২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৬:৩৩

মির্জাপুরে উত্ত্যক্তের অভিযোগ করায় সংখ্যালঘু পরিবারের উপর সন্ত্রাসী হামলা

 

শামসুল ইসলাম সহিদ, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে উত্ত্যক্তের অভিযোগ করায় সজিব নামের এক সন্ত্রাসী সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যদের পিটিয়ে আহত করেছে। শনিবার বিকেলে উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের থলপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী জানান, থলপাড়া গ্রামের অষ্টম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে গতকাল একই গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে বখাটে সন্ত্রাসী সজিব মিয়া মাঝে মধ্যেই উত্ত্যক্ত করতেন। শনিবার সকালে স্কুলে যাওয়ার পথে ওই ছাত্রীকে তাদের বাড়ির পাশের রাস্তাতেই সজিব জোরপূর্বক তাঁর মোটরসাইকেলে উঠাতে চান। এতে ভয় পেয়ে ছাত্রীটি দৌড়ে বাড়িতে গিয়ে উঠে। পরে পরিবারের সদস্যরা একই গ্রামের মাতাব্বর বারেক মিয়াকে বিষয়টি জানান। তিনি ঘটনাটি সজিবের পরিবারকে জানান। এদিকে উত্ত্যক্তের বিষয়ে পরিবারের সদস্যদের নালিশ করায় সজিব মিয়া ক্ষিপ্ত হন। তিনি ধারালো অস্ত্র নিয়ে শনিবার বিকেলে ছাত্রীটির বাড়ি যান। সেখানে তিনি প্রথমে মেয়েটির বাবাকে মারতে থাকেন।

তা দেখে মেয়েটির চাচাতো দাদা (বাবার চাচা) এগিয়ে আসলে সজিব তাকে বেধড়ক পেটাতে থাকেন। ভয়ে তিনি দৌড়ে ঘরে ঢুকলে দরজা ভেঙে ঘর থেকে বের করে সজিব তাঁর গায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেন। এতে তার ঘারের দুই পাশে কেটে যায়। তিনি মেয়েটির দাদিকেও পিটিয়ে আহত করেন। এছাড়া বাবাকে মারতে দেখে মেয়েটির ফুপু এগিয়ে গেলে ক্ষিপ্ত হয়ে তাঁকে সজিব মারেন। তাছাড়া তাঁর কোলে থাকা তিন মাসের শিশুকে কোল থেকে কেড়ে নেন। অনেক আকুতি করলে বাচ্চাটিকে তিনি ফিরিয়ে দেন।মেয়েটির বাবা জানান, তাঁকে বেধড়ক পেটানো হয়। প্রাণ বাঁচাতে তিনি ঝিনাই নদ সাঁতরিয়ে অপর পাড়ে যান। পরে বিষয়টি এলাকাবাসী জানতে পারেন। সজিবের ভয়ে তাঁরা নৌকাযোগে নদ পার হয়ে প্রাণ বাঁচাতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাড়িছাড়া হয়েছেন। মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মিজানুল হক জানান, বিষয়টি খুবই গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। 

 

 

 

কিউএনবি/আয়শা/৭ই জুলাই, ২০১৯ ইং/দুপুর ১:২৯