২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৬:৫০

মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে দেশের আইন অঙ্গনে শূন্যতা তৈরি হলো

 

ডেস্ক নিউজ : রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। মন্ত্রী আজ রবিবার এক শোকাবার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। আইনমন্ত্রীর শোকাবার্তায় বলা হয়, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে তিনি প্রায় ৪০ বছর যাবৎ চেনেন ও জানেন। তাঁরা বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলাসহ অনেক মামলা একসঙ্গে পরিচালনা করেছেন। তাই মরহুমের সঙ্গে তাঁর অনেক স্মৃতি রয়েছে। মরহুম মাহবুবে আলম নিজ কর্মগুণেই আইনমন্ত্রী আনিসুল হক-এর কাছে ও দেশের মানুষের কাছে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে দেশের আইন অঙ্গনে এক বিশাল শূন্যতা তৈরি হলো।

মাহবুবে আলম রবিবার সন্ধ্যা ৭টা ২৫ মিনিটে তিনি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন(ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহে রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। তিনি স্ত্রী বিনতা মাহবুব, একছেলে সুমন মাহবুব ও একমেয়ে শিশির কনাসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তিনি জ্বর ও গলা ব্যাথা নিয়ে গত ৪ সেপ্টেম্বর সিএমএইচ-এ ভর্তি হন। ওইদিনই তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। সেখানে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। এরইমধ্যে গত ২০ সেপ্টেম্বর তিনি করোনামুক্ত হন। সেদিন তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। কিন্তু এরপরই তার স্বাস্থ্যের অবনতি হলে তাকে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট-এ(আইসিইউ) নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। 

অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম ২০০৯ সালের ১৩ জানুয়ারি রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা (অ্যাটর্নি জেনারেল) হিসেবে নিয়োগ পান। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত টানা ১১ বছর ধরে তিনি এ পদে বহাল ছিলেন। পদাধিকার বলে তিনি আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রনকারী সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ছিলেন।মাহবুবে আলম ১৯৪৯ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মৌছামান্দ্রা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৮ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে অনার্স ও ১৯৬৯ সালে লোক প্রশাসনে ডিগ্রি অর্জন করেন। একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭২ সালে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। এরপর ১৯৭৩ সালে আইনজীবী হিসেবে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলে তালিকাভূক্ত হয়ে ঢাকা আইনজীবী সমিতির সদস্য হন। পরবর্তিতে ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে এবং ১৯৮০ সালে আপিল বিভাগে আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন।

তিনি ১৯৭৯ সালে ভারতের নয়াদিল্লির ‘ইনস্টিটিউট অব কনস্টিটিশনাল অ্যান্ড পার্লামেন্টারি ষ্ট্রাডিজ’ থেকে সাংবিধানিক আইন ও সংসদীয় প্রতিষ্ঠান ও পদ্ধতি বিষয়ে ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৯৮ সালে আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী হিসেবে মনোনীত হন তিনি। ১৯৯৮ সালের ১৫ নভেম্বর থেকে ২০০১ সালের ৪ অক্টোবর পর্যন্ত রাষ্ট্রের অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৯৩-৯৪ সালে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরে ২০০৫-২০০৬ সালে সভাপতিও নির্বাচিত হন। তিনি ২০০৪-২০০৭ বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচিত সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

 

 

কিউএনবি/আয়শা/২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং/রাত ৮:৫৮

↓↓↓ফেসবুক শেয়ার করুন