১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ১১:৫০

ময়লা আবর্জনার গন্ধে অতিষ্ঠ ভান্ডারিয়া পৌরবাসী

 

মামুন হোসেন,পিরোজপুর প্রতিনিধি : ভান্ডারিয়া পৌর শহরের ব্যবসায়ী ও পৌর এলাকার বাসাবাড়ির ময়লা আবর্জনার গন্ধে অতিষ্ঠ পৌরবাসী। ময়লা আবর্জনার স্তুপ থেকে দুর্গন্ধে স্কুল,ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ অফিস আদালতও রেহাই পাচ্ছেনা।

ফলে জণসাধারণ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।পৌরসভার সাধারণ মানুষের দাবি, ময়লা ফেলার ডাম্পিং গ্রাউন্ড (ময়লা ফেলার ভাগাড়) থাকলেও তা ব্যবহার না করে যত্রতত্র ময়লা ফেলার কারণে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে।তবে, পৌরসভা পরিচ্ছন্নকর্মীদের দাবি তারা নির্দিষ্ট সময়েই ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার করেন।

ভান্ডারিয়া পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখাগেছে, ভা-ারিয়া বাসস্ট্যান্ডের মহাসড়কের পাশে অস্থাই ভাবে,শহরের মাছ বাজারের ভূবেনশ্বর খালে ও শহরের প্রানকেন্দ্র কালিমন্দির ও মুক্তিযোদ্ধা ভবন এলাকায় অস্থায়ীভাবে ময়লার স্তুপ করে রাখছে পরিচ্ছন্নকর্মীরা।

ফলে ভান্ডারিয়া বাসস্ট্যান্ডের মহাসড়কের পাশে ফুটপাতে পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় বৃস্টির পানি জমে ময়লা পানিতে প্রতিনিয়ত তৈরি হচ্ছে বিষক্ত মশা-মাছি।শহরের মাছ বাজারের ভূবেনশ্বর খালে ময়লার ভাগার করার কারনে নৌযান চলাচলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে ভাসমান ব্যবসায়ীরা।

অপর দিকে শহরের প্রানকেন্দ্র কালিমন্দির ও মুক্তিযোদ্ধা ভবন এলাকায় ময়লার স্তুপ করে রাখার কারনে পুরো শহরে দূর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে।দুর্গন্ধের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না ব্যবসায়ী ও পথচারীরা।এসব ময়লা আবর্জনা নির্দিষ্ট স্থানে না ফেলার কারণে গন্ধ আরো তিব্রভাবে ছড়িয়ে পড়ছে এবং পৌরবাসী নানান ভাইরাস জনিত রোগে আক্রান্ত হতে পারে বলে চিকিৎসকরা জানান।

ময়লা এলাকার বাসস্ট্যান্ডের বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম বাবু ও আইউব আলী জানান, জেলার অন্যতম এই বাজারে ময়লা ফেলার জন্য নির্দিষ্ট স্থান নেই।ফলে এখানে বিক্রেতারা যত্রতত্র ময়লা ফেলছে।ওই ময়লা অস্থায়ীভাবে মজুদ করে পৌরসভার পরিচ্ছন্নকর্মীরা ট্রাকে করে নিয়ে গেলেও দুর্গন্ধের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না পথচারী ও বাসবাসকারীরা।

ভান্ডারিয়া বন্দর সুরক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সামসুল ইসলাম আমিরুল বলেন, ময়লা আবর্জনার দুর্গন্ধের কারণে এখানকার শহরের হোটেলগুলোতে সকালে নাস্তা করাও যায় না।তিনি,পৌর শহর থেকে অনেক দূরে নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা আবর্জনা রাখার জন্য জোড় দাবি জানান।

পৌর এলাকায় বাসা-বাড়ির ময়লা আবর্জনা এক জায়গায় রাখতে অস্থায়ী ভাগাড় বসালেও নির্দিষ্ট সময়ে পরিষ্কার না করার কারণে গন্ধে এলাকার মানুষ মুখ বন্ধ করে চলাচল করতে বাধ্য হচ্ছে।ভান্ডারিয়া পৌরসভার পরিছন্নতা পরিদর্শক খলিলুর রহমান জানান, বাসা-বাড়ির ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার রাখতে শ্রমিক ও সুইপার রয়েছে মোট ৮ জন।

এছাড়া ময়লা আবর্জনা নির্দিষ্ট স্থানে নিতে ২টি ট্রাক ও ৪টি ছোট ভ্যানগাড়ি রয়েছে।তিনি বলেন, আমাদের চাহিদার চেয়ে ৩০ জন কর্মচারী ও ভ্যান কম রয়েছে।অপরদিকে, যানবাহন কম থাকায় শহরের ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার রাখতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।ভান্ডারিয়া পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীন আক্তার সুমী মুঠোফোনে জানান, ময়লা আবর্জনা নিদির্ষ্ট স্থানে রাখার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা দ্রুত নেয়া হবে।

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/১৪ই মে, ২০১৮ ইং/বিকাল ৪:১৯