২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৪:২৩

শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যা বললেন ইমরান

 

ডেস্কনিউজঃ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টির প্রধান ইমরান খান। দেশটির জাতীয় পরিষদের ভোটে শুক্রবার ২২তম প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।

ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির ভোটে প্রার্থী ছিলেন দুইজন। একজন হচ্ছেন, পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) পার্টির নেতা ইমরান খান এবং অপরজন পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) এর প্রেসিডেন্ট শাহবাজ শরিফ।

শুক্রবার দুপুর সাড়ে তিনটার দিকে জাতীয় পরিষদের নব নির্বাচিত প্রতিনিধিরা উপস্থিত হওয়ার পর ভোট শুরু হলে প্রত্যাশিতভাবেই তাতে জিতে যান ক্রিকেটার থেকে রাজনীতি বনে যাওয়া ইমরান খান। তাকে ভোট দেন ১৭৬ সদস্য। অন্যদিকে, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী শাহবাজ পান ৯৬ ভোট।

শনিবার প্রেসিডেন্ট ভবনে তাকে শপথ বাক্য পাঠ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, দেশটির অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধানমন্ত্রী, জাতীয় পরিষদের স্পিকার ও তিন বাহিনীর প্রধান। তবে বিরোধী দলের কাউকে শপথ অনুষ্ঠানে দেখা যায়নি।

শপথ অনুষ্ঠানের বাড়তি আকর্ষণ ছিল ভারতের সাবেক ক্রিকেটার নভজত সিং সিধু। একসময়ের ইমরান খানের ক্রিকেট মাঠের বন্ধু সিধু আশা প্রকাশ করেন, ভারত-পাকিস্তানের বৈরী সম্পর্ক ঘোচাতে কাজ করবেন পাকিস্তানের নয়া প্রধানমন্ত্রী।

শনিবার (১৮ আগস্ট) সকাল ১০টার দিকে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্যদিয়ে শুরু হয় ইমরান খানের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান। পরে পবিত্র কোরআন থেকে তেলওয়াত শেষে তাকে আনুষ্ঠানিক শপথ বাক্য পাঠ করান প্রেসিডেন্ট মামনুন হুসাইন।

পাকিস্তান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, ‘সবার আগে, আমার প্রধান কাজ হবে জবাবদিহিমূলক শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করা। যারা দেশের সম্পদ লুট করে বিদেশে পাচার করেছে, তাদেরকে শিগগিরই বিচারের মুখোমুখি করা হবে।’

১৯৫২ সালে লাহোরের পাশতুন পরিবারে জন্ম নেয়া ইমরান খান; ১৯৯২ সালে পাকিস্তানেকে ক্রিক্রেট বিশ্বকাপের শিরোপা এনে দেন। চার বছরের মাথায় ১৯৯৬ সালে পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ- বা মুভমেন্ট ফর জাস্টিস নামের দল গঠনের মধ্যদিয়ে রাজনীতির মাঠে নামেন তিনি।

২০০২ সালের জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিয়ে মাত্র একটি আসনে জয় পেলেও দল গঠনের ২২ বছরের মাথায় দেশের অধিনায়ক হলেন ৬৫ বছর বয়সী সাবেক এ তারকা ক্রিকেটার। তবে জঙ্গিবাদ বিস্তার, পানি সঙ্কট, অর্থনৈতিক স্থবিরতা, অদক্ষ জনসম্পদ এবং প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক টানাপড়ের কারণে সরকার পরিচালনায় ইমরান খানকে বেশ চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

 

কিউএনবি/বিপুল/১৮ই আগস্ট, ২০১৮ ইং/ রাত ৮:৫০