২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ২:৪৮

হৃদয়ে সালমান শাহ্

 

মোঃ সালাহউদ্দিন আহম্মেদ : বাবা বলে ছেলে নাম করবে/ সারা পৃথিবী তাকে মনে রাখবে…” এই গানটি গাইতে গাইতেই এক চিরসবুজ বৃক্ষের জন্ম হয় বাংলাদেশের সিনেমা ভুবনে। গানটি যেন সিনেমার কথা নয়, দেশের চলচ্চিত্রের সর্বকালের অন্যতম সেরা নায়ক সালমান শাহ্‌র জীবনের বাস্তব কথা হয়ে যায়। স্বল্প সময়ের এক বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে সালমান প্রমান করেছেন কিভাবে হৃদয় থেকে হৃদয় শ্রদ্ধায় ভালোবাসায় চিরস্থায়ী আসনটি গড়ে নেয়া যায়।

১৯ সেপ্টেম্বর এই ক্ষনজন্মা চিরসবুজ নায়কের জন্মদিন। ১৯৭১ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলায় জন্ম নেন বাংলা চলচ্চিত্রের সবুজ এই সন্তান।
আসল নাম শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন। চলচ্চিত্রে এসে তার নাম হয় সালমান শাহ্। ১৯৭০ সালে ১৯ সেপ্টেম্বর নানা বাড়ি সিলেটে তার জন্ম। বাবা কমরউদ্দিন চৌধুরী ও মা নীলা চৌধুরী। দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় ছিলেন তিনি। আর সহধর্মিণী হিসেবে প্রেম করে বিয়ে করেছিলেন সামিরাকে।
মডেলিং ও অভিনয়ের প্রতি তার আগ্রহটা ছিল ছোটবেলা থেকেই। চলচ্চিত্রে পা রাখার আগেই মডেলিং করেছেন। পরবর্তীকালে কয়েকটি নাটকেও অভিনয় করেন তিনি।
১৯৯৩ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল, মাত্র তিন বছরের ক্যারিয়ারে তিনি পাল্টে দিয়েছিলেন ঢালিউড চলচ্চিত্রের মুখ। সরল মুখয়াবয়, সহজাত বাচনভঙ্গি আর আকষর্ণীয় ব্যক্তিত্বে সালমান শাহ্ সহজেই ভক্তদের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছিলেন।
নব্বই দশকে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ক্রান্তিকাল সময়ে আর্শীবাদ হয়ে আসেন সালমান শাহ্। পরিচালক সোহানুর রহমানের হাত ধরেই সিনেমায় পা রাখেন তিনি। ১৯৯৩ সালের ২৫ মার্চ প্রথম ছবি ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ অভাবনীয় সাড়া পায়। সে সিনেমার নবাগত সালমান- মৌসুমির জুটিকে আজও ভুলতে পারেনি দর্শকরা। ছবিটি দেখে সালমান শাহ’র মধ্যেই পরিচালকরা খুঁজে পান আলোর পথ।
সাড়ে তিন বছরের ক্যারিয়ারে প্রায় ২৭টি ছবিতে অভিনয় করেছেন সালমান শাহ্। নায়িকা মৌসুমীর বিপরীতে অভিনয় করে জনপ্রিয়তার মুখ দেখলেও পরে সালমান-শাবনূরের জুটি ঢালিউডে অনেক ব্যবসা সফল ছবি উপহার দিয়েছে। এ জুটি প্রায় ১৪টি ছবিতে অভিনয় করে ঢালিউডে একচেটিয়া রাজত্ব করেছে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠিত অনেক নায়িকাই তার বিপরীতে অভিনয়ে করেছেন।
সালমান শাহ্ ছবি মানে ছিল সিনেমা হলগুলোতে দর্শকদের উপচে পড়া ভিড়। তার অভিনীত সবকটি ছবি ব্যবসা সফলতা পায়, যা ঢালিউড চলচ্চিত্রে ইতিহাসে রেকর্ড হয়ে আছে।
১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর লাখো ভক্ত কাঁদিয়ে চির বিদায় নেন সালমান শাহ। তার মৃত্যু নিয়ে অভিযোগ উঠে যে, তাকে হত্যা করা হয়েছে। কিন্তু তার হত্যাকাণ্ডের কোনো আইনি সুরাহা শেষ পর্যন্ত হয়নি। না ফেরার দেশে তার হঠাৎ চলে যাওয়ায় ঢালিউডে এক শূন্যতা রেখে যায়। তার এই ‘না থাকা’ জুড়ে বাংলা চলচ্চিত্রে শুধুই শূণ্যতা আর ধূসরতা বয়ে এনেছে। এই শূন্যতা আজো কাটিয়ে উঠতে পারেনি।
৫ ফুট ৮ ইঞ্চি উচ্চতার এই অভিনেতা সর্বমোট ২৭টি চলচ্চিত্র অভিনয় করেন। এছাড়াও টেলিভিশনে তার অভিনীত গুটি কয়েক নাটক প্রচারিত হয়।
একনজরে সালমান শাহ:
● আসল নাম : শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন
● জন্ম : ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৭১, রোববার
● বাবা : কমর উদ্দিন চৌধুরী
● মা : নীলা চৌধুরী
● স্ত্রী : সামিরা
● উচ্চতা : ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি
● প্রথম চলচ্চিত্র : কেয়ামত থেকে কেয়ামত
● শেষ ছবি : বুকের ভেতর আগুন
● প্রথম নায়িকা : মৌসুমী
● সর্বাধিক ছবির নায়িকা : শাবনূর (১৪টি)
● মোট ছবি : ২৭টি
● বিজ্ঞাপনচিত্র : মিল্ক ভিটা, জাগুরার, কেডস, গোল্ড স্টার টি, কোকাকোলা, ফানটা।
● ধারাবাহিক নাটক : পাথর সময়, ইতিকথা
● একক নাটক : আকাশ ছোঁয়া, দোয়েল, সব পাখি ঘরে ফেরে, সৈকতে সারস, নয়ন, স্বপ্নের পৃথিবী।
● মৃত্যু : ৬ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৬, শুক্রবার
সালমান শাহ অভিনীত ছবির তালিকা:
● কেয়ামত থেকে কেয়ামত – ১৯৯৩ সালের ২৫ মার্চ
● তুমি আমার – ১৯৯৪ সালের ২২ মে
● অন্তরে অন্তরে – ১৯৯৪ সালের ১০ জুন
● সুজন সখী – ১৯৯৪ সালের ১২ আগস্ট
● বিক্ষোভ – ১৯৯৪ সালের ৯ সেপ্টেম্বর
● স্নেহ – ১৯৯৪ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর
● কন্যাদান – ১৯৯৫ সালের ৩ মার্চ
● দেনমোহর – ১৯৯৫ সালের ৩ মার্চ
● স্বপ্নের ঠিকানা – ১৯৯৫ সালের ১১ মে
● আঞ্জুমান – ১৯৯৫ সালের ১৮ আগস্ট
● মহামিলন – ১৯৯৫ সালের ২২ সেপ্টেম্বর
● আশা ভালোবাসা – ১৯৯৫ সালের ১ ডিসেম্বর
● ‘প্রেমযুদ্ধ’ – ১৯৯৫ সালের ২৩ ডিসেম্বর
● বিচার হবে- ১৯৯৬ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি
● এই ঘর এই সংসার – ১৯৯৬ সালের ৫ এপ্রিল
● প্রিয়জন – ১৯৯৬ সালের ১৪ জুন
● তোমাকে চাই – ১৯৯৬ সালের ২১ জুন
● স্বপ্নের পৃথিবী – ১৯৯৬ সালের ১২ জুলাই
● সত্যের মৃত্যু নেই – ১৯৯৬ সালের ৭ ই অক্টোবার
● জীবন সংসার – ১৯৯৬ সালের ১৮ অক্টোবর
● মায়ের অধিকার – ১৯৯৬ সালের ৬ ডিসেম্বর
● চাওয়া থেকে পাওয়া – ১৯৯৬ সালের ২০ ডিসেম্বর
● প্রেম পিয়াসী – ১৯৯৭ সালের ১৮ এপ্রিল
● স্বপ্নের নায়ক – ১৯৯৭ সালের ৪ জুলাই
● শুধু তুমি – ১৯৯৭ সালের ১৮ জুলাই
● আনন্দ অশ্রু – ১৯৯৭ সালের ১ আগস্ট
● বুকের ভেতর আগুন – ১৯৯৭ সালের ৫ সেপ্টেম্বর
কিউএনবি/রেশমা/৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং/দুপুর ১২:৩০