৮ই আগস্ট, ২০২০ ইং | ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১২:৩৫

পুনরায় আলোচনার  আশ্বাসে মুক্তি পেলেন ডা. জাফরুল্লাহ 

মোঃ আশিকুর রহমান,গবি প্রতিনিধি: গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নৈতিক দাবি ও ছাত্র সংসদের বাজেটের নামে তামাশার প্রতিবাদে অবরুদ্ধ হওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরীর আলোচনার আশ্বাসে মুক্ত করেছে শিক্ষার্থীরা।  মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে বারোটা থেকে  বিশ্ববিদ্যালয়ের  ৪১৭ নম্বর কক্ষে তাকে অবরুদ্ধ  করা হয়। অবশেষে শিক্ষার্থীদের পুনরায় মিটিং এর আশ্বাস দেওয়ার পর বিকাল ৫ টায় তিনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গন ত্যাগ করেন। 

এর আগে প্রায় পৌনে দুই ঘন্টা অবরুদ্ধ থাকার পর ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে আলোচনায় বসতে বাধ্য করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাথীরা। দুপুর সোয়া দুইটায় এ আলোচনা শুরু হয়। এ সময় শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে গণ বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি (ভিপি) মো. জুয়েল রানা, সাধারণ সম্পাদক (জিএস) মো. নজরুল ইসলাম রলিফ, সাধারণ ছাত্র পরিষদের রনি আহমেদ, মাহবুবুর রহমান রনি, শেখ খোদারনুর রনি তাদের দাবি উপস্থাপন করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান সমস্যার সমাধান না হওয়ার জন্য তারা ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে দায়ী করেন। বক্তব্যে ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক মো.  নজরুল ইসলাম রলিফ বলেন,কি  ‘আপনাকে দেশের মানুষ অনেক সম্মান করে, আপনি দয়া করে হিটলারের মতো আচরণ করবেন না। হিটলারকে সারা পৃথিবীর মানুষ ঘৃণা করে। এমন সময় যেন তৈরি না হয় যেন আপনাকেও আমাদের অসম্মান করতে হয়। তাই আপনি আজ এখানেই আমাদের সমস্যার সমাধান করে যাবেন।’

শিক্ষার্থীদের দাবি উপস্থাপন শেষে বক্তব্য রাখেন ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বক্তব্যে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ডা: লায়লা পারভীন বানুকে বৈধ বলে ঘোষণা করেন। এতে উপস্থিত শিক্ষার্থীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এ সময় ডা: জাফরুল্লাহ বক্তব্য সম্পন্ন না করে চলে যেতে চাইলে শিক্ষার্থীরা পুনরায় তাকে অবরুদ্ধ করে। এছাড়া তিনি ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের অনুমোদন, ছাত্র সংসদের মেয়াদ বৃদ্ধি ও বাজেট সংক্রান্ত বিষয়ে কোনো সমাধান দিতে পারেননি। সামগ্রিক বিষয়ে সমাধান না হওয়ায় শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে আগামী ১৬ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার পুনরায় আলোচনায় বসতে সম্মত হন ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী

 

 

কিউএনবি/আয়শা/১৪ ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং /রাত ৮:৩৭

↓↓↓ফেসবুক শেয়ার করুন