২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:০৯

টেকনাফে নারী কাউন্সিলর কোহিনুরের বাড়িতে মাদক বিরোধী অভিযান

 

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন,কক্সবাজার : কক্সবাজারের টেকনাফ পৌরসভার নারী কাউন্সিলর কোহিনুরের বাড়িতে মাদক বিরোধী যৌথ টাস্কফোর্সের অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এসময় তার স্বামী যুবদল সভাপতি শাহ আলম পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে শাহ আলমকে আইনের আওতায় আনার যাবতীয় প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর।

সূত্রে জানাগেছে, সোমবার টেকনাফ উপজেলার পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ড এলাকায় মাদক ব্যবসায়ী শাহ আলমের বাড়িতে র‌্যাব,পুলিশ,আনসার,মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর যৌথ ভাবে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন,মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর চট্টগ্রামের গোয়েন্দা পরিচালক মাসুম রব্বানী।

এদিকে স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে,আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি টেরপেয়ে শাহ আলম কৌশলে বাড়ির পিছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে গেছে।শাহ আলম পৌরসভার নারী কাউন্সিলর কোহিনুর আক্তারের স্বামী এবং স্থানীয় ওয়ার্ড যুবদলের সভাপতি। শাহ আলম এবং তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মাদক মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে। এটি অত্যন্ত শক্তিশালী একটি পারিবারিক ইয়াবা সিন্ডিকেট।

চলতি বছর এপ্রিল মাসে চট্টগ্রাম গোয়েন্দা পুলিশ কর্তৃক আটক ইয়াবার চালানটি নারী কাউন্সিলর কোহিনুর আক্তারের বলে তথ্য পাওয়া গেছে। উক্ত ঘটনায় কাউন্সিলর কোহিনুর,তার পিতা সুলতান,স্বামী ওয়ার্ড যুবদল সভাপতি সহ চার জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নগর গোয়েন্দা পুলিশ। এঘটনায় ইয়াবা বহনকারী কাভার্ড ভ্যানের ড্রাইভার আনোয়ার বর্তমানে কারাগারে রয়েছে।

কক্সবাজার জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন সহকারী পরিচালক সৌমেন মন্ডল অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শাহ আআলম একজন তালিকা ভূক্ত মাদক ব্যবসায়ী। অভিযানের সময় বাড়িটি তালাবদ্ধ ছিলো।তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে একজন বয়স্ক মহিলার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। বাড়িটি তল্লাশি চালিয়ে কিছুই পাওয়া যায়নি। তবে শাহ আলমকে আইনের আওতায় আনার যাবতীয় প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/১১ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং/বিকাল ৫:২৯