১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১১:১৯

মনিরামপুরে বিধবাকে মারপিটের অভিযোগে ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা : মারপিটের ভিডিও চিত্র ভাইরাল

 

এস.এম.মজনুর রহমান,মনিরামপুর(যশোর) : যশোরের মনিরামপুরে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের সাথে নিয়ে বসতভিটা দখল করতে গিয়ে রোকেয়া বেগম(৬০) নামে এক বিধাব নারীকে বেধড়ক মারপিটের অভিযোগ উঠেছে। মারপিটসহ নির্যাতনের ধারণকৃত ভিডিওচিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে শুরু হয় তোলপোড়ের । নির্যাতনের ঘটনায় আট জনকে আসামি করে শুক্রবার রাতে থানায় মামলা করা হয়েছে। পুলিশ ইতিমধ্যে মামলার প্রধান আসামি উপজেলার ঢাকুরিয়া গ্রামের মৃত আনসার আলীর ছেলে শহিদুল ইসলামকে আটক করেছে।

জানাযায়, উপজেলার ঢাকুরিয়া গ্রামের বদিউজ্জামানের মেয়ে রোকেয়া বেগমের স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে তিনি পিতার বড়িতে ঠাই নেয়। সেখানে ৪০ বছর থাকার পর নি:স্বন্তান রোকেয়া বেগম এবং তার দুই ভাই মিলে প্রতিবেশী আবদুল খালেকের কাছ থেকে জমি কিনে সেখানে বাড়ি নির্মান করে বসবাস করে আসছেন।

কিন্তু ঢাকুরিয়া গ্রামের মৃত আনসার আলীর ছেলে শহিদুল ইসলামের দাবি রোকেয়াদের বসতভিটায় তার ক্রয়কৃত একখন্ড জমি রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে গত সোমবার সকাল ১০ টার দিকে শহিদুল ইসলাম এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের সাথে নিয়ে ওই জমি দখল করতে যান। এ সময় নিজের ক্রয়কৃত জমি দখলের নামে শহিদুল ওই বিধবা রোকেয়ার উঠানের জমি দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ রয়েছে।

দখলে বাঁধা দিলে শহিদুল এবং তার সাথে আসা সন্ত্রাসীরা রোকেয়াকে বেধড়ক মারপিট করে। যার ধারণকৃত ভিডিও চিত্র রয়েছে। সন্ত্রাসী হামলা ও মারপিটের ঘটনায় রোকেয়া বেগম বাদি হয়ে শহিদুল ইসলাম, তবিবর রহমান, ইউসুফ আলী, বাবু, আহাদ, রবিউল ইসলাম, মোস্তাক ও কৃষ্ণ নামে আট জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন। মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে ওসি মোকাররম হোসেন জানান, প্রধান আসামিকে আটক করা হয়েছে এবং বাকীদের আটকের চেষ্টা চলছে।

 

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/২৬শে মে, ২০১৮ ইং/সন্ধ্যা ৬:০৭