২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:৩৮

২ বছর যুক্তফ্রন্ট ৩ বছর বিএনপি দেশ চালাবে?

নিউজ ডেস্কঃ  জাতীয় ঐক্য এবং বিএনপি ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করলে ২ বছর দেশ পরিচালনা করতে চায় যুক্তফ্রন্ট ও জাতীয় ঐক্য। বাকি তিনবছর বিএনপি দেশ চালাবে। একসঙ্গে আন্দোলন, একসঙ্গে নির্বাচন এই চিন্তা থেকে জাতীয় ঐক্য ও যুক্তফ্রন্ট একটি খসড়া রূপরেখা চূড়ান্ত করেছে। এই খসড়া রূপরেখার ভিত্তিতে বিএনপির সঙ্গে আলোচনা করতে চায় যুক্তফ্রন্ট। তবে আলোচনার দিনক্ষণ এখনও চূড়ান্ত হয়নি। বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেছেন, ‘কারা অভ্যন্তরে বেগম জিয়ার বিচার এবং ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়, এই দুটি ইস্যু নিয়ে বিএনপি ব্যস্ত। তবে এর মধ্যেই বিএনপি যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে ঐক্য প্রক্রিয়া নিয়ে আলোচনা শুরু করতে চায়।

যুক্তফ্রন্ট এবং জাতীয় ঐক্য বিএনপির সঙ্গে আলোচনার যে রূপরেখা তৈরী করেছে, তাতে নির্বাচন এবং নির্বাচন পরবর্তী মোট ৭ টি বিষয় উপস্থাপন করা হয়েছে। এগুলো হলো :

১. অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য ঐক্যবদ্ধ দাবী এবং ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন।

২. বর্তমান নির্বাচন কমিশনের সংস্কার

৩. নির্বাচনকালীন সরকারকে দল নিরপেক্ষ করা

৪. নির্বাচনে সেনা মোতায়েন।

৫. ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করা। (আলোচনার ভিত্তিতে সম্মানজনকভাবে আসন ভাগাভাগি)

৬. সরকার গঠনে মালেয়শিয়ার নীতি অনুসরণ। ২ বছর যুক্তফ্রন্ট ও ঐক্যপ্রক্রিয়া দেশ চালাবে। বিএনপি সমর্থন দেবে। আর তিন বছর বিএনপি দেশ চালাবে। যুক্তফ্রন্ট ও ঐক্যপ্রক্রিয়া সমর্থণ দেবে।

৭. রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার ভারসাম্য।

যুক্তফ্রন্টের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জামাত এবং বেগম জিয়ার মুক্তির ইস্যু দু’টি ঐক্যের রূপরেখায় রাখা হচ্ছে না। যুক্তফ্রন্টের একজন নেতা বলেছেন, ‘আমাদের ঐক্য ২০ দলের সঙ্গে হচ্ছে না, হচ্ছে বিএনপির সঙ্গে। বিএনপিও আমাদের জানিয়েছে যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে ঐক্যে বিএনপি একাই থাকবে। কাজেই জামাত ইস্যু এখানে অবান্তর।‘ বিএনপির একাধিক নেতা বলেছেন, ২০ দল রেখেই তারা ঐক্য প্রক্রিয়ায় যেতে চায়। বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, ‘জামাতের যেহেতু নিবন্ধন নেই, তাই তাঁরা ধানের শীষ প্রতীক নিয়েই নির্বাচন করবে। ২০ দলের সব শরীকরাই ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করবে। তাই নির্বাচনে ’জামাত’ কোন ইস্যু হবে না।’

বেগম জিয়ার মুক্তি প্রসংগে যুক্তফ্রন্ট ও ঐক্য প্রক্রিয়ার নেতারা বিএনপিকে বলেছেন,‘বর্তমান সরকার নির্বাচনের আগে বেগম জিয়াকে মুক্তি দিবে না। তাই মালয়েশিয়ার আনোয়ার ইব্রাহিমের মতই বেগম জিয়াকে মুক্তির চুক্তি করতে চায় যুক্তফ্রন্ট এবং বিএনপি। যাতে থাকবে, নির্বাচনের পর ৭ দিনের মধ্যে বেগম জিয়াকে মুক্ত করে আনা হবে। তবে, তারেক জিয়ার দেশে ফেরা এবং তার দন্ড নিয়ে যুক্তফ্রন্ট এবং ঐক্য প্রক্রিয়া কোনরকম আলোচনা বা চুক্তিতে যেতে চায় না।

কিউএনবি/নিল/ সেপ্টেম্বর,২০১৮/১৮ঃ৪৮