ব্রেকিং নিউজ
২১শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৪:০২

আকাশ সাহার কবিতা দীর্ঘতম কবরখানায় আলো জ্বলে

মরা চাঁদ আবার বহুদিন পর
তার আলোকধারা কে
শতবর্ষে পৌঁছে দিয়েছে.
ভেজা ছাদ থেকে দাঁড়িয়ে
অপলক চাহনিতে
তাকিয়ে দেখি কবরখানায়
আবার উৎসবের ঢল নেমেছে
আবার
প্রাণের লহমায়
জীবন ফিরে যাচ্ছে
তার বিলুপ্ত কড়িবর্গের ভিতরে..
কঙ্কালে আবিষ্ট শরীর
তার সারা গায়ে
রক্তের ক্ষতচিহ্ন
প্রাণভোমরা খুঁজে নিয়ে সে তাকিয়ে দেখে
আমার মুখের কিঞ্চিৎ বিস্মৃতি
আজ অপরিচ্ছিন্নভাবে
ঠিক একই আছে.
ভাঙা জোসনার স্নানের ধারায়
অলসতা কাটিয়ে ওঠে ,
কবরের গাছপালা,মাটি.কফিন ,
আর কফিনের ভিতরে থাকা
মিশর বা বেবিলনের ওষুধমাখানো মমি
এরাও একাধারে
বুনেটে বাধা
একসময়কার
রোদ ঝলমলে মানসী
স্তব্ধ নৈরাশটা বহুবছরপর
এমন দীর্ঘ কবরখানায়
দিবাস্বপ্নের
ঝলসানি এনেছে
সিগারেট আর লাল ওয়ান
নিয়ে
বহু প্রতিক্ষনের
আজ হয়তোবা
শেষ সময়
দীর্ঘ একটা নিঃস্বাস নিয়ে
ফিরে তাকালাম,সেই শীতল দীর্ঘ
কবরখানার দরজায়
আর এই মুহূর্ত থেকে
আমার সাদা শরীরের
সমস্ত রক্ত চুষে নেয়
কফিনে বন্দি করা,
মরা চাঁদের
অন্ধকার কলঙ্ক,
রাত্রির নির্মিশেষে
বীভৎসতা…