৩০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | দুপুর ২:২৬

ঘরে কাজ করে পদোন্নতি পাওয়া অনেকটা প্রথম প্রেমের মতো!

 

লাইফষ্টাইল ডেস্ক : করোনায় ঘরে থেকেও কাজ করে কীভাবে উন্নতি করা সম্ভব তার বিস্তর বর্ণনা দিয়েছে বিবিসি বাংলা। বিবিসির প্রতিবেদনে এক বিক্রয়কর্মী যিনি জন নামে পরিচিত তার বরাতে বলা হয়েছে, বিভিন্ন বই, সংবাদপত্র এবং ইন্টারনেট ফোরামে একজন কর্মী কীভাবে হাসি, নম্রতা এবং চাটুকারিতা দিয়ে বসকে পদন্নোতি দেয়ার ব্যাপারে সম্মত করতে পারেন তা শেখা সম্ভব। তাছাড়া কর্মীর সরাসরি তার বসের সাথে কথা বলা দরকার। কারণ না চাইলে কিছুই পাওয়া যায়না, ঠিক যেন প্রথম প্রেমে পড়ার মতো।

করোনায় চাকরির বাজারে অনেক পরিবর্তন এসেছে। বদলেছে অনেক সমীকরণ। অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মীদের কথা বিবেচনা করে বাড়িতে কাজের সুযোগ দিয়েছে। এখন প্রায় বছর পেরুতে লাগলো অনেকে ঘরে বসেই কাজ করেন। এ অবস্থাতেই কর্মীদের অনেকেরই প্রশ্ন জাগে, বাসায় বসে কাজ করে কী আসলে পদোন্নতি পাওয়া সম্ভব?

আর এসব প্রশ্নের উত্তরই তুলে ধরা হয়েছে বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে। এতে বলা হয়েছে, আপনি যে নিজেকে প্রদর্শন করছেন সেটা যদি আপনি আপনার বসকে না জানাতে চান, তাহলে আপনাকে সূক্ষ্ম হতে হবে। তারপর আপনি যখন বসের কাছ থেকে কোন ইমেইল পান, বা জুম মিটিংয়ে অংশ নেন, তাহলে আপনাকে বসের লেখা বা বলার ভঙ্গি বিশ্লেষণ করতে হবে। আপনি যদি বাড়ি থেকে কাজ করেন এবং পদন্নোতি পেতে চান তবে আপনার নিজেকেই উদ্যোগী হতে হবে। যদি আপনার কয়েকজন সহকর্মী এখনই অফিসে থেকে কাজ করেন তাহলে আপনার প্রচেষ্টায় আরও জোর লাগবে।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে ঘরে বসে কাজ করা অবস্থাতেই যদি আপনি আপনার পদবি এগিয়ে নিতে চান তাহলে সেটা নিঃসন্দেহে বেশ চ্যালেঞ্জিং। কারণ, আপনি যদি আপনার রান্নাঘরের টেবিল বা স্টাডি থেকে কাজ করেন, আপনি আপনার বসের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারছেন না, প্রতিদিনের মিটিংয়ে তার সাথে দেখা হচ্ছে না বা করিডোরে দেখা হওয়ারও কোন সুযোগ নেই। এবং আপনার বসের দৃষ্টিকোণ থেকে, তিনি সহজে এটাই বলবেন যে কেউ অফিসে কতটা কঠোর পরিশ্রম করছে, আর বাড়িতে যারা কাজ করছেন তাদের ব্যাপারে ধারণা থাকে যে তারা নিশ্চয়ই বাচ্চাদের সাথে খেলছেন অথবা মজাদার রান্নাবান্না করছেন।

ওয়ার্ক ফাউন্ডেশন থিংক ট্যাঙ্কের জ্যেষ্ঠ পলিসি উপদেষ্টা মেলানিয়া উইলকেস বলেছেন যে, বাড়ি থেকে যারা কঠোর পরিশ্রম করছেন তাদের উচিত বসের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রাখা।

তিনি বলেন, আমরা অনেক কর্মীকে একাধিক দায়িত্ব গ্রহণ করতে দেখেছি যেগুলো তারা এই মহামারির আগে করেনি। সুতরাং এটা যেন সবার নজরে সেটা নিশ্চিত করুন এবং লিখিত রাখুন, একটি ইমেইলের মাধ্যমে হলেও।

উইলকেস যোগ করেন, বাড়ি থেকে যারা কাজ করছেন তাদের নিশ্চিত হওয়া দরকার যে তাদের ক্ষেত্রে বিদ্যমান এইচআর পলিসি বা মানবসম্পদ নীতি অনুসরণ করা হচ্ছে। যেমন নিয়মিত সবার কাজের ফলাফল নিয়ে আলোচনা। আপনার কাজের অগ্রগতি পর্যালোচনা করতে আপনার লাইন ম্যানেজারের সাথে নিয়মিত মিটিং করা উচিত। যেটা আপন অফিসে কাজ করা অবস্থায় করতেন। এতে করে যেটা হবে, আপনি কীভাবে ভাল কাজ করছেন এবং আপনি কি করতে চান সে ব্যাপারে আপনার ম্যানেজমেন্ট আগে থেকেই অবগত থাকবেন। পদন্নোতির পথে এটি আপনার মূল চাবিকাঠি।

অ্যালায়েন্স ম্যানচেস্টার বিজনেস স্কুলের সাংগঠনিক মনোবিজ্ঞানের অধ্যাপক শ্যারন ক্লার্কও একই কথা বলেছেন। তার মতেও, ঘরে বসে যারা কাজ করছেন- তাদের কাজের সাফল্য বসের সামনে তুলে ধরা জরুরি।

শ্যারন ক্লার্ক তুলে ধরেন, যে কোন কাজে খাপ খাইয়ে নেয়া এবং উদ্ভাবনী চিন্তা যে প্রতিষ্ঠানের সাফল্যের জন্য (নতুন করোনাভাইরাস বিশ্বে) খুব গুরুত্বপূর্ণ, তাই সৃজনশীল হওয়া এবং নতুন নতুন আইডিয়া আপনার এগিয়ে যাওয়ার পথে অনেক গুরুত্ব রাখে। সুতরাং আপনার আইডিয়াগুলো সামনে রাখার চেষ্টা করুন যাতে আপনি স্বীকৃতি পেতে পারেন।

পদোন্নতি পেতে কয়েকটি টিপস:

১) ইমেইল, ফোন বা ভিডিও কলের মাধ্যমে আপনার বসের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা।

২) আপনি কত কাজ করছেন সেটা তাকে জানান।

৩) আরও দায়িত্ব নিতে চাইলে সেটা তার সাথে কথা বলে চেয়ে নিন।

৪) ভালো ভালো আইডিয়া সামনে রাখুন।

৫) আপনার কাজের বার্ষিক মূল্যায়নটা সাথেই আছে কিনা নিশ্চিত করুন।

৬) আপনার প্রতিষ্ঠান বিদ্যমান এইচআর নীতি অনুসরণ করে কিনা, সেটা নিশ্চিত হন।

কিউএনবি/রেশমা/১৩ই অক্টোবর, ২০২০ ইং/সকাল ১১:৪৬

↓↓↓ফেসবুক শেয়ার করুন