১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৪৯

মেলান্দহে ৫ম শেণির শিক্ষার্থীকে প্রাইভেট শিক্ষকের ধর্ষণ ধর্ষিতার পরিবারকে উল্টো মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকি

 

জাকারিয়া জাহাঙ্গীর,জামালপুর : জামালপুরের মেলান্দহে ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে (১২) রাতভর ধর্ষণ করেছে তারই প্রাইভেট শিক্ষক। এ ঘটনায় কোনো বিচার না পেলেও উল্টো ধর্ষিতার বাবাকে ধর্ষকের লোকজন মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলার ঘোষেরপাড়া ইউনিয়নের চর বংশীবেলতৈল গ্রামে গত ১২ মে (শনিবার) এ ঘটনাটি ঘটে। সম্প্রতি বিষয়টি প্রকাশ পেলে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ধর্ষক প্রভাবশালী হওয়ায় ব্যবস্থা নিচ্ছে না পুলিশ। আর আতঙ্কে সময় কাটাচ্ছে ধর্ষিতার পরিবার।

পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, চর বংশী বেলতৈল গ্রামের আব্দুল হাইয়ের লম্পট ছেলে মনোয়ার হোসেন (২২) একই গ্রামের বাদশা মিয়ার মেয়ে বেলতৈল কেজি স্কুলের ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে (১২) প্রাইভেট পড়াতো। ১২ মে (শনিবার) সকালে ওই মেয়েটি স্কুলে যাওবার পথে প্রাইভেট শিক্ষক মনোয়ার হোসেন তাকে কম্পিউটার শেখানোর কথা বলে বাড়িতে নিয়ে সারাদিন আটকে রাখে।

ওই দিন ও রাতভর ধর্ষণ শেষে পরদিন সকালে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় ফেলে রেখে যায়।এ ঘটনায় ধর্ষিতার বাবা এলাকাবাসির কাছে বিচার চান। কিন্তু ধর্ষক প্রভাবশালী হওয়ায় গ্রামের কুচক্রি মহল ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে চেষ্টা করে।পরে ধর্ষিতার বাবা বাদশা মিয়া বাধ্য হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

বাদশা মিয়া অভিযোগ করেন, ধর্ষকের লোকজন তাকে অভিযোগ প্রত্যাহার করতে চাপ ও মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করছে। তা না করলে তাকে উল্টো মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিচ্ছে। বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমানের কাছে জানানোর পরও রহস্যজনক কারণে তিনি চুপচাপ।নিরাপত্তাহীন অবস্থায় ধর্ষিতার চিকিৎসা চলছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমান বলেন, বিষয়টি কোনো পক্ষই জানায়নি।তবে দুই পরিবারের মধ্যে বিরোধ ছিল বলে জেনেছি।এ ব্যাপারে ওসি (তদন্ত) টিপু সুলতান জানান, বিষয়টি নিয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি।প্রাথমিকভাবে তদন্ত করতে ইউপি চেয়ারম্যানকে বলা হয়েছে।

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/১৯শে মে, ২০১৮ ইং/বিকাল ৩:১০