২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৯:৩৪

দৌলতখানে প্রেমিকযুগল আটক ৪০ হাজার টাকায় রফাদফা

 

মামুন হাওলাদার,দৌলতখান প্রতিনিধি : ভোলার দৌলতখানে শনিবার প্রেমিকযুগল আটক করেছে থানা পুলিশ। আটকের ১৮ ঘন্টা পর ৪০ হাজার টাকায় বিষয়টি রফাদফা করে প্রেমিকযুগলকে ছাড়িয়ে নেওয়া হয়েছে। জানা গেছে, শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার চরখলিফা ইউনিয়নের কলাকোপা গ্রামের মিয়ারআলী মুন্সি বাড়ির শাহাবুদ্দিনের নবম শ্রেণি পড়–য়া মেয়ে ও প্রেমিক হাফিজুর রহমান(২২)কে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে স্থানীয়জনতা। থানা হেফাজতে নিয়ে আসার পরপরই একটি দালালচক্র দিনভর প্রেমিকযুগলকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালায়।

থানা সূত্রে জানা যায়, প্রেমিক হাফিজুর রহমান তজুমদ্দিন উপজেলার দাসের হাট এলাকার আবুল বশারের ছেলে। সে ঢাকার একটি মসজিদের ইমাম। ১ বছর পূর্বে দৌলতখানে তার বন্ধু সৌরভের বাড়ি বেড়াতে এসে প্রেমিকার সাথে পরিচয় হয়। সেই থেকে দু’জনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এরই মধ্যে হাফিজ তার প্রেমিকাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ঢাকায় প্রেমিকার বাসায় দৈহিক মেলামেশা করে।

এ বিষয়ে জানতে স্থানীয় সংবাদকর্মীরা দৌলতখান থানায় গেলে প্রেমিকা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপস্থিতিতে বলেন, হাফিজুর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তার সাথে একাধিকবার দৈহিক মেলামেশা করেছে। প্রেমিকা আরোও জানায়, তার বাবা দিনমজুর এবং মা মানসিক প্রতিবন্ধী। তাকে দেখার কেউ নেই। এসময় কেঁদে কেঁদে প্রেমিকা বিয়ের দাবী জানিয়ে বিষয়টি মীমাংসার জন্য ওসিকে অনুরোধ করেন।

পরে মৎস্য আড়তের কেরানি সেলিমসহ একটি চক্র দিনভর দেনদরবার চালিয়ে প্রেমিকার বিয়ে দাবীর পরিবর্তে মামা আব্দূর মন্নান এবং দাদার হাতে ৩০ হাজার টাকা হাতে ধরিয়ে ছেলেকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নেয়। এহেন সিদ্ধান্তে স্থানীয় মানুষের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ এনায়েত হোসেন বলেন, মেয়েটি নাবালিকা হওয়ায় দু’জনকে তাদের পরিবারের কাছে তুলে দেওয়া হয়।

 

 

কিউএনবি/রেশমা/২রা জুলাই, ২০১৮ ইং/দুপুর ২:৪৬