২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ভোর ৫:৪০

বগুড়ায় বিএনপির শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

 

বগুড়া অফিস : বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয় থেকে ককটেলসহ দেশীয় ধারালো অস্ত্র উদ্ধার ও শেরপুর উপজেলায় বিএনপির আঞ্চলিক থেকে ককটেল ও পেট্রোল বোমা উদ্ধারের ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। মামলায় বিএনপির শতাধিক নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে শেরপুর থানার ওসি হুমায়ুন কবির ও শাজাহানপুর থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম মুঠোফোনে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

পুলিশ জানিয়েছে, গত রোববার বিকেলে বিএনপির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে শাজাহানপুর উপজেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা শেষে দলীয় নেতাকর্মীরা স্থান ত্যাগ করার সময় থানা পুলিশ সেখানে অভিযান চালিয়ে ৩টি হাসুয়া, ২টি ককটেল ও ৮-১০টি লাঠি, ছুরি উদ্ধার করে। এঘটনায় সোমবার শাজাহানপুর থানার এসআই রামজীবন ভৌমিক বাদী হয়ে উপজেলা বিএনপির আহবায়ক আবুল বাশারকে প্রধান আসামি করে মামলা দায়ের করেন। মামলায় এজাহারভুক্ত আরও ৩০ জন এবং অজ্ঞাতনামা ২৫ থেকে ৩০ জনসহ ৬০ জনকে আসামি করে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫(৩)/২৫-ঘ তথসহ বিস্ফোরক দ্রব্য আইন ১৯০৮ এর ৪/৬-১/৫ ধারায় উল্লেখ করা হয়।

এদিকে, গত বুধবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে জেলার শেরপুর উপজেলার ছোনকা বাজার এলাকায় বিএনপির আঞ্চলিক কার্যালয়ে নাশকতার উদ্দেশ্যে দলের নেতাকর্মীরা গোপন বৈঠক করছে, এমন খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। পুলিশি উপস্থিতি টের পেয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। দলীয় আঞ্চলিক কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে ৪টি ককটেল, ৮টি পেট্রোল বোমা, দুই বস্তা ইটের খোয়া ও ১১ টি লাঠি উদ্ধার করে পুলিশ। এঘটনায় উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা জিহাদুল ইসলাম জিহাদ, রফিকুল ইসলাম, হুমায়ুন কবির বিপ্লব সহ বিএনপির ২৩জন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ১৫-২০জনকে আসামি করে বৃহস্পতিবার থানার এসআই ওসমান গণি বাদি হয়ে বিস্ফোরক ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করেন।

 

 

কিউএনবি/অায়শা/৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং/সন্ধ্যা ৭: ১২