১৬ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ১লা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৮:৩০

সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন : বুধবার অনুষ্ঠিত হচ্ছে নানিয়ারচরের উপ-নির্বাচন

 

আলমগীর মানিক,রাঙামাটি : সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যদিয়ে অনুষ্টিত হতে যাচ্ছে রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচন।

পাহাড়ি-বাঙ্গালী নারী পুরুষ ৩২ হাজার ৮৫৪জন ভোটারের প্রত্যক্ষ ভোটদানের লক্ষ্যে ব্যাপক নিরাপত্তা আয়োজনের মাঝেই মঙ্গলবার সকাল থেকেই রাঙামাটি থেকে নানিয়ারচরে পাঠানো হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানাগেছে, নানিয়ারচরের ৪টি ইউনিয়নের ১৪টি কেন্দ্রের ৮৩টি ভোট কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।নির্বাচনে ১৪জন প্রিজাইডিং অফিসারের নেতৃত্বে ৮৩জন সহকারি প্রিজাইডিং অফিসার এবং ১৬৬ জন পোলিং অফিসার ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়ায় দায়িত্ব পালন করবেন।

প্রায় লক্ষাধিক জনসংখ্যার বসবাস নির্ভর নানিয়াচর উপজেলায় এবারের নির্বাচনে নারী ভোটার ১৫ হাজার ৮৪৬ এবং পুরষ ভোটারের সংখ্যা ১৭ হাজার ৮ জন মিলে সর্বমোট ভোটার হলো ৩২ হাজার ৮শ ৫৪ জন।

চলতি বছরের গত ৩রা মে নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট শক্তিমান চাকমা সন্ত্রাসীদের গুলিতে নির্মমভাবে নিহত হওয়ার পর উক্ত আসনটিতে ২৫শে জুলাই উপনির্বাচন ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

দুইদিনের ব্যবধানে ৬টি হত্যাকান্ডসহ ব্যাপকহারে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড সংগঠিত হওয়া নানিয়ারচর উপজেলাকে ইতিমধ্যেই অত্যাধিক ঝুঁিকপূর্ন উপজেলা হিসেবে চিহ্নিত করে এই উপজেলায় এবারের নির্বাচন সুষ্ঠ পরিবেশে অনুষ্ঠানে উপজেলাজুড়ে মাঠে নামানো হয়েছে অন্তত ৭শতাধিক নিরাপত্তাকর্মী ও শতাধিক কর্মকর্তাকে।

সশস্ত্র তৎপরতার মুখে নিরাপত্তাহীনতার কারনে এবারের এই উপনির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগসহ জাতীয় রাজনৈতিক দলগুলোর পক্ষ থেকে কোনো প্রার্থী অংশগ্রহণ করেনি।স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে একজন নারীসহ দু’জন পুরুষ প্রার্থী উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করছে।

তাদের মধ্যে দোয়াত কলম প্রতিকে কল্পনা চাকমা, আনারস প্রতিকে প্রগতি চাকমা, কাপ-পিরিচ প্রতিকে প্রণতি চাকমা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্ধিতা করলেও মূলতঃ প্রণতি ও কল্পনা চাকমা উভয়েই পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট ইউপিডিএফ সমর্থিত।

অপরদিকে আনারস প্রতিকের প্রগতি চাকমা এমএন লারমা আদর্শিক পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (সংস্কারপন্থী জেএসএস) এর সমর্থিত বলে জানাগেছে।এদিকে, নির্বাচনের ভোটগ্রহণের মাত্র একদিন আগে সোমবার সকাল ১০টার দিকে নানিয়াচর উপজেলা সদর থেকে ছায়াধন চাকমা(৪৫) নামে এক ব্যক্তিকে অপহরণ করা হয়েছে বলে দাবি করেছে মুখোশ বাহিনী প্রতিরোধ কমিটি।

সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই দাবি করেন নব্য মুখোশ বাহিনী প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক জ্যোতি লাল চাকমা। অপহৃত ছায়াধন চাকমার বাড়ি উপজেলার সাপমারা গ্রামে।

তাঁর পিতার নাম তুষ্টমনি চাকমা উল্লেখ করে সকাল ১০টার দিকে নানিয়ারচর বাজারে চাল বিক্রি করার সময় ঝিমিত চাকমার নেতৃত্বে নব্য মুখোশ ও সংস্কারপন্থী জেএসএস-এর ৪ জন সন্ত্রাসী অস্ত্রের মুখে ছায়াধন চাকমাকে অপহরণ করে তাদের আস্তানা গুল্যাছড়ির দিকে নিয়ে যায় বলে বিবৃতিতে দাবি করা হয়।

এদিকে বিষয়টি সম্পূর্ন রাজনৈতিক ষ্ট্যান্ডবাজি ও মিথ্যাচার বলে মন্তব্য করেছেন নানিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল লতিফ।অপহরনের মতো ঘটনা ঘটে থাকলে তারা বা অপহৃতের পরিবারের সদস্যরা থানা কোনো অভিযোগ দেয়না কেন?

এমন প্রশ্ন তুলে জনাব আব্দুল লতিফ বলেন, নানিয়ারচর থানা যতক্ষণ পর্যন্ত অভিযোগ পাওয়া না যায়, ততক্ষণ পর্যন্ত এটাকে মিথ্যাচার হিসেবেই বিবেচিত করা হবে। তিনি বলেন, এই ধরনের মিথ্যাচার সুষ্ট নির্বাচনকে বানচালের ষড়যন্ত্রও হতে পারে।

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/২৪শে জুলাই, ২০১৮ ইং/সন্ধ্যা ৭:০৭