১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:২৩

কাচের টুকরা দিয়ে বুক-পেট ফেড়ে হত্যা!

 

ডেস্কনিউজঃ শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার চরমাইজারা গ্রামের সাইফুল ইসলাম পাইক (১৬) নামের এক স্কুলছাত্রকে ভাঙা কাচের টুকরা দিয়ে বুক ও পেট ফেড়ে হত্যা করা হয়েছে।

সে চরমাইজারা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

গতকাল শনিবার রাতে উপজেলার চরমাইজারা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গোসাইরহাট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ওই গ্রামের জামাল সরদার ও তাঁর ভাই আবু বক্করকে গ্রেপ্তার  করেছে গোসাইরহাট থানা পুলিশ।

মামলার বরাত দিয়ে গোসাইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ বি এম মেহেদী মাসুদ আজ রোববার দুপুরে বলেন, চরমাইজারা গ্রামের সাইফুল ইসলামের মামা জুয়েল সরদার সৌদি আরবে থাকেন। সেখানে জামাল ও আবু বক্করের ভাই কামাল সরদারও আছেন। সেখানে জুয়েলের সঙ্গে কামালের বিরোধ হয়।

কামাল বর্তমানে সৌদি আরবের জেল হাজতে আছেন। এ নিয়ে এলাকায় কামালের ভাই জামাল ও জুয়েলের ভাগ্নে সাইফুলের মধ্যে ঝগড়া হয়।

সম্প্রতি এ ঘটনা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপত্তিকর কিছু কথা লিখে একটি পোস্ট দেন কামালের আরেক ভাই আবু বক্কর। ওই পোস্ট নিয়ে সাইফুল ও আবু বক্করের মধ্যে পুনরায় ঝগড়া হয়।

ওসি এ বি এম মেহেদী মাসুদ আরো বলেন, এর জের ধরে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সাইফুল স্থানীয় ভিমখিল বাজারে গেলে জ্ঞানভাণ্ডার লাইব্রেরির সামনে তাকে মারধর করে জামাল ও আবু বক্কর। একপর্যায়ে একটি কাচের টুকরা দিয়ে সাইফুলের বুক ও পেটে আঘাত করে। তাকে উদ্ধার করে গোসাইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করা হয়। রাত পৌনে ৯টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাইফুল মারা যায়।’

এ সময় সৌরভ নামে সাইফুলের এক আত্মীয়ও আহত হয়। আহত সৌরভ গোসাইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ঘটনায় সাইফুল ইসলামের বাবা আলমগীর পাইক বাদী হয়ে গোসাইরহাট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় জামাল সরদার ও তাঁর ভাই আবু বক্করসহ নয় ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। পুলিশ রাতেই হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে জামাল সরদার ও আবু বক্করকে গ্রেপ্তার করেছে। মামলার অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান ওসি এ বি এম মেহেদী মাসুদ।

সাইফুলের বাবা আলমগীর পাইক বলেন, ‘আমার শ্যালক জুয়েলের সঙ্গে ওদের কী হয়েছে তা আমরা জানি না। তারপরও সেই বিষয় নিয়ে তারা আমাদের সঙ্গে বিরোধ শুরু করেছে। পাষণ্ডরা কাচের টুকরো দিয়ে আমার ছেলেকে হত্যা করেছে। আমি আমার ছেলের হত্যাকারীদের বিচার চাই।’

 

কিউএনবি/বিপুল/২৬শে আগস্ট, ২০১৮ ইং/ সন্ধ্যা ৬:৩৩