১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:৪৯

সুষ্ঠু নির্বাচন শুধু বিএনপির জন্য নয়,এদেশের ১৬ কোটি মানুষের জন্য নয়, সুষ্ঠু ও : ড.আঃমঈন খান

 

মোঃ সালাহউদ্দিন আহম্মেদ,নরসিংদী প্রতিনিধি : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেছেন, ‘দেশের চলমান রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা ও সংকটাপন্ন অবস্থার সমাধান বর্তমান ভোটারবিহীন আওয়ামী সরকার করতে পারবে না। এদেশের রাজনৈতিক সমস্যা দূর করতে হলে আজকে খালেদা জিয়াকে আগে কারাগার থেকে মুক্তি দিতে হবে। দেশের জনগণ মনে করে, খালেদা জিয়ার মুক্তিই রাজনৈতিক সব সংকটের সমাধানের সূত্র।’

শনিবার (৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে যুব জাগপা’র কেন্দ্রীয় সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।সরকারের উদ্দেশ্যে মঈন খান বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে তাঁর সঙ্গে আলোচনায় বসতে হবে। তাঁর মৌলিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। একটি সুষ্ঠু, সুন্দর এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিতে হবে। এছাড়া এদেশে রাজনৈতিক সমস্যার সমাধান করা সম্ভব না।’

‘এ ধরনের একটি সুষ্ঠু নির্বাচন আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন’- এমন মন্তব্য করে মঈন খান বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচন শুধু বিএনপির জন্য নয়, এদেশের ১৬ কোটি মানুষের জন্য নয়, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন আওয়ামী লীগের। কিন্তু তারা আজকে নার্ভাস হয়ে গিয়েছে। তাই তারা আবোলতাবোল বলছে। সরকার যদি এই আতঙ্কদশা থেকে বেরিয়ে আসতে চায়, যদি বাংলাদেশের রাজনীতিতে অধিষ্ঠ থাকতে চায়, যদি এদেশের মানুষের সত্যিকার কল্যাণ চায় তাহলে তার একমাত্র উপায় হলো একটি সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন পরিচালনা করে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটানো।’

আওয়ামী লীগের এতো ভয় কিসের- প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘তারা উন্নয়নের জোয়ারে দেশকে ভাসিয়ে দিয়েছে। বাংলাদেশের মানুষ যদি তাদের ভোট দেয় তাহলে তারা পাবেই। ভোটের মাধ্যমেই তারা পুনরায় সরকার গঠন করবে। তাহলে এত ভয় পাচ্ছে কেন তারা? এখানে কঠিন সত্য হচ্ছে আওয়ামী লীগ নিজেও জেনে গিয়েছে এদেশের মানুষ ইতোমধ্যে তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। এদেশের মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছে বলেই তারা আজকে ভীত, সন্ত্রস্ত, আতঙ্কিত।’

রাজনীতি করতে হলে আদর্শ নিয়ে করতে হয়- উল্লেখ করে মঈন খান আরও বলেন, ‘বর্তমান সরকার ক্ষমতাকে পুঁজি করে রাজনীতি করছে। রাজনীতি কোনোদিন ক্ষমতাকে পুঁজি করে হয় না। রাজনীতি করতে হলে আদর্শ নিয়ে করতে হয়। সে কারণেই খালেদা জিয়া প্রমাণ করেছেন এবং তাঁর সেই সৎ সাহস আছে বলেই তিনি সেদিন কারাগারে বলেছিলেন, ‘এই মিথ্যা বিচারের আদালতে আমি আর আসবো না’। তার সেই সততা আছে বলেই তিনি বলতে পেরেছেন, মিথ্যা মামলা দিয়ে তাঁকে যত খুশি শাস্তি দেয়া হোক, সেই শাস্তি দিয়ে খালেদা জিয়াকে কোনোদিন পিছু হাটানো যাবে না। খালেদা জিয়া কোনোদিন পেছনের দরজা দিয়ে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন নাই।’

সম্মেলনের আহ্বায়ক আরিফুল হক তুহিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, যুব জাগপার সহ-সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান ও সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান প্রমুখ।

 

 

কিউএনবি/রেশমা/৯ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং/সকাল ১০:২৭