২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৬:২৫

চৌগাছা হাসাপাতালের ডা. নাহিদ সিরাজের বিরুদ্ধে অফিস টাইমে ক্লিনিকে রোগী দেখার অভিযোগ

 

এম এ রহিম,চৌগাছা (যশোর) সংবাদদাতা : যশোরের চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. নাহিদ সিরাজের বিরুদ্ধে হাসপাতালের আউটডোরে রোগী না দেখে ক্লিনিকে রোগী দেখার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে রোগীর স্বজনরা ডাক্তার নাহিদ সিরাজের বিরুদ্ধে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসারের নিকট অভিযোগ করেছেন।জানা যায় শনিবার ডা. নাহিদ সিরাজের আউটডোর ডিউটি ছিল।তিনি বেলা ১১ টার দিকে রোগী দেখা শুরু করেন।মাত্র ৩০ মিনিট রোগী দেখে জরুরী কাজ আছে বলে হাসপাতালের বাইরে চলে যান।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় গত শনিবার দুপুর ১২টার সময় বেশকিছু রোগী হাসপাতালের ডাক্তার নাহিদ সিরাজের চেম্বারের সামনে অপেক্ষা করছিলেন।কিন্তু ডাক্তার নাহিদ সিরাজ তখন চেম্বারে ছিলেন না।হাসপাতালে অপেক্ষামান রোগী উপজেলার হাকিমপুর ইউনিয়নের মাঠচাকলা গ্রামের শারমিনের (২৬)অবস্থা গুরুতর হয়ে পড়ে।

এসময় স্বজনরা খোজ নিয়ে জানতে পারেন ডাক্তার একটি ক্লিনিকে রোহগী দেখছেন।তারা ডাক্তারের স্মরণাপন্ন হলে সহকারির মারফত জানিয়ে দেন কিছু সময় পরে হাসপাতালে রোগী দেখবেন।পরে শারমিনের স্বজন স্কুল শিক্ষক আযম আশরাফুল বিষয়টি হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আওরঙ্গজেবের কাছে অভিযোগ করেন।তিনি ওই রোগীকে চিকিৎসাপত্র দেন এবং বিষয়টি তৎক্ষণাৎ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. সেলিনা বেগমকে অবহিত করেন।

এ বিষয়ে বক্তব্য নেয়ার জন্য শনিবার থেকেই ডা. নাহিদ সিরাজ এবং ডা. আওরঙ্গজেবের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। রোববার হাসপাতালে গিয়ে ডা. নাহিদ সিরাজকে না পেয়ে আবারো তার সেল ফোনে কল দিলে এই প্রতিবেদককে হুমকি দিয়ে বলেন বিষয়টি যদি আপনি প্রমাণ করতে না পারেন তাহলে আপনার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

তখন টিএইচও ডা. সেলিনা বেগমকে উদ্ধৃত করে বলা হয় আপনাকে ডেকে সতর্ক করেছেন এটিও অসত্য? তখন তিনি আর কোন কথা বলেন নি।এর আগে ডা. ইমদাদুল হক রাজু চৌগাছা হাসপাপাতালের টিএইচওর দায়িত্ব পালনকালেও এমন অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে সতর্ক করা হয়েছে বলে জানা গেছে।এরপরও তিনি একই কাজ করে চলেছেন।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আওরঙ্গজেব বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন ওই রোগীর স্বজন আমাকে এবিষয়ে অভিযোগ করলে আমি তৎক্ষণাৎ বিষয়টি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিনা বেগমকে জানিয়েছি।উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. সেলিনা বেগম বলেন আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আওরঙ্গজেবের নিকট থেকে শুনে আমি তাকে আমার অফিসে ডেকে এবিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছি।ভবিষ্যতে যেন এরকম কোন কাজ তিনি না করেন।

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/২৭শে আগস্ট, ২০১৮ ইং/সন্ধ্যা ৭:৪৭