকে না পেয়ে তার বাড়ি-ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়। পরবর্তীতে দবির চোকদারের সমর্থক রহিম চোকদার, বোরহান চোকদার, সোবহান চোকদার, ধলু চোকদার, লুৎফর চোকদার, খবির চোকদার, আলী আকবর চোকদার, হারুন চোকদার, সাঈদ শেখ, করিম চোকদার, মোসলেম ও কাশেম চোকদারের বাড়ির বসতঘরসহ প্রায় ৩০টি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। এ ঘটনায় সেলিম চোকদার আহত হয়ে জাজিরা উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। হামলার খবর পেয়ে নড়িয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে প্রায় ৫০ লাখ টাকা পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা অভিযোগ করেছে।
দবির চোকদারের বোন পারুল বলেন, আমার ভাইয়ের পরিবার সহ আমরা একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে বৃহস্পতিবার সিলেট থেকে গ্রামের বাড়িতে আসি। এ খবর পেয়ে রাত ৯টার দিকে আমার ভাই দবির চোকদারকে মারার জন্য জুলাহাস মাদবর ও সিরাজ চোকদার তাদের লোকজন নিয়ে বাড়িতে হামলা চালায়। ভাই দবিরকে না পেয়ে তার এবং তার সমর্থকদের প্রায় ৩০টি বাড়ি-ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়। বাড়িতে কোন পুরুষ মানুষ না থাকায় বাড়ির মহিলারা ভয়ে তাদের বাধা দিতে পারেনি।
ইড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকরাম আলী মিয়া বলেন, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় ২২ জনকে আসামী করে থানায় মামলা হয়েছে। ১ আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন ঘটনাস্থল পরিদর্মন করেছেন। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

 

 

কুইকনিউজবিডি.কম/তপন/৩০শে ডিসেম্বর, ২০১৬ ইং/ বিকাল ৫:১৩