২১শে জানুয়ারি, ২০১৯ ইং | ৮ই মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৪:০১

দর্শনার্থী আছে, ক্রেতা নেই

 

ডেস্ক নিউজ  : জমে ওঠেনি বাণিজ্য মেলা। গতকাল (শুক্রবার) প্রথম সাপ্তাহিক ছুটির দিন হলেও ক্রেতা-দর্শনার্থী উপস্থিতি কম ছিল। আর যারা মেলায় এসেছিলেন তাদের বেশিরভাগই দর্শনার্থী, ঘুরেফিরে দরদাম করে ফিরে গেছেন।

কমসংখ্যক মানুষকে কেনাকাটা করতে দেখা গেছে। তবে আগতদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল দেশীয় ইলেকট্রনিক্স পণ্যের প্যাভিলিয়নগুলো। নতুন পণ্য, দরদাম, অফারের খোঁজ নিতে দেখা গেছে ক্রেতা-দর্শনার্থীরা।

মেলা ঘুরে দেখা গেছে, মেলায় আগত-দর্শনার্থীদের বেশিরভাগই ছিল আশপাশের এলাকার বাসিন্দা। ছুটির দিন হওয়ায় সবাই মেলায় পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসেছেন। লোকসমাগম সন্ধ্যার দিকে কিছুটা বাড়লেও বেশিরভাগকেই ঘুরেফিরে কাটাতে দেখা গেছে। তবে তুলনামূলক বেশি ভিড় ছিল জুয়েলারি, ক্রোকারিজ ও দেশীয় ইলেকট্রনিক্স পণ্যের প্যাভিলিয়নে। নতুন কোনো মডেল-ডিজাইনের টিভি-ফ্রিজ বাজারে এসেছে কিনা, দাম কত, ছাড় ও কী গিফট দেয়া হচ্ছে- এসবের খোঁজখবর নিতে দেখা গেছে। তরুণী-মহিলারা বিদেশি প্যাভিলিয়নগুলোতে কসমেটিক্স ও ক্রোকারিজ আইটেমের দরদাম করতে দেখা যায়।

মিরপুর-১ থেকে মেলায় আসা বেসরকারি চাকুরে আমেনা রহমান বলেন, শুরুর দিকে ভিড় কম থাকে, তাই কোথায় কী পাওয়া যাচ্ছে তা দেখতে এসেছি। এখন কিছুই কিনব না। কারণ মেলার শেষের দিকে পণ্যের দাম কম থাকে। আবার গিফট আইটেমও বেশি থাকে।

দেশীয় ইলেকট্রনিক্স প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দৃষ্টিনন্দন প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করেছে যমুনা ইলেকট্রনিক্স। সন্ধ্যায় প্যাভিলিয়নের সামনে তরুণ-তরুণীদের অনেককেই সেলফি তুলতে দেখা যায়। দম্পতিরা প্যাভিলিয়নে ঢুকে নতুন মডেলের পণ্যের খোঁজ নেন। অনেকে তাৎক্ষণিক অর্ডার দিয়েছেন।

যমুনা ইলেকট্রনিক্স প্যাভিলিয়নের ইনচার্জ সত্যজিৎ রায় বলেন, প্রথম শুক্রবার হিসেবে মেলায় লোকসমাগম ভালো ছিল। সকালে কম থাকলে বিকালের পর ভিড় বাড়তে থাকে। ক্রেতাদের সুবিধার্থে এবারও যমুনা ইলেকট্রনিক্স বাণিজ্য মেলায় বিশেষ ছাড় দিচ্ছে।

সব ধরনের ইলেকট্রনিক্স পণ্যে ৫-২২ শতাংশ ডিসকাউন্ট থাকছে। এছাড়া প্রতি ১০ হাজার টাকার কেনাকাটায় ১ হাজার টাকার ক্যাশ ভাউচার দেয়া হচ্ছে। এ ভাউচার ব্যবহার করে পরবর্তীতে যমুনা ইলেকট্রনিক্সের পণ্য কিনলে ছাড় পাবেন ক্রেতারা। যমুনা ব্রান্ডের মোটরসাইকেল কিনলে ক্রেতাদের রেজিস্ট্রেশন করে দেয়া হবে।

তিনি বলেন, দেশীয় ইলেকট্রনিক্স ব্রান্ডগুলোর মধ্যে একমাত্র যমুনাই আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে আধুনিক ডিজাইনের সামগ্রী উৎপাদন করে। এ কারণে যমুনা প্রতিটি পণ্য ক্রেতাদের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এ আস্থা ধরে রাখতে নিরলসভাবে দক্ষ ডিজাইনার ও প্রকৌশলীরা কাজ করছেন। এবারও মেলায় ক্রেতাদের জন্য বাহারি ডিজাইন ও রঙের ফ্রিজ আনা হয়েছে।

বাংলাদেশের অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান এত রংয়ের ফ্রিজ তৈরি করে না। অবশ্য মেলায় লোকসমাগমে সন্তুষ্ট নয় গেট ইজারাদার প্রতিষ্ঠান। মেলার গেট ইজারাদার প্রতিষ্ঠান মীর ব্রাদার্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর শহিদুল আলম যুগান্তরকে বলেন, ‘মানুষজন এখনও মেলায় আসা শুরু করেনি। ১ জানুয়ারি মেলা শুরু হলে আজ (শুক্রবার) দ্বিতীয় শুক্রবার থাকত। মাত্র ১২ হাজার লোক মেলায় প্রবেশ করেছে।’

 

 

কিউএনবি/আয়শা/১২ই জানুয়ারি, ২০১৯ ইং/সন্ধ্যা ৭:২৮