২৪শে জানুয়ারি, ২০১৯ ইং | ১১ই মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:২৬

সিলেটে স্থগিত কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু

 

ডেস্ক নিউজ : সিলেট সিটি করপোরেশনের ১৬টি কেন্দ্রের পুনরায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। এর মধ্যে দুটি কেন্দ্রের পুন:ভোটের ফলাফলের মধ্য দিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই মেয়র প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারিত হবে।    

আজ শনিবার সকাল ৮টা থেকে এসব কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ভোট চলবে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

গত ৩০ জুলাই নির্বাচনের দিন অনিয়মের কারণে নগরীর গাজী বুরহানউদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছিল নির্বাচন কমিশন। এখানে মেয়র ছাড়াও কাউন্সিল ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে পুনঃভোট গ্রহণ হচ্ছে।

এ দুই কেন্দ্র ছাড়া ভোটের ফলাফল সমান হয়ে যাওয়ায় সংরক্ষিত ৭ নম্বর (১৯, ২০ ও ২১) ওয়ার্ডের ১৪টি কেন্দ্রে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদেও পুনঃভোট হচ্ছে আজ।

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান বলেন, ভোট সুষ্ঠু করতে নিরাপত্তা জোরদার করার পাশাপাশি সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ভোটারদের নিরাপত্তায় পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার সদস্যরা মাঠে থাকছেন। পাশাপাশি দুই প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া নির্বাহী হাকিমের নেতেৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত আছে ভোটের মাঠে।

গত ৩০ জুলাইয়ের নির্বাচনে ১৩৪ কেন্দ্রের মধ্যে ১৩২ কেন্দ্রের ভোট গণনায় বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর প্রাপ্ত ভোট ৯০ হাজার ৪৯৬। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান পান ৮৫ হাজার ৮৭০ ভোট। ফলে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর চেয়ে চার হাজার ৬২৬ ভোটে এগিয়ে আছেন।

স্থগিত হওয়া গাজী বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটার দুই হাজার ২২১ জন; আর হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটার দুই হাজার ৫৬৬ জন। সব মিলিয়ে এই দুই কেন্দ্রে ভোটের চার হাজার ৭৮৭ জন।

দুই প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান স্থগিত দুই কেন্দ্রের ভোটের চেয়ে কম হওয়ায় ওই দুই কেন্দ্রে পুনঃভোটের আয়োজন করা হয়।

এদিকে বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী বৃহস্পতিবার ঢাকায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে দেখা করে দুই কেন্দ্রের পুনঃভোটে কোনোভাবেই যেন মৃত ও প্রবাসীদের ভোট না পড়ে সে বিষয়ে নজর দেওয়ার অনুরোধ জানান। সিলেটে যে সব ভোটার মারা গেছেন এবং প্রবাসে আছেন তাদের নামের একটি তালিকাও তিনি কমিশনে জমা দেন।

আরিফুল হকের দেওয়া তথ্য মতে, সিসিকের স্থগিত হওয়া গাজী বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দুই ২২১ ভোটারের মধ্যে মারা গেছেন ৮০ জন ও বিদেশে আছেন ৮০ জন।  অন্যদিকে স্থগিত হওয়া হবিনন্দী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের  দুই ৫৬৬ ভোটারের মধ্যে মারা গেছেন ৮০ জন ও প্রবাসে আছেন ৮০ জন এবং ওয়ার্ড ছেড়ে চলে গেছেন আরো ২৫/৩০ জন।

এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান বলেন, নির্বাচনের আগে কাউকে বিজয়ী ঘোষণা করার কথা আইনে নেই। ভোটার তালিকা নিয়ে কথা বলাও আমার এখতিয়ার বহির্ভূত।

ভোটের ব্যবধান আর স্থগিত দুই কেন্দ্রের ভোটার বিবেচনায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের জয়ের আশা ক্ষীণ। তারপরও গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে ভোটে অংশ নেওয়ার কথা বলেছেন তিনি।

কামরান বলেন, আওয়ামী লীগ গণতান্ত্রিক ধারাকে বিশ্বাস করে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে আমি ভোটে অংশ নেব। আশা করছি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট হবে।

 

 

কিউএনবি/রেশমা/১১ই আগস্ট, ২০১৮ ইং/সকাল ৯:০০