২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১:০০

বিজ্ঞাপন নিয়ে বিতর্ক, যুক্তরাষ্ট্রে পুড়ছে ‘নাইকি’র সরঞ্জাম

স্পোর্টস ডেস্ক : আন্তর্জাতিক ক্রীড়া সরঞ্জাম প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ‘নাইকি’ সম্প্রতি তাঁদের নতুন বিজ্ঞাপন প্রকাশ করেছে। যেখানে মার্কিন ন্যাশনাল ফুটবল লিগের খেলোয়াড় কলিন কেপারনিককে দেখা গেছে। আর এই বিজ্ঞাপনই গোটা দেশজুড়ে তৈরি করেছে নতুন বিতর্ক। নাইকির প্রতিবাদে এই সংস্থার ক্রীড়া সরঞ্জাম আগুনে পোড়াতে শুরু করেছেন মার্কিন নাগরিকরা।

সেই ছবি তাঁরা আপলোড করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। টুইটারে ট্রেন্ডিং হতে শুরু করেছে নাইকি বিরুদ্ধে শুরু হওয়া প্রতিবাদের হ্যাশট্যাগ। বিজ্ঞাপনটির নিন্দা করে মুখ খুলেছেন খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও।

এখন প্রশ্ন হল এই প্রতিবাদের কারণ কী? তা জানতে হলে ফিরে যেতে হবে অতীতে। ২০১৬ সালে ন্যাশনাল ফুটবল লিগের একটি ম্যাচের আগে অভিনব পদ্ধতিতে প্রশাসনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন কলিন কেপারনিক।

জানা যায়, সান ফ্রান্সিসকোতে হওয়া ওই ফুটবল ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সঙ্গীত চলার সময় এক হাঁটু গেড়ে মাটিতে বসে থাকতে দেখা যায় তাঁকে। পুলিশের বিরুদ্ধে বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ করতে শোনা যায় তাঁকে। এই প্রতিবাদেই ওই কীর্তি করেন বলে নিজেই জানিয়েছেন কেপারনিক। এরপরই তাঁর উপর নেমে আসে শাস্তির খড়গ। জাতীয় সঙ্গীতকে অপমান করার পালটা অভিযোগে দল থেকে কেপারনিককে বাদ দেওয়া হয়। এমনকি এই ঘটনার পর থেকে এখনও পর্যন্ত অন্যকোনও দল তাঁকে নেয়নি।

মঙ্গলবার নাইকির “Just Do It” স্লোগানের ত্রিশ বছর উপলক্ষে প্রকাশ্যে আনা হয় এই বিজ্ঞাপনটি। যেখানে কেপারনিককে বলতে শোনা যায়, “Believe in something. Even if it means sacrificing everything.” এরপরেই ক্ষোভ ছড়ায় গোটা দেশজুড়ে।

জাতীয় সঙ্গীতকে অপমান করেছে এমন একজনকে বিজ্ঞাপনে সুযোগ দেওয়ায় নাইকির বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সরব হতে দেখা যায় মার্কিন নাগরিকদের। নিজেদের কাছে থাকা নাইকির প্রোডাক্ট পুড়িয়ে ক্ষোভ দেখান তাঁরা। এই বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে নাইকি দেশবিরোধী কাজে মদত দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

কিউএনবি/অনিমা/৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং/সকাল ১০:৩৭