১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:১৩

ডাক্তারের গাড়ীর ধাক্কায় ফের তিন মোটরসাইকেল আরোহী আহত

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার আধুনিক সদর হাসপাতালের কর্মরত শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার রাজেন্দ্র ত্রিপুরার ব্যক্তিগত কার গাড়ির ধাক্কায় ফের তিন মোটর সাইকেল আরোহী আহত হয়ে সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বুধবার রাত ৮টার দিকে জেলা শহরের কোর্ট রোড প্রধান সড়কে মাস্টারপাড়া মুখ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন জেলা সদরের মাইসছড়ি গামারীঢালা এলাকার বাসিন্দা আজির আলীর ছেলে মো: আশরাফুল হোসেন(৩২), তার শিশু কন্যা আফরিন আক্তার(০৭) ও শ্যালিকা সুমাইয়া আক্তার(১৭)। এসময় আহত ব্যবহৃত খাগড়াছড়ি হ-১১০৫৬৯ নং মোটর সাইকেলটি কারের মাসঘাট ও পিলারের প্রচন্ড আঘাতে ভেংগে চুরমার হয়ে যায়।
এদের মধ্যে মো: আশরাফুলের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ ত্রিটন চাকমা। তিনি জানান মো: আশরাফুল মাথায় ও নাকে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে। তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। ২৪ ঘন্টার আগে কিছুই বলা যাচ্ছে না।
স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, খাগড়াছড়িতে চিকিৎসক’র গাড়ির ধাক্কায় মোটরসাইকেল চালক ও শিশুসহ তিনজন আহত হয়। বুধবার রাত ৮টার দিকে জেলা শহরের রবি সেবা অফিসের মাষ্টার পাড়ার মোড় প্রধান সড়কের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এঘটনায় আহতরা হন আজির আলীর ছেলে আশরাফুল, তার মেয়ে আফরিন আক্তার, শ্যালিকা সুমাইয়া আক্তার। তাৎক্ষনিতভাবে ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
ঘটনা বিবরনে জানা যায়, আদালত প্রধান সড়ক থেকে শাপলা চত্বরগামী মোটর সাইকেলকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয় একটি কার গাড়ি। শহরে ডিজিটাল ডায়াগনেষ্টিক সেন্টারের প্রাইভেট চিকিৎসা দেওয়ার পর বাড়ী উদ্দেশ্যে বের হয়ে গাাড়িটি ডাঃ রাজেন্দ্র ত্রিপুরার যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আর ডাঃ রাজেন্দ্র ত্রিপুরা মধ্যপ আবস্থায় নিজেই চালক ছিলেন। কিন্তু ধাক্কা দেয়ার পর গাড়ী থেকে না নেমে সহানুভুটির পর্যন্ত না দেখিয়ে উল্টো দ্রুত গাড়ি চালিয়ে চলে গেছেন বলে জানিয়েছের ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে ডা: রাজেন্দ্র ত্রিপুরা অনৈতিক আচারনে হাসপাতালে কর্মরত অনেক ডাক্তার-নার্সরা অতিষ্ট ও বিরক্তিকর হয়ে উঠছে।
এ বিষয়ে ডাঃ রাজেন্দ্র ত্রিপুরার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘দুর্ঘটনার বিষয়টি অনাকাঙ্খিত। আমার গাড়ি সংকেত দিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলো। মোটর সাইকেলটি এসে আমার গাড়িতে ধাক্কা দিলে তারা পড়ে যায়।’ তবে আহতদের যাবতীয় চিকিৎসার ব্যয় তিনি দেবেন বলে জানিয়েছেন।
খাগড়াছড়ির সিভিল সার্জন ডাঃ নিশিত নন্দী মজুমদারের কাছে জানতে চাইলে, তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। এটি তার নিজস্ব ব্যক্তিগত বিষয়।
উল্লেখ্য খাগড়াছড়ি জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে শিশু কনসালটেন্ট ডাঃ রাজেন্দ্র ত্রিপুরার বিরুদ্ধে মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে দুর্ঘটনা ঘটানোর অভিযোগটি পাহাড় গড়িয়েছে, এটি নতুন নয়। এর আগে গেল বছরেই মাতাল হয়ে গাড়ি চালিয়ে হাসপাতাল ক্যাম্পাসে এক শিশুকে চাপা দেয়ার ঘটনা ঘটিয়েছেন তিনি। সর্বশেষ খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা: রাজেন্দ্র ত্রিপুরা একটি বেসরকারী ক্লিনিক থেকে রোগী দেখে বের হয়ে প্রাইভেট কার গাড়ী নিয়ে বাসায় যাওয়ার পথে একটি মোটর সাইকেলকে পিছনের দিক থেকে ধাক্কা দিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

 

 

 

কুইকনিউজবিডি.কম /তপন/২২শে ডিসেম্বর, ২০১৬ ইং/ দুপুর ১:০২