১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৫৯

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ৫ মাসের অন্তসত্ত্বা

 

রাশিদুল ইসলাম,কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় উত্তর বাইটকামারী কওমী মাদ্রাসার মুহ্তামিম মাওলানা আব্দুল বাছেদ হুজুরের বিরুদ্ধে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ৫ মাসের অন্তসত্তা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।উপজেলার উত্তর বাইটকামারী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।ছাত্রী পাখিউড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়াশোনা করে।

আল কোরান শিক্ষা করার জন্য সাড়ে ৫মাস আগে ঐ কওমী মাদ্রাসার হুজুরের কাছে পড়তে যায় সে।সে সময় ঐ সুযোগে উত্তর বাইটকামারী গ্রামের মো. নিজামউদ্দিনের ছেলে কওমী মাদ্রাসার মুহ্তামিম মাওলানা আব্দ বাছেদ ঐ ছাত্রীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে সরে জমিনে গেলে এলাকাবাসী জানান, উত্তর বাইটকামারী গ্রামের সাদিনা পাগলার মেয়ে ও পূর্ব পাখিউড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঐ ছাত্রীকে আল্লাহ্র গজবের ভয় দেখিয়ে মাওলানা আব্দুল বাছেদ তাকে সাড়ে ৫মাস থেকে একটানা ধর্ষন করে আসছে। ঐ চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীর পেট বড় হয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে ২৯ আগষ্ট রৌমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে পরীক্ষা করে জানতে পারে সে ৫মাসের অন্তসত্তা।এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা ঝড় শুরু হয়েছে।

মেয়ের বাবা সাদিনা পাগলা জানান, আমি গরীব মানুষ। আমার মেয়েকে ৫মাসের গর্ভবতী করছে মাদ্রাসার হুজুর বাছেদ। আমি কার কাছে বিচার দিমু আমার বিচার কে করবো। গ্রামের বড় বড় দেওয়ানীরা হুজুরের পক্ষ নিয়া মিমাংসা হওয়ার জন্য চাপ দিতেছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. কাবেল উদ্দিন জানান, চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ৫মাসের অন্তসত্তার ঘটনা সম্পূর্ণ সত্য এলাকাবাসী বসে আপোষ মিমাংসা করার কথা শুনছি।এ বিষয়ে আমার কাছে কোন পক্ষ আসে নাই।তবে এব্যাপারে অভিযুক্ত ঐ হুজুরের বাড়িতে গেলে কাউকে পাওয়া যায়নি। এমনকি মাওলানা আব্দুল বাছেদ এর মোবাইল নাম্বারটিও ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর থেকে বন্ধ রয়েছে।পাশ্ববর্তী লোকজন জানান, ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর ঐ হুজুরসহ তার পরিবারের লোকজন ঘর-বাড়ি ছেড়ে গা ঢাকা দিয়েছে।

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/৩০শে আগস্ট, ২০১৮ ইং/বিকাল ৫:৩৪