১৬ই জুন, ২০১৯ ইং | ২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:১০

উলিপুরে পরকীয়ার জেরে এক সন্তানের জননীকে হত্যা স্বামী আটক

 

শিমুল দেব, উলিপুর, কুড়িগ্রাম, প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের উলিপুরে পরকীয়ার জের ধরে এক সন্তানের জননীকে হত্যা করেছে পাষন্ড স্বামী। হত্যার পর ঘটনা ধামাচাপা দিতে তড়িঘড়ি করে সৎকারের চেষ্টা করার সময় পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ওই গৃহবধুর স্বামীকে আটক করেন। ঘটনাটি ঘটেছে, মঙ্গলবার (০৮ জানুয়ারী) পৌরসভার মাঝিপাড়া গ্রামে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধুর পিতা বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলার এজাহার ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বজরা ইউনিয়নের কালপানি বজরা গ্রামের শ্যাম চন্দ্র দাসের পুত্র বিশ্বাস চন্দ্র দাস (২৮) এর সাথে উলিপুর পৌরসভার মাঝিপাড়া গ্রামের উপেন চন্দ্র দাসের মেয়ে দিপালী রানী দাস (২৫) এর প্রায় ১০ বছর পূর্বে বিবাহ হয়। এরপর তাদের সংসারে বিথি রানী (০৮) নামে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। বিশ্বাস পৌর শহরে জুয়েলারী ব্যবসার কারনে শ্বশুর বাড়ির কাছেই ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

এ সুবাদে ওই এলাকার প্রতিবেশি (নিপা রানী দাস) (১৮) এক তরুনীর সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। এ নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকতো। নিহত গৃহবধুর স্বজনার জানায়, প্রায় ১ মাস পূর্বে স্ত্রী-সন্তানকে রেখে বিশ্বাস চন্দ্র ওই তরুনীকে নিয়ে ঢাকায় পালিয়ে যায়। ৮ দিন পর পরিবারের লোকজন তাদেরকে ফিরিয়ে এনে বিষয়টি পারিবারিক ভাবে আপোষ মিমাংসা করে দেয়। এরপরও বিশ্বাস ওই তরুনীর সাথে পরকীয়ায় লিপ্ত থাকে। ঘটনারদিন মঙ্গলবার (০৮ জানুয়ারী) বিকালে বিশ্বাস চন্দ্র ভাড়াকৃত বাসায় তার স্ত্রী দিপালী রানীকে হত্যা করে।

এরপর সন্ধ্যায় দিপালী বিদ্যুৎস্পর্শে গুরুত্বর অসুস্থ্য হয়েছে বলে প্রচার করে উলিপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করলে ধুর্ত বিশ্বাস চন্দ্র প্রকৃত ঘটনা আড়াল করার জন্য তড়িঘড়ি করে লাশ সৎকারের জন্য শ্বশানে নিয়ে দাহ (পোড়ানো) করার প্রস্তুতি নেয়। এ সময় নিহত মেয়ের লাশের সৎকার করার জন্য জামাইয়ের তড়িঘড়ি দেখে শ্বশুর উপেন চন্দ্রের সন্দেহ হলে মোবাইল ফোনে থানা পুলিশকে খবর দেয়। ওই দিন রাতে পুলিশ গিয়ে শ্বশান থেকে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে ও স্বামী বিশ্বাস চন্দ্রকে আটক করেন। পরে রাতেই উপেন চন্দ্র দাস বাদী হয়ে জামাইয়ের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। উলিপুর থানার মামলা নং-০৭, তারিখ-০৮ জানুয়ারী।

উলিপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. রফিকুল ইসলাম সরদার জানান, মৃত অবস্থায় দিপালী রানীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।
উলিপুর থানার ওসি তদন্ত আনোয়ারুল ইসলাম জানান, গৃহবধুর লাশ ময়না তদন্তের জন্য বুধবার (০৯ জানুয়ারী) মর্গে প্রেরণ করে আটককৃত বিশ্বাস চন্দ্রকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

কিউএনবি/অনিমা/৯ই জানুয়ারি, ২০১৯ ইং/বিকাল ৩:৪৭

Please follow and like us:
0
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial