২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ভোর ৫:২৯

ট্রাম্পের নীতির ধাক্কায় ‘দ্বিতীয় গৃহযুদ্ধে’র মুখে আমেরিকা

 

জনমত সমীক্ষার রিপোর্ট-আমেরিকায় ফের গৃহযুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে সেই সংঘর্ষ বাস্তবে রূপ নিতে পারে এমনই আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে। মার্কিন সংবাদ মাধ্যমে এই সমীক্ষা রিপোর্ট খুবই গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ করা হয়েছে। সমীক্ষা চালিয়েছে রাসমুসেন রিপোর্টস।

সমীক্ষাকে সংবাদে আকারে লিখতে গিয়ে একাধিক সংবাদ মাধ্যম বলছে, রাজনৈতিক উত্তাপে প্রবল কাঁপতে শুরু করবে দেশ। জনমত সমীক্ষায় উঠে এসেছে, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আমেরিকায় গৃহযুদ্ধ শুরু হবে। দেশটির অন্তত এক তৃতীয়াংশ মানুষ এমনই মনে করেন।

‘Are we in for a second civil war?’ অর্থাৎ আমরা কি দ্বিতীয়বার গৃহযুদ্ধের মুখে দাঁড়িয়েছি এমনই লিখে সংবাদ পরিবেশন করেছে মার্কিন ওয়েব মাধ্যম www.aol.com, আবার ওয়াশিংটন পোস্টের শিরোনাম-‘A new civil war is already upon us’।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম গৃহযুদ্ধের সময়কাল ১৮৬১-১৮৬৫ সাল পর্যন্ত। এই সংঘর্ষ হল সেদেশে সংগঠিত এক আঞ্চলিক বিরোধ। এতে প্রতিপক্ষ ছিল তৎকালীন মার্কিন ফেডারেল সরকার ও বিদ্রোহী ১১ টি প্রদেশ। দাস প্রথা বিরোধী আব্রাহাম লিংকনের নেতৃত্বে বিদ্রোহীরা পরে দেশের ক্ষমতা দখল করে। লক্ষাধিক মানুষের মৃত্যু হয় সেই গৃহযুদ্ধে।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিবাসন নীতি দ্বিতীয়বারে জন্য গৃহযুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি করেছে বলে সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের অভিমত। দেশটির ৩১ শতাংশ মানুষ মনে করেন আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে গৃহযুদ্ধের আশংকা রয়েছে। আর ১১ শতাংশ মনে করেছেন এই আশংকা ব্যাপক পরিমাণে বেড়েছে।

সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৫৯ শতাংশ মার্কিন নাগরিক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নীতির বিরোধিতা করেছেন। তারা আশংকা করেন ট্রাম্পের নীতির কারণে আমেরিকায় হিংসা ছড়িয়ে পড়া সময়ের অপেক্ষা।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকা বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করায় আমেরিকায় প্রবল প্রতিক্রিয়া হয়েছে। তথ্যে উঠে এসেছে, নতুন অভিবাসন নীতির কারণে দু হাজারের বেশি শিশু তাদের মা-বাবার কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন। এই শিশুদের মা-বাবারা আমেরিকায় অবৈধ ভাবে প্রবেশে অভিযুক্ত।

 

কিউএনবি/ অদ্রি /৩০.০৬.১৮/ সকাল ১০.১০