১২ই আগস্ট, ২০২০ ইং | ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | রাত ১২:৩২

শার্শায় মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ৮ম শ্রেনীর ছাত্রিকে শ্লীলতা হানীর অভিযোগ; শিক্ষক বরখাস্থ

 

শার্শা(যশোর)সংবাদদাতা : যশোরের শার্শায় এক মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ৮ম শ্রেনীর একছাত্রির বিরুদ্ধে শ্লীলতা হানীর অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, গত বৃহস্পতিবার সকালে শার্শার গোপালপুর ইছামার দাখিল মাদ্রাসায়। এ ঘটনায় ছাত্রিটি নিজেই অভিযুক্ত মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক আব্দুল গফুরের বিরুদ্ধে মাদ্রাসার সুপার বরাবর সু-বিচার চেয়ে লিখিত অভিযোগ করেছে। এ ব্যাপারে গোপালপুর ইছামার দাখিল মাদ্রাসার সুপার আজাহার আলী শুক্রুবার সকাল ১০ টায় মাদ্রাসার শিক্ষকদের নিয়ে জরুরী মিটিং করেন। মিটিং এ ছাত্রীর লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত শিক্ষক আব্দুল গফুরকে সাময়িক ভাবে মাদ্রাসা থেকে বরখাস্থ করেছে কতৃপক্ষ। এ ছাড়া শোকজ করা হয়েছে আগামী তিন কার্য দিবসের মধ্যে তার বিরুদ্ধে অভিযোগের জবাব দেওয়ার জন্য।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শ্লীলতা হানীর শিকার ছাত্রি বলেন, জেডিসি পরিক্ষার খবর জানতে বৃহস্পতিবার সে মাদ্রাসায় গিয়েছিল। এ সময় তাকে পরিক্ষার খবর জানাতে মাদ্রাসার সিড়িঁর ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে তার শরীরে স্পর্ষ করে শ্লীলতা হানীর চেষ্টা করে। ছাত্রিটি জানান সে জোর কওে চিৎকার কওে সিড়িঁর ঘর থেকে বেরিয়ে এসে মাদ্রাসা সুপারের কাছে অভিযোগ করে। ছাত্রির মা ও দিন মুজুর বাব এ ঘটনায় লম্পট শিক্ষক আবদুল গফুরের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবি করেছেন। এলাকাবাসি জানান, অভিযুক্ত আবদুল গফুরের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ দীর্ঘ দিনের। আব্দুল গফুর আওয়ামীলীগের সমর্থক হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কোন বিচার হয়না। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিুযক্ত মাদ্রাসা শিক্ষক আব্দুল গফুরের ব্যবহারিত মোবাইল ০১৬৩৩৬০০৫৮৬ নম্বরে ফোন দিলে সে রিসিভ করেননি। তার বাড়িতে গেলে তার স্ত্রী বলেন তার স্বামী বাড়িতে নেই।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে, মাদ্রাসার সুপার আজাহার আলী জানান, গত বৃহস্পতিবার সরকারী নির্দেশনা মোতাবেক অফিসিয়াল কিছু কাজ ছিল। এ সময় মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক আব্দুল গফুর মাদ্রাসার ৮ম শ্রেনীর এক ছাত্রিকে ডেকে নিয়ে সিড়িঁর ঘরে নিয়ে শ্লীলতা হানীর চেষ্টা করে। এ ব্যাপারে মেয়েটি একটি লিখিত অভিযোগ করেছে। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঘটনাটি জানার পর শুক্রুবার মাদ্রাসার অন্যান্য শিক্ষকদের নিয়ে জরুরী মিটিং করি। মিটিংএ অভিযুক্ত শিক্ষক আব্দুল গফুরকে সাময়িক ভাবে মাদ্রাসা থেকে বরখাস্থ করা হয়েছে। এ ছাড়া তাকে শোকজ করা হয়েছে আগামী তিন কার্য দিবসের মধ্যে তার বিরুদ্ধে অভিযোগের জবাব দেওয়ার জন্য। সুপার আজাহার আলী জানান, এ ব্যাপারে অবগত করার জন্য শুক্রুবারের জরুরী মিটিং এর রেজুলেশন করে শার্শা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও যশোর জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে অবগত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে জানার জন্য, শার্শা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হাসান হাফিজুর রহমান চৌধুরী কাছে ০১৭১১৯৭৮৭৫৪ নম্বরে ফোন করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

 

 

কিউএনবি/আয়শা/১৭ই জুলাই, ২০২০ ইং/বিকাল ৩:৩৩

↓↓↓ফেসবুক শেয়ার করুন