২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৬:৩৪

সরিষাবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভনে টানা ধর্ষণে সাতমাসের অন্তঃস্বত্ত্বা তরুণী

 

জাকারিয়া জাহাঙ্গীর সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি : জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভনে তরুনীকে প্রায় এক বছর ধরে টানা ধর্ষণ করেছে মাসুদ রানা ওরফে নাপিত মাসুদ নামে এক বখাটে। বর্তমানে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে থানায় মামলা করেছেন ধর্ষিতা। উপজেলায় মহাদান ইউনিয়নের সেঙ্গুয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য মঙ্গলবার হাসপাতালে প্রেরণ করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত বখাটের গ্রেফতার দাবি করেছে ভিকটিমের পরিবার।

পারিবারিক সূত্র জানায়, মহাদান ইউনিয়নের বড়সড়া গ্রামের হায়দার আলীর ছেলে দুই সন্তানের জনক মাসুদ রানা ওরফে নাপিত মাসুদ (৩২) পার্শ্ববর্তী সেঙ্গুয়া গ্রামের ওই তরুনীকে (২৮) নিয়মিত উত্যক্ত করতো। তরুণীর পরিবার তাকে পাশের বাড়ির সবুজ মিয়া নামে এক যুবকের সাথে বিয়ে দেন। বিয়ের পরও নাপিত মাসুদ ওই তরুনীকে শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে কুৎসা রটায়। এতে তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ হলে বাবার বাড়িতে ফিরে আসেন তরুণী। এ সুযোগে নাপিত মাসুদ তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং টানা
প্রায় এক বছর ধরে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে।

এদিকে টানা ধর্ষণে তরুণীটি গর্ভবতী হয়ে পড়লে বিয়ের জন্য চাপ দেন মাসুদকে। সাত মাসের অন্তঃস্বত্ত্বা অবস্থায় ২৯ জুন তিনি মাসুদের বাড়িতে গিয়ে ঘটনা জানালে মাসুদ ও তার বাবা-মা তাকে মারধর করে তাড়িয়ে দেয়। তরুণীর মা অভিযোগ করেন, মাসুদ তার মেয়েকে স্বামীর ঘর করতে দেয়নি। বিয়ের কথা বলে মেয়ের সর্বনাশ করে এখন অস্বীকার করছে। বেশি বাড়াবাড়ি করলে গর্ভের সন্তানসহ মেয়েকে গুম-খুন করে ফেলার
হুমকি দিচ্ছে। এ ব্যাপারে সরিষাবাড়ী থানার ওসি মাজেদুর রহমান বলেন, ধর্ষণের শিকার তরুণী সোমবার রাতে থানায় বখাটের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য তাকে জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। 

 

 

কিউএনবি/আয়শা/২রা জুলাই, ২০১৯ ইং/ রাত ৮:০৮