২০শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৮:১৫

জৈন্তাপুরে অবহিতকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

 

মোঃ রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধি : সিলেটের জৈন্তাপুরে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে ২৪/৭ (সার্বক্ষণিক) স্বাভাবিক প্রসব সেবা জোরদারকরণ বিষয়ক কর্মশালা গতকাল ৫ আগষ্ট রবিবার সকাল ১০ টায় জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের এমসিএইচ সার্ভিসেস ইউনিটের আয়োজনে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ সিলেটের পরিচালক (যুগ্ন সচিব) মোঃ কুতুব উদ্দিনের সভাপতিত্বে, এসসিএইচ ইউনিট প্রোগ্রাম ম্যানোজার এবিএম সামসুদ্দিন আহমেদ এর উপস্থাপনায় অবহিতকরণ কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জনসংখ্যা ও পরিবার কল্যাণ আইন এর অতিরিক্ত সচিব কাজী আ. খ. ম. মহিউল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার সিলেট বিভাগের পরিচালক (যুগ্ম সচিব) মোঃ মতিউর রহমান, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) মোঃ আজম খান, পরিচালক এমসিএইচ সার্ভিসেস ও লাইন ডাইরেক্টর এমসিআরএইচ ডাক্তার মোহাম্মদ শরীফ, ডাক্তার উমরগুল আজাদ, জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, জৈন্তাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌরীন করিম, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুসরাত জাহান চৌধুরী, জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শ্রী জয়মতি রানী, ইউপি চেয়ারম্যান মঞ্জুর এলাহী সম্রাট, এখলাছুর রহমান, শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল, বাহারুল আলম বাহার, আমিনুর রশিদ, জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. সুবল চন্দ্র বর্মণ, জৈন্তাপুর প্রেসক্লাবের সদস্য গোলাম সরওয়ার বেলাল প্রমুখ।

বক্তরা বলেন- জৈন্তাপুরে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে ২৪/৭ (সার্বক্ষণিক) স্বাভাবিক প্রসব সেবা আরও জোরদারকরা। মাতৃমৃত্যু ও শিশু মৃত্যুর হার কমানো এবং নিরাপদ প্রাতিষ্ঠানিক প্রসবকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে এই কর্মশালার আয়োজন।

বাণিজ্যিক হাসপাতালে করা অপ্রয়োজনীয় সিজারিয়ান সেকশানের হার কমবে বলে জানান আলোচকরা।স্থানীয় পর্যায়ে জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ততার আরো বেশি মা যাহাতে প্রসবসেবাসহ অন্যান্য সেবা সহজে পেতে পারে সেদিকে গুরুত্বারোপ করা হয় এবং ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রকে শক্তিশালী করে স্বাভাবিক প্রসব সেবা নিশ্চিত করনে সর্বাত্মক সহযোগিতার আহবান জানান।

পরিচালক এমসিএইচ সার্ভিসেস ও লাইন ডাইরেক্টর এমসিআরএইচ ডাক্তার মোহাম্মদ শরীফ বলেন-পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সার্বিক তত্ত্বাবধানে উপজেলা পর্যায়ের এ কর্মশালা গুলো বাস্তবায়িত হচ্ছে। যার মাধ্যমে জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় জনগনের অংশীদারিত্ব বাড়বে বলে আশা করা যায়।

উপজেলায় প্রাতিষ্ঠানিক স্বাভাবিক প্রসব সেবা কে মানুষের দোরগোড়ায় নিয়ে যেতে তারা নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়া জরুরী প্রসুতি সেবায় গর্ভবর্তী মা এবং তার পরিবারকে অর্থ সঞ্চয়ের বিষয় উদ্ধুদ্ধ করার লক্ষ্যে মায়ের ব্যাংক প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।মায়ের ব্যাংক কার্যক্রমটি মূলত দরিদ্র গর্ভবর্তী মা’দের মধ্যে বিতরন করা হবে।এ কর্মসূচীটি প্রসব সেবার পরিবারের সকলকে আরও দায়িত্বশীল করতে অনুপ্রাণিত করবে এবং জরুরী প্রসুতীদের আর্থিক সংকট দূর করবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনসংখ্যা ও পরিবার কল্যাণ আইন এর অতিরিক্ত সচিব কাজী আ. খ. ম. মহিউল ইসলাম বলেন- ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র গুলো ও এর সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের আধুনিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।কেন্দ্র গুলোর অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে প্রসুতি মা ও নবজাতকের স্বাস্থ্যের দিক বিবেচনা করে দ্রুত সংস্কার কাজ করা হবে।তিনি স্বাস্থ্য পরিদর্শীকাদের উদ্দেশ্য করে বলেন আপনাদের কাজের জন্য গোঠা জাতী গর্বিত।

তোমাদের কারনে জৈন্তাপুর উপজেলা বিভাগের মধ্যে প্রথম স্থান অর্জন করেছে এবং কেন্দ্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে গ্রহনযোগ্যতা অর্জন করেছে। তিনি স্বাস্থ্য পরিদর্শকরা প্রতিটি বাড়ীতে গিয়ে বুঝাতে হবে বাড়ীতে নয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে সন্তানের নিরাপদ ভূমিষ্ট করান। তিনি আরও বলেন সিরাজের প্রসুতীতে আর কোন মায়ের মৃত্যু নয়, স্বাভাবিক প্রসুতীতে মায়েদের নিশ্চয়তা চাই।

 

 

 

 

কিউএনবি/রেশমা/৫ই আগস্ট, ২০১৮ ইং/রাত ৮:৪৮