২১শে জুলাই, ২০১৯ ইং | ৬ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | রাত ২:৩৪

চার্জ ছাড়া অনলাইন শপিং হবে ডেলিগ্রামে

 

ডেস্ক নিউজ : অনলাইনে পণ্য অর্ডার করে ডেলিভারি চার্জ গুণতে হয় অনেক টাকা। আবার টাকা দিলেও দেখা যায় সময় মিলে না অর্ডার বুঝে নেয়ার ক্ষেত্রে।এবার এসব ঝামেলা ছাড়াই করা যাবে অনলাইনে শপিং।আর এই ব্যবস্থা নিয়ে দেশে চালু হয়েছে অনলাইন শপিং সাইট ডেলিগ্রাম। চার্জ না দিয়ে শুধুমাত্র আপনার গলির দোকান থেকে অনলাইনে অর্ডার করে পণ্যটি বুঝে নিতে পারবেন।

এছাড়া ডেলিগ্রাম ১৫ হাজার পণ্যের তালিকাসহ প্রিন্টেড ক্যাটালগও দিয়েছে দোকানগুলোতে চাইলে সেখানেও অর্ডার করা যাবে।বাংলাদেশি তরুণ উদ্যোক্তা ওয়ায়েজ রহিম দেশে ‘আমাজন’ আদলে এই ডেইলিগ্রাম শুরু করেছেন।ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি নিয়ে ২০১৬ সালে দেশে ফেরেন ওয়াইজ রহিম।এরপর ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ডেলিগ্রাম টেকনোলজিস লিমিটেড।পরে ২০১৮ সালে কুমিল্লায় ৪০টি দোকান দিয়ে শুরু হয় তাদের পথচলা। পরে জানুয়ারিতে ঢাকায় আরও ৬০টি দোকান দিয়ে দ্বিতীয় ধাপের পাইলটিং করে তারা।

আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে দশটি প্রধান শহর এবং ঢাকায় এক হাজার দোকানকে নিজেদের নেটওয়ার্কের আওতায় নিয়ে আসতে চাইছে ডেলিগ্রাম। বর্তমানে তাদের ১৫০টির উপরে দোকান রয়েছে। যে সব মুদি দোকান ডেলিগ্রামের সঙ্গে কাজ করছে তারা নিজেদের পণ্য বিক্রি করার পাশাপাশি ডেলিগ্রামের কাছ থেকে কমিশন হিসেবেও আয় করছেন।

ডেলিগ্রাম কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এতোদিন কেবল ওয়েব প্ল্যাটফর্ম নিয়ে কাজ করেছেন তারা। আর তাতে করে দিনে গড়ে তিন থেকে চারশ অর্ডার এই পদ্ধতিতে ডেলিভারি করছেন তারা।তবে ধীরে ধীরে তাদের অর্ডার বাড়ছে।একইসঙ্গে দেশের ছোট বড় মিলিয়ে দুইশ ব্র্যান্ডের সঙ্গেও চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তারা।পণ্য কেনার পরেও সে বিষয়ে কোনো রকম আপত্তি থাকলে গ্রাহকদেরকে পণ্যটি বদলে দেওয়ার সুবিধাও রেখেছে ডেলিগ্রাম।

তাদের পদ্ধতি অনুসারে পাড়া-মহল্লার মুদি দোকানদার ডেলিগ্রামের এজেন্ট হিসেবে কাজ করবে। এক্ষেত্রে যাদের ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা নেই বা অনলাইন শপিংয়ে আগ্রহ থাকলেও অর্ডার করার ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাসী নন, তারা ওই দোকান থেকে ডেলিগ্রামে পণ্যের অর্ডার করতে পারবেন। তারা দিনে ২০ থেকে ২৫ হাজার পণ্যের ডেলিভারি দেওয়ার জন্যে প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

তবে বর্তমানে তাদের ৫০০ এর উপরে অর্ডার পাচ্ছেন। এ পর্যন্ত ডেলিগ্রামে প্রায় ২৫ লাখ ডলার বিনিয়োগ করা হয়েছে। পরের ধাপে আরো এক কোটি ডলার বিনিয়োগ নেওয়ার জন্যে কাজ শুরু করেছেন বলেও জানান কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অইজ রহিম।

কোম্পানিটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অইজ রহিম একুশে টেলিভিশনকে বলেন, আমরা মানুষের কেনা কাটাকে সহজ করতেই এই ব্যবস্থা করেছি। গুণগত সেবা দিয়ে গ্রাহকদেরকে পরিপূর্ণ মাত্রায় সন্তুষ্টি দেওয়াই আমাদের লক্ষ্য। আর এ জন্যে পণ্য সরবরাহ পদ্ধতিতে বড় রকমের পরিবর্তন এনেছি আমরা।

কিউএনবি/রেশমা/১১ই জুলাই, ২০১৯ ইং/সন্ধ্যা ৬:২৩