১৯শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ভোর ৫:৪০

দিনাজপুরের জাপাকে রক্ষার স্বার্থে কর্মিবান্ধব রূবেল’কে ১ আসনে মহাজোটের প্রার্থীর করার দাবী

 

এন.আই.মিলন, দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর জেলা জাতীয় পাটি নেতাদের ভাষ্যমতে গত ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনে দলীয় প্রার্থী ঘোসনা করার শুধুমাত্র জাতীয় পাটি’র চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ’কে ভালবেসে অতিকষ্টে তৎকালীন সময়ে বিএনপির বাধার মুখে জীবনবাজি রেখে দলীয় প্রার্থীরা ঢাকা হতে নিজ এলাকায় গিয়ে মনোনয়ন পত্র দাখিল করলেও মহাজোটের কারনে পরে জাতীয় পাটি চেয়ারম্যানের নির্দ্দেশে দিনাজপুরের ৬টি আসনের সকলে প্রার্থীরা একযোগে পত্যাহার করে নেয়।

কিন্তু মহাজোট সরকার গঠন করার পর দিনাজপুরে জাতীয় পাটির কোন উন্নয়ন বা সরকারের সাথে না রাখার করনে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে জাতীয় পাটির নেতা কর্মীরা। মহাজোটে দিনাজপুরে কর্মিবান্ধব দলীয় প্রার্থী না দিলে জাতীয় পাটি ভাঙ্গনের দিকে এগিয়ে যাবে। ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাপা ৩০০ আসনে দলীয় প্রার্থী দেওয়ার ঘোসনা দিলেও পূর্বের ন্যায় মহাজোটের নির্বাচনের গুঞ্জন শুনা জাচ্ছে। দিনাজপুরের ৬টি আসনের মধ্যে যানাগেছে, দিনাজপুর-২ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী ও ডাঃ মানবেন্দ্র রায়, দিনাজপুর-৩ জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম. দিনাজপুর-৪ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ, সাবেক এমপি. সাবেক হুইপ মিজানুর রহমান মানু ও দিনাজপুর জেলা আওয়ামীযুবলীগ সাধারন সম্পাদক এ্যাড. সাইফুল ইসলাম, দিনাজপুর-৫ আসনে গনশিক্ষা মন্ত্রী ও দিনাজপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার সহ ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আ’লীগ ও জাপার মহাজোটের নির্বাচন হওয়ার গুঞ্জন শুনা গেলেও আওয়ামীলীগের হেবিওয়েট প্রার্থী থাকার কারনে জাপার প্রার্থী না দেওয়ার সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে জাপার নেতা কর্মিদের মাঝে চাপা ক্ষভ দেখা যাচ্ছে। দীর্ঘদিনে সরকারের অবহেলা ও পুনরায় জোট গঠনে জাতীয় পাটি ভাঙ্গনের দিকে এগিয়ে যাবে বলে মনে করছেন নেতা কর্মিরা।

১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য এ আসনে বীরগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পাটির সভাপতি হাসান মোহাম্মদ নিজামুদৌলা মতি, সাধারন সম্পাদক শাহিনুর ইসলাম ও বীরগঞ্জ উপজেলা জাতীয় যুব সংহতি সাধারণ সম্পাদক মোঃ মাহাবুব আলম জাপার দলীয় মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে বীরগঞ্জ উপজেলা জাপার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি মোঃ নাজমুল ইসলাম (মিলন) জানায়, গত ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাধারন সম্পাদক শাহিনুর ইসলাম জাপার মনোনয়ন পাওয়ায় একনায়ক তন্ত্র কায়েম করে ক্ষমতা কুক্ষিগত করার চেষ্টায় নিজেকে একক প্রার্থী ঘোসনা করে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন জনকে ইচ্ছামত দলীয় পরিচয় দিয়ে প্রকৃত কর্মিদের বিভক্ত করে নেতা কর্মিদের ক্ষভ সৃষ্টি করে।

এছাড়া তিনি ২০১৭ সালের ২৯ জানুয়ারী বীরগঞ্জ উপজেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলেও অদ্যাবধী উপজেলা কমিটি সহ অংগ ও সহযোগি সংগঠনের কোন কমিটি গঠন করেনি। যা নির্বাচনে ও সংগঠনে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হতে হবে।

এ আসনে আওয়ামীলীগের বর্তমান সংসদ সদস্যর প্রতি গনঅনাস্থা এনে আ’লীগের ২১ জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জাপাকে উজ্জিবিত করা ও ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষ স্বার্থে দিনাজপুর-১ আসনটি শহরের পার্শ্ববর্তী হওয়ায় এবং আওয়ামীলীগ সরকারের সকল সুযোগ বঞ্চিত হতাশা গ্রস্থ জেলা, উপজেলা ও স্থানীয় জাপার নেতা কর্মিরা মনে করছেন।

দলকে ভাঙ্গনের হাত হতে রক্ষা জন্য ও সু সংগঠিত করার স্বার্থে জাতীয় পাটি’র চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এর প্রতি নেতা কর্মিদের আবেদন ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দিনাজপুর জেলা জাপার সাধারন সম্পাদক ও জাতীয় পাটি কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মেদ শফি রুবেল অথবা প্রেসিডিয়াম সদস্য চিত্রনায়ক সোহেল রানাকে মহাজোটের প্রার্থী হিসাবে এই আসনে দিলে জাপার নেতা কর্মিরা উজ্জিবিত হবে, রক্ষ পাবে ভাঙ্গনের হাত থেকে।

 

 

কিউএনবি/আয়শা/১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং /সন্ধ্যা ৬:০৫