১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:৫৪

২০ হাজার মানুষের যাতায়াতের ভরসা ঝুঁকিপূর্ণ কাঠের সেতু

ডেস্ক নিউজ: বোরহানউদ্দিন উপজেলার বড় মানিকা ইউপির উত্তর বাটামারা ৬নং ওয়ার্ডে প্রবেশ পথে ১৫০ ফুট দৈর্ঘ্যের চন্দন বাড়িয়া খালের ওপর একমাত্র কাঠের ব্রিজটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ছে। সংস্কারের অভাব, বর্ষার পানিতে কাঠ ভিজে পচে যাওয়া. পেড়েক থেকে কাঠ ছুটে যাওয়ায় এ নাজুক আবস্থার সৃষ্টি। ফলে ৫ ও ৬নং ওয়াডের্র ২০ হাজার মানুষের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম ব্রিজটি যে কোন মুহূর্তে ভেঙে পড়তে পারে। জেলে সম্প্রদায়, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ও ব্যবসায়ীদের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম ওই ব্রিজটি। ২০১৫ সালে পারাপারের সময় খালে পড়ে ইউছুব (৫০) মারা যায়। এসব তথ্য স্থানীয় এলাকাবাসীর কাছ থেকে প্রাপ্ত।
২০১৩ সালের মেঘনার প্লাবনে ওই সাঁকোটি নাজুক হয়ে পড়ে। পরিষদের অর্থায়নে এর পর সংস্কার করা হয়। ২০১৫ সালে ওই সাঁকো থেকে পড়ে ইউছুব নামক এক লোক মারা যায়। মাঝে মাঝে সাঁকো পারাপারের সময় খালে পড়ে অনেক লোক আহত হয়। এরপর স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ আলী আজম মুকুলের অর্থায়নে এবং বড় মানিকা ইউপির চেয়ারম্যান মোঃ জসিম উদ্দিন হায়দারের সহযোগিতায় ওই স্থানে একটি কাঠের ব্রিজ নির্মাণ করা হয়।
৬নং ওয়ার্ডের বজলুর রহমানের ছেলে নয়ন মাওলানা, গনি মিয়ার ছেলে নাজিম, ব্যবসায়ী হারুন অর রশিদ, জুলহাস বলেন, একজনের মৃত্যুর পর সাঁকো ১৫০ মিটার দীর্ঘ কাঠের ব্রিজ হয়েছে। বর্তমানে কাঠের ব্রিজটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ২০ হাজার মানুষের পারাপারের অনুপোযোগী হয়ে পড়ছে। উপজেলা থেকে দোকানিদের মালামাল এলাকায় মাথায় করে আনতে হয় মেঘনা ইলিশ শিকারি জেলে, ঢাকাগামী লঞ্চের যাত্রীরা এ পথে চলাচল করে। মানুষের ব্যবসা-বাণিজ্য নষ্ট হচ্ছে শুধু মাত্র এ ব্রিজটির কারণে।
স্কুল শিক্ষক আব্দুল হক, কলেজ শিক্ষার্থী শাহরিয়ার হিমু, তানজিল, জোবায়ের জানান, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য জরুরি ভিত্তিতে নির্মাণ করা দরকার।
বিবি কুলসুম, সাদিয়া বেগম, রেহানা, আমেনা, তাসফিয়া জানান, এলাকায় কোন মানুষ অসুস্থ কিংবা মহিলাদের ডেলিভারিজনিত কারণে অসুস্থ হলেও কোন অ্যাম্বুলেন্স কিংবা মাইক্রো প্রবেশ করতে পারছে না  ব্রিজের কারণে।
৬নং ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, চন্দন বাড়িয়া খালের ব্রিজটি বর্তমানে আমাদের গলার কাটা।
বড় মানিকা ইউপির চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন হায়দার জানান, দীর্ঘদিন ধরে ব্রিজটির করুণ অবস্থা। মাঝে মাঝে পরিষদের অর্থায়নে সংস্কার করা হয়।


কিউএনবি/অনিমা/২৭শে আগস্ট, ২০১৮ ইং/দুপুর ১২:৩০