২১শে মার্চ, ২০১৯ ইং | ৭ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৩৯

কুড়িগ্রামে আনসারের গুলিতে পুলিশ সদস্য আহত

 

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহন সম্পন্ন হয়েছে। ভোট কারচুপি ও ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের অভিযোগে ১৩টি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহন পুরোপুরি স্তগিত করেন রিটার্নিং অফিসার। এছড়াও ভোট কেন্দ্রে হামলার চেষ্টায় কুড়িগ্রাম সদরের কিশলয় আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পুলিশ দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে। অপরদিকে ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ভাওয়ালকুরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে হাঙামা ঠেকাতে প্রস্তৃতি নিতে গিয়ে আনসার সদস্য মাইদুল (৩৫) এর বন্দুক থেকে গুলি বের হলে পুলিশ সদস্য মোন্নাফ (৪৩) পায়ে গুলিবিদ্ধ হন। তাকে ভুরুঙ্গামারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কিশলয় আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার নিশিকান্ত রায় জানান, একদল দৃর্বৃত্ত ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টা করলে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। অপরদিকে ভাওয়ালকুরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার হারুন অর রশীদ জানান, আনসারের গুলিতে আহত পুলিশ সদস্য মোন্নাফের বাড়ী রংপুরে। আনসার সদস্য মাইদুলের বাড়ী ভুরুঙ্গামারী এলাকায়। তাৎক্ষণিকভাবে আহত পুলিশ সদস্যকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।কুড়িগ্রামে ৫টি উপজেলার ১৩টি স্থগিত কেন্দ্রগুলো হলো, সদর উপজেলাা মালভাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিবরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ ও টগরাইহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

উলিপুর উপজেলার হোকোডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মদিনাতুল উলুম সিনিয়র মাদ্রাসা, কিসামত মালতিমারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হাত্রিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। নাগেশ^রীতে কুটি নাওডাঙ্গা ফোরকানিয়া এবতেদায়ী মাদ্রাসা ও পূর্ব পয়রাডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। চিলমারীতে খালেদা শওকত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বৈলমন দিয়ারখাতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং রৌমারীতে ধনার চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।জেলার ফুলবাড়ী উপজেলায় বিলুপ্ত ছিটমহল দাশিয়ারছড়াকে ইউনিয়ন ঘোষণার দাবিতে হাইকোর্টে রীটের প্রেক্ষিতে স্তগিতাদেশ প্রদান করায় এই উপজেলায় নির্বাচন স্তগিদ করা হয়। এই নিয়ে ফুলবাড়িবাসীর মাঝে এক ধরনের মিশ্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে।

জেলার ৮টি উপজেলায় ৩টি পৌরসভাসহ ৬৭টি ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ১৪ লাখ ২০ হাজার ৬০৭ জন। এরমধ্যে নারী ভোটার ৭ লাখ ২১হাজার ৭৫৩জন এবং পুরুষ ভোটার ৬লাখ ৯৮হাজার ৮৫৪জন। মোট ৬৬১টি কেন্দ্রের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ৩৭৮টি কেন্দ্র চিহ্নিত করেছে আইনশৃংখলা বাহিনী। মোট ভোট কক্ষ রয়েছে ৪ হাজার ২০টি। নির্বাচনে ২৪ জন চেয়ারম্যান, ৩৬জন ভাইস চেয়ারম্যান এবং ২৭জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মোট প্রার্থীর সংখ্যা ৮৭জন।শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহনের জন্য জেলায় বিজিবি ১৮ প্লাটুন, আনসার ও ভিডিপি ৮ হাজার ৫৫৬জন এবং পুলিশ-র‌্যাবসহ অন্যান্য আইন-শৃংখলা বাহিনী মোট ১১ হাজার ২১৩জন। এছাড়াও ২৭জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে আইন শৃংখলা বাহিনী নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন। রিটার্ণিং কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

 

 

কিউএনবি/আয়শা/১০ই মার্চ, ২০১৯ ইং /রাত ৮:৩৭