১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:৪০

এক পায়ে জুতা নিয়ে দৌড়েও ৩০০০ মিটারে চ্যাম্পিয়ন

 

স্পোর্টস ডেস্ক : সুইজারল্যান্ডের জুরিখে চলছে আইএএফ ডায়মন্ড লিগ। আজ ৩০০০ মিটার স্টেপল চেজে স্বর্ণ জিতেছেন কেনিয়ার কনসেসলাস কিপ্রুতো। তবে তিনি এই স্বর্ণ জিতে দৃঢ় সংকল্পের পরিচয় দিয়েছেন। দৌড় শুরুর কিছুক্ষণ পরেই বাঁক নিতে গিয়ে তার এক পায়ের জুতা খুলে যায়। এরপর বাকি সময়ে এক পায়ে জুতা ও আরেক খালি পা নিয়েই দৌড়েছেন। হার্ডেলস, পানির প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে হয়েছেন চ্যাম্পিয়ন। সময় নিয়েছেন ৮ মিনিট ১০.১৫ সেকেন্ড। ৮ মিনিট ১০.১৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে রৌপ্য জিতেছেন মরোক্কোর এল বাককালি সোফিনা।

কিপ্রুতোর খালি পা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দৌড় শেষে পা-টি ব্যান্ডেজ করতে হয়েছে তাকে। স্বর্ণ জয়ের পর কিপ্রুতো বলেন, ‘আসলে জুতা খুলে যাওয়াটা খুবই বিব্রবতকর ও অস্বস্তির ছিল। তবে এটা আমাকে কঠিন লড়াই করতে অনুপ্রাণিতও করেছে। আমাকে পারতেই হবে সেই জেদ চাপিয়ে দিয়েছিল মনের মধ্যে। সে কারণেই দৌড়টি আমি ভালোভাবে শেষ করতে পেরেছি। তবে আমি ইনজুরি আক্রান্ত হয়েছি। যেহেতু খালি পায়ে লম্বা পথ দৌড়াতে হয়েছে।’

কিপ্রুতো ২০১৬ অলিম্পিক গেমসের স্বর্ণজয়ী এবং বিশ্ব স্টেপল চেজের চ্যাম্পিয়ন। দৌড় শেষে এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘এক পায়ে জুতা ছাড়া দৌড়ানো, এটা আসলে খুবই কঠিন এবং খুবই যন্ত্রণাদায়ক ছিল। তবে হাল ছেড়ে না দেওয়ার কঠিন সংকল্প আমার মধ্যে ছিল। দর্শকরা অসাধারণ ছিল। আমি জয়ের ধারা অব্যাহত রাখব।’

তার এমন কীর্তিতে কেনিয়ার ডেপুটি প্রেসিডেন্ট উইলিয়ান রুটো টুইটারে ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। তাকে ‘কিং কিপ্রুতো বলেছেন। তার এমন দৌড়ানোটাকে অবিশ্বাস্য বলে উল্লেখ করেছেন।

তবে স্প্রিন্টে এটাই প্রথম এক পায়ে জুতা নিয়ে দৌড়ানোর নজির নয়। এর আগেও বেশ কয়েকবার এমন ঘটনা ঘটেছে। ২০১১ সালে বোস্টনে ইনডোর গেমসে ইথিওপিয়ার ডিজান গেব্রেস্কেল পুরুষদের ৩০০০ মিটার দৌড় জিতেছিলেন। সেবার প্রথম ল্যাপেই তিনি জুতা হারিয়েছিলেন। ২০১৫ সালে কেনিয়ার ইলিউদ কিপচোগির জুতার ইনসোল বেরিয়ে এসেছিল। সেটা নিয়ে দৌড়েও তিনি বার্লিন ম্যারাথন জিতেছিলেন।

কিউএনবি/রেশমা/১লা সেপ্টেম্বর,২০১৮ ইং/সকাল ৮:১৭