১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৮:৪২

ডেঙ্গু প্রবণতা বেড়েছে, তবে মেয়র বলছেন ‘নিয়ন্ত্রণে আছে’

 

ডেস্কনিউজঃ বিগত ২-৩ বছরের তুলনায় রাজধানীসহ সারাদেশে বেড়েছে ডেঙ্গুর প্রবণতা। বেড়েছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যাও। তবে ঢাকা দক্ষিণ সিটির মেয়র সাঈদ খোকন বলেছেন, ‘আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও এতে উদ্বেগ বা আতঙ্কিত হওয়ার কিছুই নেই। কারণ ডেঙ্গু আমাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

সোমবার রাজধানীর ইস্কাটনে মশা নিধন নিয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে দক্ষিণ সিটির মেয়র সাঈদ খোকন এসব কথা বলেন।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র মতে, ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে জুলাই মাসের মধ্যে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৭ জন। এছাড়া ১ জানুয়ারি থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত মোট ৮৭০ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন।

বছরের অর্ধেক পরিসংখ্যান যখন একথা বলছে তখন আগের বছর গুলো দিকে তাকালে দেখা যায়, ডেঙ্গু জ্বরে ২০০২ সালে সর্বোচ্চ ৬ হাজার ২৩২ জন আক্রান্ত ও ২০০০ সালে সর্বোচ্চ ৯৩ জনের মৃত্যু হয়। এরপর ২০১৬ সালে হঠাৎ করে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজার ৬০ জনে বৃদ্ধি পায়। ওই বছর ১৪ জনের মৃত্যু হয়। ২০১৭ সালে আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ৭৬৯ জন ও মৃতের সংখ্যা হ্রাস পেয়ে ৮ জনে নেমে আসে।

তাই চলতি বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হওয়ার শুরুতেই (জুন থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ডেঙ্গুর বাহক এডিস মশার উপদ্রব বাড়ে) ৭ জনের মৃত্যুকে আশঙ্কাজনক হিসেবে দেখছেন চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

তবে এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই বলে জানান মেয়র সাঈদ খোকন। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রথম পর্যায়ে প্রায় ১৫ হাজার বাসা বাড়িতে ডেঙ্গু মশার লার্ভা ধ্বংস করেছি। দ্বিতীয় পর্যায়ে ধানমন্ডি ও কলাবাগান এলাকায় ১৭ হাজার বাসাবাড়িতে লার্ভা ধ্বংস করেছি। এই এলাকার প্রায় ৩৭ শতাংশ বাড়িতে ডেঙ্গু মশার লার্ভা পাওয়া গেছে।’

সাঈদ খোকন আরো বলেন, ‘গত বছর চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্বার বেশি ছিল। আমরা তা নিয়ন্ত্রণ করেছি। এবছর চিকুনগুনিয়া নেই। হাসপাতাল, গণমাধ্যম ও আমাদের কর্মীদের থেকে পাওয়া তথ্যে এবার কিছুটা ডেঙ্গুর প্রবণতা বেড়েছে। আজ তৃতীয় পর্যায়ে এক যোগে ৫৭টি ওয়ার্ডে পক্ষকালব্যাপী বিশেষ ক্র্যাশ প্রোগ্রাম শুরু হয়েছে। আমাদের কাজ চলছে।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- ডিএসসিসির সচিব মো. শাহাবুদ্দিন খান, স্থানীয় কাউন্সিলর কামরুজ্জামান কাজল, হাসিবুর রহমান মানিক, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শেখ সালাহউদ্দিন প্রমুখ।

 

কিউএনবি/বিপুল/৩রা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং/ রাত ১১:০৪