ব্রেকিং নিউজ
১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১২:৫১

এবারের নির্বাচনে থাকছে না কোনো বিদেশি পর্যবেক্ষক?

 

ডেস্ক নিউজঃ  প্রতিবারই বাংলাদেশের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করতে বিদেশি পর্যবেক্ষক থাকলেও এবার এখনও কোনো আবেদনই পড়েনি বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।ইসি সুত্রে জানা যায়, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে যে বাংলাদেশের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন তারা পর্যবেক্ষণ করবে না। নির্বাচনের পুনঃতফসিলের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও জানিয়েছে যে, তার দেশের কেউ এবারের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

মার্কিন দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা বলেন, ২৪ ডিসেম্বর থেকে ২ জানুয়ারি পর্যন্ত বড়দিন এবং ইংরেজি নববর্ষ উপলক্ষে ছুটি থাকবে। এ সময় কোনো মার্কিন পর্যবেক্ষক থাকবেন না।তবে, ইউএসএইড এর বাঙালি কর্মকর্তাদের একটি ক্ষুদ্র টিম কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচনের বিষয়গুলো পর্যবেক্ষণ করবেন বলে মার্কিন দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে।একই কারণে, ইউএনডিপির নির্বাচন পর্যবেক্ষণ কার্যক্রমেও কোনো বিদেশি প্রতিনিধি থাকবে না। তবে মাঠ পর্যায়ে সীমিত পর্যবেক্ষণ থাকবে তাদের।

তবে কেন্দ্রীয়ভাবে, নির্বাচনে আচরণবিধি মানা হচ্ছে কিনা তা পর্যবেক্ষণ করা হবে। ইউএনডিপি সূত্রে জানা গেছে, তারা নির্বাচনে সকল দলের জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করা হচ্ছে কিনা এবং নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে কিনা, তা কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটর করবে।জাপানও এবার নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছে না। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বড়দিন থেকে ইংরেজি নববর্ষ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে দীর্ঘ ছুটি থাকে। এই ছুটির মধ্যে কেউই কোনো কাজ করতে চান না।

নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, আমাদের কাছে এখনও বিদেশি পর্যবেক্ষণ নিয়ে কোনো দূতাবাস কোনো আবেদন করেনি। তবে নিয়ম হলো যে দেশের নাগরিক পর্যবেক্ষক হিসাবে আসবে, সে দেশের দূতাবাসের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনে আবেদন করবে। আমরা সেই কাগজপত্র যাচাই বাছাইয়ের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠাবো। আমরা নিজেরাই ভ্যাটিং করি। এরপর সবকিছু ঠিক থাকলে আমরা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ভিসা দেয়ার জন্য অনুরোধ করি।

এদিকে বিদেশি পর্যবেক্ষক না থাকাকে একটা দুরভিসন্ধি হিসেবে দেখছে বিএনপি এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। দলগুলো বলছে বিদেশি পর্যবেক্ষক আসা নিশ্চিত করতে নির্বাচন একমাস পেছানো দরকার।
কিন্তু ঐক্যফ্রন্টের এই দাবিকে অযৌক্তিক মনে করছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবিষয়ে বলেন, বিদেশি পর্যবেক্ষকদের জন্য জাতীয় নির্বাচনের তারিখ পেছাতে হবে, এর চেয়ে হাস্যকর, অবান্তর, অবাস্তব, ভিত্তিহীন ও অযৌক্তিক দাবি আর হতে পারে না।

কিউএনবি/অদ্রি আহমেদ/১৪.১১.২০১৮/সকাল ৯.০০