১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:৫৭

রাজধানীজুড়ে আগাম নির্বাচনী প্রচারণা

 

ডেস্ক নিউজঃ  পোস্টারে নৌকা প্রতীকের সঙ্গে মনোনয়নপ্রত্যাশী গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চুর ছবি। ঢাকা-১৫ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে এলাকাবাসী তাঁকে দেখতে চায়—এমন আহ্বানের পোস্টার সাঁটানো হয়েছে শেওড়াপাড়ার পীরেরবাগ সড়কের বিভিন্ন ভবনের দেয়ালে। ১৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কাফরুল, ঢাকা মহানগর উত্তরের পক্ষ থেকে এই প্রচারপত্র সাঁটানো হয়েছে।একই আসনের প্রার্থী হতে আগ্রহী জাতীয় পার্টির নেতা মোহাম্মদ সামসুল হকের ছবি, লাঙল প্রতীক ও এরশাদের হাসিমাখা ছবি নিয়ে একের পর এক পোস্টার সাঁটানো হয়েছে একই এলাকায়। চার রঙের পোস্টারটি লাগানো হয়েছে ঢাকা-১৫ আসনের জাতীয় পার্টিসহ তার সব অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের পক্ষে।

দেশ, দেশের মানুষ ও সম্পদ বাঁচাতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) মনোনীত ডা. আহম্মদ সাজেদুল হককে (রুবেল) কাস্তে মার্কায় ভোট দিন—এই আহ্বানসংবলিত পোস্টার দেখা গেল শেওড়াপাড়া বাসস্ট্যান্ডের পাশের সড়কের একটি খাম্বায়।পাশেই চোখে পড়ল—কোনো প্রার্থীর ছবি ছাড়া প্রতীক কাস্তের বড় চিহ্ন এঁকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে সাদা ও লাল রঙের পোস্টার। সেটিও সিপিবির।

রাজধানীর শেওড়াপাড়ার ২০০ মিটারের মধ্যেই বহু প্রার্থীর শত শত রঙিন পোস্টার।গতকাল দিনভর মিরপুর-১২ থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত হেঁটে দেখা গেছে, কোনো পোস্টারে ধুলো জমে আস্তরণ পড়েছে। কোনোটি ছিঁড়ে গেছে। এলাকাবাসী জানায়, তিন মাস আগে থেকে পোস্টারের বড় অংশ সাঁটানো হয়েছে। ছিঁড়ে যাওয়া বা নষ্ট হওয়ার পর নতুন করে রাতের অন্ধকারে আবার লাগানো হয়েছে। এভাবে রাজধানীর বেশির ভাগ এলাকায় যতদূর চোখ গেছে; দেখা গেছে রঙিন পোস্টার, ব্যানার। কোথাও চোখে পড়েছে তোরণ।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রধান প্রধান দলের প্রার্থীরা মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়ার পর এখন বাছাই চলছে। এখনো প্রতীক বরাদ্দ হয়নি। নির্বাচন কমিশন ঘোষিত কর্ম পরিকল্পনা অনুসারে আনুষ্ঠানিক প্রচারণার সময়ও আসেনি। অথচ তার আগেই আগাম নির্বাচনী প্রচারণায় সয়লাব রাজধানী ঢাকা। কয়েক মাস আগে থেকে সাঁটানো পোস্টার গতকাল মধ্যরাতের মধ্যে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের নিজ খরচে সরানোর নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তবে গতকাল শনিবার রাজধানীর মিরপুর, বনানী, কাকলি, গুলশান, ফার্মগেট, কাকরাইলসহ অন্য এলাকাগুলোতেও পোস্টার সরাতে দেখা যায়নি। বন্দরনগরী চট্টগ্রামসহ দেশের অন্য কোথাও আগাম এসব পোস্টার সরানো হয়নি। নির্বাচন কমিশন বলছে, আইন অনুসারে প্রতীক বরাদ্দের আগে কোনো ধরনের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালানো যাবে না। আগামী ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ করা হবে। তারপরই টানা প্রচার চালাতে পারবেন প্রার্থীরা।

গত ৯ নভেম্বর নির্বাচন কমিশন থেকে বলা হয়েছিল, নির্বাচনী প্রচারণা হিসেবে লাগানো সব ব্যানার, পোস্টার ও তোরণ পরবর্তী সাত দিনের মধ্যে নামিয়ে ফেলতে হবে। এই নির্দেশ না মানলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে পরে সময় আরো বাড়ানো হয়।আওয়ামী লীগ, বিএনপি থেকে এবার মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন প্রায় ১০ হাজার প্রার্থী। তাঁদের মধ্যে মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীদের জন্য প্রচারণা শুরু হবে। আগাম এসব পোস্টার সরানো না হলে ভোটাররা বিভ্রান্ত হতে পারে। কারণ আগাম প্রচারে নামা মনোনয়নপ্রত্যাশীদের বেশির ভাগই মনোনয়ন পাবেন না।

প্রচারণার এসব পোস্টার সড়কের পাশের দেয়ালে, বাড়ির সামনের দেয়ালে, অফিসের দেয়াল কিংবা সড়কের পাশের পিলারে সাঁটানো হয়েছে। মিরপুর-১২ নম্বর থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত প্রধান সড়ক আর আগের মতো নেই। মেট্রো রেলের পিলার বসানো হচ্ছে স্থানে স্থানে। আগারগাঁও থেকে শেওড়াপাড়া পর্যন্ত উঠে গেছে অবকাঠামোর অংশ। প্রকল্পের কাজ চলায় প্রধান সড়ক কোথাও বন্ধ, কোথাও খোলা। প্রধান সড়কের দুই পাশে প্রকল্পের বিভিন্ন কাঠামো, নির্মাণসামগ্রীতে সাঁটানো হয়েছে পোস্টার। প্রধান সড়ক থেকে অলিগলি সর্বত্রই চোখে পড়ে রঙিন পোস্টার।

রাজধানীর সিটিং ও লোকাল বাসগুলোর গায়েও লাগানো হয়েছে নির্বাচনী পোস্টার। মিরপুর হয়ে চলাচলকারী তেঁতুলিয়া পরিবহন, খাজা বাবা পরিবহন ও শিকড় পরিবহনের বাসের পেছনে দেখা গেছে রঙিন পোস্টার।মিরপুর-১ নম্বর গোলচত্বর ঢাকা-১৪ আসনের সম্ভাব্য প্রার্থীদের পোস্টার-ব্যানারে ছেয়ে আছে। মাজহার আনাম, বর্তমান এমপি আসলামুল হক, গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চুর সমর্থনে ব্যানার-পোস্টার। সংসদ সদস্য কামাল আহমেদ মজুমদারের সমর্থনেও পোস্টার টানানো হয়েছে। মনোনয়নপ্রত্যাশী মঈনুল হোসেন খান নিখিলের নামে পোস্টার গতকালও চোখে পড়েছে ইব্রাহীমপুর, শেওড়াপাড়া, ৬০ ফুট সড়ক, মিরপুর-১ নম্বরসহ বিভিন্ন এলাকায়। কালশী, মিরপুর-১১ ও ইসিবি চত্বরে নৌকা প্রতীকের জন্য ভোট চেয়ে তোরণ ও ফেস্টুন লাগানো হয়েছে অনেক আগে। এখলাছ উদ্দিন মোল্লাকে প্রার্থী করে নৌকার জন্য ভোট চেয়ে মিরপুরে যত্রতত্র চোখে পড়েছে পোস্টার।রাজধানীর শাহজাদপুর, নতুনবাজার, নর্দ্দা, কুড়িলসহ আশপাশে ঢাকা-১৭ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে দেখতে চেয়ে আওয়ামী লীগ নেতা এম এ কাদের খানের সমর্থকরাও আগাম প্রচারপত্র ঝুলিয়েছে বহু আগেই।

 

 কিউএনবি/অদ্রি আহমেদ/১৮.১১.২০১৮/ সকাল ৯.৫৫