২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৫:৫৫

রাজশাহীতে ১০০ দিনের মধ্যেই উন্নয়ন শুরু- লিটন

 

নজরুল ইসলাম তোফা : রাজশাহী সিটি নির্বাচনে এ. এইচ. এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, ১৩৮ কেন্দ্রের প্রত্যেকটি কেন্দ্রে যথাযথ ভোট গণনা শেষে নৌকা মার্কা পেয়েছে ১ লাখ ৬৬ হাজার ৩৯৪ ভোট। আবার তাঁরই নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির নেতা মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ধানের শীষ প্রতীকে ৭৮ হাজার ৪৯২ ভোট পেয়েছে।প্রাপ্ত ভোটের ব্যবধান ৮৭ হাজার ৯০২ ভোট।তিনি বিজয়ী হয়ে বলেছেন, নগরীর হারানো সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনতে চান।নগর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও ঝকঝকে চকচকে করাটা হবে তাঁর প্রথম কাজ।

এরপর থেমে থাকা উন্নয়ন প্রকল্প তা সচল করেই নগরীর তরুণ প্রজন্মের নানা প্রকার কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবেন।এছাড়াও তাঁর নির্বাচনী ইশতেহারে যা উল্লেখ করেছেন সেই গুলো ধাপে ধাপে বাস্তবায়ন করবেন। আগামী ১০০দিনের মধ্যেই রাজশাহী নগরীকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন সদ্য নির্বাচিত মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন।

এও বলেন, সাবেক সিটি মেয়র “মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল” চাইলেও তাঁকে সঙ্গে নিয়েই আধুনিক নগরী গড়ার লক্ষে এক সঙ্গে কাজ করতে পারবেন। রাজশাহীর এমন এ নগরীর মানুষসহ বিভিন্ন পেশা এবং সংগঠনের নেতাকর্মীরা তাঁকে শুভেচ্ছা জানাতে আসলে এ কথাগুলো তুলে ধরেন। তিনি জয়ী হয়েই আরও অনেক কথা বলেছেন, গত ৫ বছরে বুলবুল রাজশাহীর কোনো উন্নয়ন করেনি।

২০১৩সালে তিনি মেয়র নির্বাচিত হলে এতদিনে বহু উন্নয়ন হতো। সুতরাং বলাই যায় যে, তিনি মেয়র না হওয়ায় রাজশাহী বাসীর জীবন থেকে পাঁচটি বছর নষ্ট হয়ে গেছে। কেনো উন্নয়নই হয়নি।তিনি বলেন, শুধুই এই গত পাঁচ বছর চেয়ে চেয়ে দেখেছেন, তাঁর কিছু যেন করার ছিলনা।আর রাজশাহীকে পিছিয়ে দিতে চান না।উন্নয়ন করতে চান।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের অসংখ্য ভালবাসায় তিনি সদাসর্দারই সন্তুষ্ট ছিলেন।তার সঙ্গে বর্তমানে রাজশাহীর সকল পেশা ও শ্রেণীর জনগণই নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে ভালোবাসা জ্ঞাপন করেছেন। সুতরাং তিনি এখন এ রাজশাহী সিটির উন্নয়ন করার পাশাপাশি সকলের দোয়া চান।

এদিকে রাজশাহীর স্থানীয় এমপি ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেছেন রাজশাহী বাসীর জনগণ খুুব স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পেরেছেন আওয়ামী লীগের প্রতীক নৌকা মার্কায়।এত সুন্দর পরিবেশে ভোট হয়েছে তিনি আগে কখনোই দেখেন নি বলে জানান।রাাজশাহীর এমপি ফজলে হোসেন বাদশা আরও বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ স্বাভাবিক সুশৃঙ্খল ও সুষ্ঠু হওয়ায় আগামী এমপি নির্বাচনটাও ভালো ভাবে হবে।

আর এই রাাজশাহী সিটির মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ভোটারদের কাছে যে গুলো অঙ্গীকার করেছেন তা অবশ্যই বাস্তবায়ন করতে পারবেন।

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/১লা আগস্ট, ২০১৮ ইং/সন্ধ্যা ৭:১১