৮ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | রাত ১:০১

নূর হোসেনকে নিয়ে মন্তব্য ‘স্লিপ অব টাং’, ক্ষমা চাইলেন রাঙ্গা

 

ডেস্কনিউজঃ আজ মঙ্গলবার দুপুরে মুঠোফোনে রাঙ্গা  বলেন, ‘গণতন্ত্র দিবসের আলোচনায় আমি নূর হোসেনকে ইয়াবাখোর ও ফেনসিডিলখোর বলেছিলাম। এটা আসলে আমার স্লিপ অব টাং। ওই সময় ইয়াবা ছিল না, ফেনসিডিলও ছিল না। শব্দ দুটি আমার বলা ঠিক হয়নি। এ দুটি শব্দ আমি প্রত্যাহার করে নিচ্ছি। অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য আমি দুঃখ প্রকাশ করছি, ক্ষমা চাইছি।’

জাতীয় পার্টির মহাসচিব আরো বলেন, ‘আজ দুপুরে বনানীর জাতীয় পার্টির কার্যালয়ে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করে আনুষ্ঠানিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করব। সংবাদ সম্মেলনের পর এ বিষয়ে আর কোনো কথা বলব না।’

পরে সংবাদ সম্মেলনে যা বললেন রাঙ্গা

সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, ‘গত ১০ নভেম্বর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানীর কার্যালয়ের মিলনায়তনে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ঘরোয়াভাবে আয়োজিত গণতন্ত্র দিবসের আলোচনা সভায় আমার কিছু বক্তব্য নিয়ে কোনো কোনো মহল এবং বিশেষ করে নূর হোসেনের পরিবারের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। এ জন্য অনুতপ্ত, দুঃখ প্রকাশ করছি।’

মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘প্রতিবছর নূর হোসেনের মৃত্যুবার্ষিকীর দিন কয়েকটি সংগঠনের আলোচনা, বক্তব্য ও বিবৃতিতে জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে হেয়প্রতিপন্ন করা হয়। এমনকি তাঁকে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালও করা হয়। এর ফলে জাতীয় পার্টির কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। সেই পরিপ্রেক্ষিতে কর্মীদের উত্তেজনার মধ্যে বক্তব্য প্রদানকালে অনিচ্ছাকৃতভাবে আমার মুখ থেকে নূর হোসেন সম্পর্কে কিছু অযাচিত কথা বেরিয়ে গেছে, যা নূর হোসেনের পরিবারের সদস্যদের মনে আঘাত করেছে। এর জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত ও অনুতপ্ত।’

‘নূর হোসেনের পরিবারের প্রতি আমাদের প্রয়াত চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু এরশাদও সমব্যথী ছিলেন। অতএব, অসতর্কভাবে বলে ফেলা আমার বক্তব্যে যে আঘাত লেগেছে, তার জন্য আমি নূর হোসেনের মায়ের কাছে আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। একই সঙ্গে আমার যে বক্তব্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে, সেসব বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিচ্ছি। আশা করি, এই বিষয়ে আর কোনো ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ থাকবে না।’

সামরিক শাসক এইচ এম এরশাদ ক্ষমতায় থাকাকালে ১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর বিরোধী দলগুলোর হরতাল চলাকালে পুলিশের গুলিতে শহীদ হন পরিবহন শ্রমিক নূর হোসেন। তখন তাঁর বুকে-পিঠে লেখা ছিল ‘স্বৈরাচার নিপাত যাক—গণতন্ত্র মুক্তি পাক’। নূর হোসেন তখন থেকেই সারা দেশে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের ‘পোস্টার’ হয়ে ওঠেন। রাজধানীর গুলিস্তানের যে স্থানটিতে তিনি নিহত হন, সেটি ‘শহীদ নূর হোসেন চত্বর’ নামেই পরিচিত।

প্রতিবছর ১০ নভেম্বর আওয়ামী লীগ, বিএনপি, সিপিবিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল শহীদ নূর হোসেনের প্রতি এখানেই ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে দিবসটি স্মরণ করে। অনেকে আলোচনা সভারও আয়োজন করে।

যদিও এইচ এম এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি নূর হোসেনকে হত্যার দিনটিকে ‘গণতন্ত্র দিবস’ হিসেবে পালন করে থাকে। এবার সেই দিনটিতে এক আলোচনা সভায় মসিউর রহমান রাঙ্গা শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে এই বিতর্কিত মন্তব্য করেন।

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে ক্ষমতাচ্যুত করতে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ‘মাদকাসক্ত’ নূর হোসেনকে পেছন থেকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেন রাঙ্গা। তিনি বলেন, ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ কাকে হত্যা করলেন। নূর হোসেনকে? নূর হোসেন কে? একটা অ্যাডিকটেড ছেলে। একটা ইয়াবাখোর, ফেনসিডিলখোর।’

এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিপুল সমালোচনা শুরু হয়। গতকাল সোমবার রাঙ্গাকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন শহীদ নূর হোসেনের মা মরিয়ম বিবিও। রাঙ্গা বক্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন সেই সময়ের ছাত্রনেতারাও। যদিও কালের পরিক্রমায় নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম দল আওয়ামী লীগ এখন জাতীয় পার্টির মিত্র। দুটি দলই মহাজোটের শরিক।

গত দশম জাতীয় সংসদে সামরিক শাসক এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে মন্ত্রিসভায়ও ছিল, পাশাপাশি বিরোধী দলের দায়িত্ব পালন করেছে। এবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর জাতীয় পার্টি আর সরকারে স্থান পায়নি, তাদের বিরোধী দলেই বসতে হয়েছে। সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতার দায়িত্ব পালন করছেন মসিউর রহমান রাঙ্গা।

 

বিপুল/১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং/সন্ধ্যা ৭:৪৪

↓↓↓ফেসবুক শেয়ার করুন