ব্রেকিং নিউজ
১৭ই জানুয়ারি, ২০১৯ ইং | ৪ঠা মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:৪২

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ’র উদ্দ্যোগে কৃষকদের মাঝে ফলদ চারা বিতরণ

চাইথোয়াই মারমা , খাগড়াছড়ি থেকে: খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ’র উদ্দ্যেগে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে ফলদ চারা/কলম অনুষ্ঠানিক বিতরণ করা হয়েছে।

রোববার সকালে নারানখাইয়াস্থ ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্টি সাংস্কৃতিক ইনষ্টিটিউট প্রাংগনে পার্বত্য জেলা পরিষদ এ আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথি ও উদ্ভোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ির ২৯৮নং আসনে সংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

পাজেপ সদস্য ও কৃষি কমিটির আহবায়ক এড. আশুতোষ চাকমা সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, পুলিশ সুপার মো: মজিদ আলী বিপিএম-সেবা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) এটিএম কাউসার হোসেন, পাজেপ সদস্য মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু, নিগার সুলতানা, শতরুপা চাকমা, শতীষ চাকমা, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমা, কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক তরুন ভট্টাচার্য্য, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(বিদায়ী) মো: তাজুল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(নবাগত) এলিস শরমিন।

এসময় জেলার সরকারী-বেসরকারী কর্মকর্তা, গন্যমান্য ব্যক্তি ও সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
পরে অতিথিরা ২শত পরিবার কৃষকের মাঝে ১০হাজার বিভিন্ন প্রজাতির চারা/কলম বিতরন করা হয়েছে। এতে আমের গাছ-৩০টি, বেল-১০টি, তেসপাতা-১০টিসহ মোট প্রতিটি পরিবারকে ৫০টি করে চারা বিতরন করা হয়।
প্রধান অতিথি কুজেন্দ্র ত্রিপুরা এমপি বলেন, দেশের কৃষককে নিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী অক্লান্ত প্রচেষ্টায় ভালমানের খাবার সাধারন মানুষ সহসাই দুই মুঠো ভাত খেতে পারছে। খুবই সাধারন ভাবে যতি বলি এখন সারাদেশের খাদ্য ঘাটতি নেই। এই বছর ভালমানের ধান উৎপাদন বেশী হওয়ার ফলে বাইরে দেশে রপ্তানী করা সম্ভব হচ্ছে।

দেশটি আজ নিম্ম মাধ্যম আয়ের দেশের পরিণত হয়েছে। ২০২১সালে আলোকিত ডিজিটাল বাংলাদেশ স্থান নিয়ে ক্ষুধাদারিদ্র মুক্ত সোনার বাংলাদেশ  গড়ার সম্ভব হবে। পাহাড়ে সাম্প্রদায়িকতা সহিংসতা ইদানিং অনেকটা কমে গেছে।

কৃষি, স্বাস্থ্র্য, শিক্ষা খাতে সংখ্যা বেড়ে যাওয়া মেধাগুলো কাজে লাগাতে হবে। মানব জীবনে ৩০লক্ষ ইজ্জতের বিনিময়ে স্বাধীন সার্বভোমত্ব বাংলাদেশ অর্জন করেছে। জংগীবাদ উৎথান অনমানবিক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে। পাহাড়ে পাহাড়ীদের কিছু বিপদগামী থাকলেও সেটি অনেকটা নিস্ক্রিয় অবস্থায় আাছে।

প্রত্যক মানুষের নির্বান ও স্বর্গ লাভে যাওয়ার জন্য মানবিক ও কর্মঠ অভিজ্ঞতাকে রোপন করে ভাল ফল ফসল আনার চেষ্টা থাকতে হবে। সবকিছু মিলে উন্নয়নের পূর্ব শর্ত হলো নিজেই উন্নয়ন হলে দেশ উন্নয়নে আরেক ধাপ এগিয়ে যাবে।

 

 

কুইকনিউজবিডি.কম/বিপুল /৩১.০৭.২০১৬/ রাত ১১:১৯