২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:৫১

শ্রম আইনে মামলার প্রতিবাদে রাঙামাটিতে ব্যবসায়িদের সংবাদ সম্মেলন

 

আলমগীর মানিক,রাঙামাটি : শ্রম আইন অমান্য করার অভিযোগে রাঙামাটি শহরের ছয়জন ব্যবসায়ির বিরুদ্ধে শ্রম অধিদপ্তর কর্তৃক দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার করা নাহলে কঠোর কর্মসূচীর ঘোষণা দিয়েছে নবগঠিত ব্যবসায়ি সংগঠন রাঙামাটি ব্যবসায়ি ফেডারেশন এর নেতৃবৃন্দ।

আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে “নিরীহ” ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবিও জানিয়েছেন রাঙামাটি শহরের সকল ব্যবসায়ী সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত রাঙামাটি ব্যবসায়ী ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দ। সোমবার সকালে রাঙামাটি কাঠ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির হলরুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ এই হুশিয়ারী দেন। ব্যবসায়িরা দাবি করেন, শ্রম অধিদপ্তরের কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনের কর্মকর্তা তপন বিকাশ তঞ্চঙ্গ্যা তাদের হয়রানী করছে।

এরই আলোকে রাঙামাটির বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের হয়রানি ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলার প্রতিবাদে উক্ত সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়। এসময় ব্যবসায়ী ফেডারেশনের আহবায়ক হাজী মোঃ জহির আহমদ, যুগ্ম আহবায়ক হাজী মো: আনোয়ার মিয়া বানু, সোহাশীষ চাকমা, ডা: রূপম দেওয়ান, মো: হেলাল উদ্দিন, সদস্য সচিব মোঃ কামাল উদ্দিন ও অর্থ সচিব এম,এস জাহান লিটনসহ ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন। তবে তপন বিকাশ তঞ্চঙ্গ্যার দাবি করেছেন, সংশ্লিষ্ট্য আইনের আওতায়ই ওই ব্যবসায়িদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ বলেন, কর্মচারী ও ব্যবসায়ীদের সর্বসম্মতিক্রমে প্রতি শুক্রবার দোকান বন্ধ ও ছুটি সংক্রান্ত নীতিগত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতি শুক্রবার দোকান বন্ধ রাখার পরও অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে শহরের বেশ কয়েকটি দোকান মালিকের উপর লাইসেন্সের নামে বিভিন্ন অংকের টাকা নেয়ার ব্যাপারে প্রতিবাদ করা এবং কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শক তপন বিকাশ তঞ্চঙ্গ্যা তার দাবীকৃত রাঙামাটির সকল ব্যবসায়ী সমিতির থেকে তিন লক্ষ টাকা ঘুষ পরিশোধ না করার কারণে অন্যায় ভাবে এক পেশীয় আইন জারির মাধ্যমে মামলা করা হয়।

তাই অবিলম্বে দোকান মালিকদের মামলা প্রত্যাহারসহ দূর্ণীতবাজ এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবী জানান এবং সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন নেতৃবৃন্দরা।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে জানতে শ্রম অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম বিভাগের কারখানা ও প্রতিষ্ঠানের জন্য পরিদর্শন বিভাগের সহকারী ইন্সপেক্টর জেনারেল (জেনারেল) তপন বিকাশ তঞ্চঙ্গ্যার সাথে যোগাযোগ করা হলে প্রতিবেদককে তিনি জানান, আমাদের মহাপরিদর্শক সামছুজ্জামান ভূঁইয়া কর্তৃক নির্দেশনা প্রাপ্ত হয়ে আমার উদ্বর্তন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে আমাকে রাঙামাটির দায়িত্ব প্রদান করা হয়। এরই আলোকে আমি বারংবার রাঙামাটির ব্যবসায়িদের শ্রম আইন সম্পর্কে সচেতন করার চেষ্ঠা চালিয়েছি।

এতে করে শহরের ৮০ শতাংশ ব্যবসায়ি শ্রম আইন মানার ব্যাপারে একমত হলেও কয়েকজন ব্যবসায়ি এদেরকে ভূল বুঝিয়ে ভিন্ন পথে নিয়ে যাওয়ার চেষ্ঠা চালাচ্ছে। এমাতবস্থায় উদ্বর্তন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে আমি কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করি।তপন তঞ্চঙ্গ্যার দাবি, আমি কোনো প্রকার ব্যক্তিগত আক্রোশের বশবর্তি হয়ে এই মামলা দায়ের করিনি।

শ্রমিকদের অধিকারের বিষয়টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার লক্ষ্যেই আমার উপর দোষ চাপানো হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার আইএলও সনদে স্বাক্ষর করেছে, শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় আমাদের শ্রম মন্ত্রণালয়অধীণ শ্রম অধিদপ্তর বদ্ধ পরিকর।

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/২রা জুলাই, ২০১৮ ইং/বিকাল ৫:১৪