২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১২:১১

শরীয়তপুর জেলা বিএনপির সভাপতির পক্ষ থেকে নড়িয়ায় পদ্মার ভাঙ্গনে নিখোজ স্বজনদের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান

 

শরীয়তপুর সংবাদদাতা : শরীয়তপুরের নড়িয়ায় ভয়াবহ পদ্মার ভাঙ্গনে নিখোজ স্বজনদের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, শরীয়তপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আলহাজ্ব সফিকুর রহমান কিরন তার ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে নড়িয়ার প্রত্যেক নিখোজদের পরিবারকে নগদ ১২ হাজার করে টাকা, একটি নেয়ামূল কোরআন, একটি জায়নামাজ ও একটি তছবিহ প্রদান করা হয়। আজ বুধবার দুপুরে নড়িয়া উপজেলা প্রত্যেক নিখোজদের বাড়ী গিয়ে সাহায্য পৌছে দেয়া হয়।

নিখোজ ব্যাক্তিদের পরিবারের মাঝে সফিকুর রহমান কিরনের পক্ষ থেকে আর্থিক সাহায্য তুলে দেন নড়িয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি মুন্সি সামসুল আলম দাদন, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার ওমর ফারুক, জেলা বিএনপির উপদেষ্টা সদস্য টিএম আউয়াল।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নড়িয়া উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফরিদ আহম্মেদ রয়েল মাঝি, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মাস্টার নেছার উদ্দিন, জেলা বিএনপি নেতা মমতাজ উদ্দিন হাওলাদার, নড়িয়া উপজেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক বিএম আজিজুল হাকিম, নড়িয়া পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোঃ মোরশেদ মাঝি, সহ-সভাপতি সালাহ উদ্দিন ছৈয়াল, পৌরসভা যুবদলের সদস্য সচিব নুরুজ্জামান শেখ, মহিলাদল নেত্রী শাহিদা আক্তার প্রমুখ।

উল্লেখ্য গত ৭ আগস্ট দুপুরে হঠাৎ প্রচন্ড ¯্রােতে পদ্মার ভাঙ্গনে শরীয়তপুরের নড়িয়ায় সাধুরবাজার লঞ্চঘাট এলাকার বিশাল অংশ ধ্বসে পড়ে বেশ কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, একটি লঞ্চঘাট ও ঘাট সংলগ্ন বাজার নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এ সময় ঘটনাস্থলে থাকা অন্তত ৩০ থেকে ৩৫জন পদ্মা নদীতে পড়ে যায়।

স্থাানীয় লোকজন ঐ দিনই ২০জনকে উদ্ধার করে নড়িয়ার মুলফৎগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করে।এ ঘটনায় বরিসাল জেলার বাসিন্দা আইটেল মোবাইল কোম্পানীর এরিয়া ম্যানেজার আল আমিনসহ নড়িয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ১০ নিখোজ হয়।৭ দিন পর নিখোজদের মধ্যে মেঘনা নদীর চাঁদপুরের হাইচর আলুর বাজার এলাকায় আল আমিনের মরদেহ পাওয়া যায়। বাকি নিখোজদের কোন সন্ধান মিলেনি।

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/৩০শে আগস্ট, ২০১৮ ইং/বিকাল ৫:৫৪