২০শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১১:৪৫

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কারাগারে আদালত বসানোর প্রতিবাদে রাঙামাটিতে মানববন্ধন

 

আলমগীর মানিক,রাঙামাটি : বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে প্রহসনমূলক মিথ্যা মামলার বিচারকার্য পরিচালনার সংবিধান পরিপন্থী কারাগারে আদালত স্থানান্তরের প্রতিবাদে ও সুচিকিৎসা নিশ্চিতকরন, নি:শর্ত মুক্তির দাবীতে সোমবার দুপুরে রাঙামাটি জেলা বি.এন.পি, অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয় সম্মুখে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে।

সোমবার সকাল ১০টায় জেলা শহরের কাঠালতলীস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে জেলা বিএনপির সভাপতি হাজী মো. শাহ আলমের সভাপতিত্বে অন্যান্যের উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক দীপন তালুকদার দীপু, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম পনির, এ্যাডভোকেট মামুনুর রশিদ মামুন, জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইউছুপ চৌধুরী, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু নাছের, জেলা মহিলা দলের সভাপতি মিনারা এরশাদ, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ফারুক আহমেদ সাব্বির ও জেলা জাসাস’র সদস্য সচিব আবুল হোসেন বালিসহ আরো অনেকেই। এ সময় বক্তারা কারাগারে খালেদা জিয়ার বিচার কার্যক্রম বসানোর প্রতিবাদ ও নির্দলীয় তত্ত্বাবধায় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানান।

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামানের আদালত খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দেন। একইসঙ্গে, খালেদা জিয়ার ছেলে ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, ড. কামালউদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদন্ড দেন আদালত এবং খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয় আসামির প্রত্যেককে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা করে অর্থদন্ডে দন্ডিত করেন। এরপর পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরোনো কারাগারকে বিশেষ কারাগার ঘোষণা দিয়ে তাকে সেখানেই রাখা হয়েছে। নির্জন এই কারাগারে একমাত্র বন্দি হিসেবে গত ২১৫দিন ধরে কারাভোগ করছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। ওই মামলায় সাজা হওয়ার পর ঈদুল ফিতরের পর ঈদুল আজহাও কারাগারে কেটেছে তার।

দীর্ঘ ৩৬ বছরের রাজনৈতিক জীবনে এর আগে একবার কারাগারে যেতে হয়েছিল বেগম খালেদা জিয়াকে। ২০০৭ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সেনা-সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তাকে গ্রেফতার করা হয়। তখন জাতীয় সংসদ ভবন এলাকার স্পিকারের বাসভবনকে সাবজেল ঘোষণা করে সেখানে রাখা হয়েছিল তাকে। ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সুপ্রিম কোর্টের এক আদেশে খালেদা জিয়া মুক্তি পান। এরপর তিনি দুর্নীতি মামলায় দ্বিতীয় বার জেলে যান। আপোষহীন নেত্রীর খেতাব পাওয়া বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ধারাবাহিকভাবে সারাদেশের ন্যায় পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতেও বিক্ষোভ সমাবেশ, মানববন্ধন, অবস্থান, প্রতীক অনশনের মত কর্মসূচি পালন করে আসছে রাঙামাটি জেলা বিএনপিসহ অঙ্গ-সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/১০ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং/বিকাল ৫:৫৮