১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:১৩

ঘাটে আটকে আছে ৭ শতাধিক যানবাহন

 

আব্দুল্লাহ আল মামুন,মাদারীপুর প্রতিনিধি : ১২ ঘন্টা বন্ধ থাকার পর কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে সীমিত আকারে ফেরি চলাচল শুরু করেছে। নাব্য সংকটের কারনে রোববার রাত ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ফেরি চলাচল পুরোপুরি বন্ধ রাখা হয়।সকাল ৮টার পর থেকে ২১ টি ফেরির মধ্যে মাত্র ১০টি ফেরি চলাচল করলেও এতে চরম দুর্ভোগ বাড়ে যাত্রী ও চালকদের।ঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় আছে প্রায় ৭ শতাধিক যানবাহন।ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় লঞ্চ ও স্পীডবোটে যাত্রীদের প্রচন্ড চাপ রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্রে জানা গেছে, পদ্মা নদীতে নাব্য সংকটের কারণে গত শুক্রবার থেকেই ব্যাহত হচ্ছে ফেরি চলাচল।ঘাটে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করে ছোট গাড়িগুলো পার করা হলেও অনেক গাড়ি বিকল্পরুট দৌলতদিয়া-পাটুরিয়াতেও ফিরে গেছে।এরপরও ভোগান্তি রয়েছে কাঁঠালবাড়ী ঘাট এলাকায়।১২ ঘণ্টা পর ফেরি চলছে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী রুটে।

মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক আব্দুল মমিন জানান, গত দুই সপ্তাহ ধরে পদ্মা নদীর লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে নাব্য তীব্র আকার ধারণ করে।এতে ব্যাহত হয় এই নৌরুটে ফেরি চলাচল।নদীতে ড্রেজিং কাজ চলমান থাকায় রবিবার রাত ৮টা থেকে সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়।পরে সোমবার সকাল ৮টা থেকে ২১টি ফেরির মধ্যে ১০টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে।

এদিকে দীর্ঘ সময় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় ঘাটে আটকা পড়েছে ৭ শতাধিক যানবহান।সোমবার সকাল ৮টায় কাঁঠালবাড়ী ঘাটে থাকা একটি কে-টাইপ ফেরি শিমুলিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে গেছে এবং শিমুলিয়া থেকে ফেরিগুলো কাঁঠালবাড়ী ঘাটে আসছে।আশা করি, এতে ফেরি চলাচল কিছুটা সচল হবে।

ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় চাপ বেড়েছে লঞ্চ ও স্পীডবোটে।জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অনেকেই পাড়ি দিচ্ছেন উত্তাল পদ্মা নদী।এদিকে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় ঘাট এলাকায় প্রায় ৭ শতাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/২৭শে আগস্ট, ২০১৮ ইং/সন্ধ্যা ৭:২৮